অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/03/march-boktobbo.html

২৬ শে মার্চ এর বক্তব্য - ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা দিবস নিয়ে কিছু কথা

আপনি কি ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য, ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস, ২৬শে মার্চ এর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রচনা, স্বাধীনতা দিবস রচনা ১০০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবস রচনা ২০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ ও মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা, স্বাধীনতা দিবস নিয়ে কিছু কথা জানতে চান? তাহলে আমাদের আজকের এই পোস্টটি আপনার জন্য।

আজ আমরা ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য, ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস, ২৬শে মার্চ এর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রচনা , স্বাধীনতা দিবস রচনা ১০০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবস রচনা ২০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ ও মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা নিয়ে আলোচনা করব। চলুন আর দেরি না করে জেনে নেই ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য, ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস, ২৬শে মার্চ এর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রচনা , স্বাধীনতা দিবস রচনা ১০০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবস রচনা ২০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ ও মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা।

আরও পড়ুনঃ ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা দিবসের ছবি ও ব্যানার

পেজ সূচিপত্রঃ ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য - স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য - ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস

২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস | ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ প্রথম প্রহরে পাকিস্থানি বাহিনীর কাছে গ্রেপ্তারের আগে ও স্বাধীনতা যুদ্ধের শুরুতে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন। পরের দিন অর্থাৎ ২৭শে মার্চ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণাটি বঙ্গবন্ধুর পক্ষ থেকে মেজর জিয়াউর রহমান চট্টগ্রাম কালুর ঘাট থেকে সরাসরি একটি রেডিওতে সম্প্রচার করেন। বাংলাদেশের অস্থায়ী সরকার ১০ এপ্রিল পূর্ববর্তী ঘোষণার ভিত্তিতে একটি ঘোষণা জারি করেন এবং স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য একটি অন্তর্বর্তী সংবিধান প্রতিষ্ঠা করেন।

স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য | ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য

বাংলাদেশের জাতীয় স্বাধীনতা দিবস ২৬শে মার্চ। সারা বাংলাদেশে এবং সারা বিশ্বে এই দিনটি অনেক জাঁকজমকভাবে পালিত হয়। এটি ২৫শে মার্চ ১৯৭১ সালের শেষের দিকে পাকিস্তান থেকে এই  দেশের স্বাধীনতার ঘোষণা করে এবং ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সূচনাকে স্মরণ করে। ২৬শে মার্চ দিনটি বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদ হওয়া হাজার হাজার নিরীহ বেসামরিক মানুষের মৃত্যুর একটি স্মারক। বাংলাদেশে এই দিনটি জাতীয় ছুটির দিন হিসেবে পালিত হয়, এবং ঢাকার সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধে শহীদদের স্মরণে কুচকাওয়াজ ও পুষ্পবর্তন দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর মাধ্যমে মহান স্বাধীনতা দিবস উদযাপিত হয়।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ দেন। তিনি এই ভাষণে ২৫শে মার্চ জাতীয় পরিষদের সভা বিবেচনা করার জন্য একটি চার দফা শর্ত উল্লেখ করেছিলেন। শর্তগুলো ছিল নিম্নরূপঃ
  • সামরিক আইন অবিলম্বে প্রত্যাহার করতে হবে।
  • অবিলম্বে সমস্ত সামরিক কর্মীদের তাদের ব্যারাক প্রত্যাহার করতে হবে।
  • প্রাণহানির একটি তদন্ত করতে হবে।
  • জনগণের নির্বাচিত প্রতিনিধির কাছে ২৫শে মার্চ বিধানসভার আগে অবিলম্বে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে।
প্রতিরোধের দুর্গ হিসেবে প্রতিটি বাড়িকে পরিণত করার জন্য বঙ্গবন্ধু দেশের সকলকে আহ্বান জানান। তিনি তার বক্তব্য বন্ধ করে বলেন, "এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম আমাদের স্বাধীনতার সংগ্রাম।" এই ভাষণটি সকল জাতিকে তার স্বাধীনতার জন্য লড়াই করতে অনুপ্রাণিত করেছিল। পূর্ব বাংলার গভর্নর হওয়ার জন্য জেনারেল টিক্কা খানকে ঢাকায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। পূর্ব-পাকিস্তানের বিচারকরা ও বিচারপতি সিদ্দিকীসহ জেনারেল টিক্কা খানকে শপথ নিতে অস্বীকার করেন।
২৫শে মার্চ শুরু হয়েছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দ্বারা পরিচালিত "অপারেশন সার্চলাইট" যা বাঙালি জাতীয়তাবাদী আন্দোলনকে দমন করার জন্য পাকিস্থানি বাহিনী ২৬শে মার্চ প্রধান শহরগুলিকে নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয়, তারপর এক মাসের মধ্যে সমস্ত বিরোধী, রাজনৈতিক বা সামরিক বাহিীনিক নির্মূল করে। এই অভিযান শুরুর আগে পূর্ব পাকিস্তান থেকে সব বিদেশী সাংবাদিককে পরিকল্পিতভাবে বিতাড়িত করে দেওয়া হয়।
সেই পরিকল্পনার মধ্যে আক্রমণাত্মক অভিযানের পরিকল্পিত এবং মনোনীত কেন্দ্রগুলির মধ্যে ছিল- ঢাকা, খুলনা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, যশোর, রাজশাহী, রংপুর, সৈয়দপুর এবং সিলেট অঞ্চল। যেখানে পশ্চিম পাকিস্তান সেনা ইউনিট তৈরী করে ছিল। পূর্ব পাকিস্তানের অন্যান্য সকল অঞ্চলে পাকিস্তানি সেনা ইউনিট এবং আধা-সামরিক বাহিনী তাদের নিজ নিজ এলাকার নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে এবং অপারেশনের প্রাথমিক পর্যায়ে শক্তিবৃদ্ধি করার অপেক্ষায় ছিল।
১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ মধ্যরাতে পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমান বাংলাদেশ) "অপারেশন সার্চ লাইট" শুরু হলে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ও পাকিস্তানি রাজাকার বাহিনী বহু নিরীহ জনসাধারণ, ছাত্র, বেসামরিক, শিশু, রাজনৈতিক নেতা, রাজনৈতিক সদস্য ও বৃদ্ধকে হত্যা করে। এবং তারা অনেক বাঙালি মেয়ে ও নারীকে ধর্ষণ করেছে। মাত্র এক রাতে তারা হাজার হাজার নিরস্ত্র বাঙালিকে নির্বিচারে হত্যা করে।

আপনার পছন্দের বিষয়ের ওপর চাপ/ক্লিক করে বিস্তারিত পড়ে নিন


১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতের পর সারাদেশে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। ২৫শে মার্চ কালরাতের সেই হত্যাযজ্ঞের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি সরকারী ঘোষণায় স্বাক্ষর করেন সেই ঘোষণায় যা ছিল তা নিম্নরূপঃ
«বাংলাদেশ আজ একটি সার্বভৌম ও স্বাধীন রাষ্ট্র। পশ্চিম পাকিস্তানের সশস্ত্র বাহিনী বৃহস্পতিবার রাতে হঠাৎ করে ইপিআর সদর দপ্তরে এবং ঢাকার পিলখানার রাজারবাগে হামলা চালায়। অনেক নিরপরাধ ও নিরস্ত্র মানুষ ঢাকা শহর এবং বাংলাদেশের অন্যান্য স্থানে নিহত হয়েছে। একদিকে পুলিশের এবং পূর্ব পাকিস্তান রাইফেলসের মধ্যে সহিংস সংঘর্ষ এবং অন্যদিকেথেকে সশস্ত্র বাহিনীর ও  পিন্ডির  মধ্যে সহিংস সংঘর্ষ চলছে।  অত্যন্ত সাহসের সাথে শত্রুর সাথে বাঙালিরা স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য লড়াই করছে। বিশ্বাসঘাতক শত্রুদের বাংলাদেশের প্রতিটি কোণা থেকে প্রতিরোধ করুন। মহান আল্লাহ্‌ তায়ালা স্বাধীনতার জন্য আমাদের লড়াইয়ে সাহায্য করুন। "জয় বাংলা"»

স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রচনা | ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য

সূচনাঃ আমাদের দেশ বাংলাদেশ একটি সমৃদ্ধশালী, শস্য সমৃদ্ধ স্বাধীন দেশ। ২৬ মার্চ, ১৯৭১-এ দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে। যখন কিছু ২৫ বছরে পদার্পণ করে, তখন তাকে রজত জয়ন্তী বলা হয়। এবং যখন ৫০ বছরে পদার্পণ করেন তখন এটিকে সুবর্ণ জয়ন্তী বলা হয়। আমাদের দেশ বাংলাদেশ ৫০ তম বছরে অর্থাৎ ২০২১ সালে সুবর্ণ জয়ন্তীতে পদার্পণ করেছে। এই ৫০ বছরে যুদ্ধবিধ্বস্ত ও দরিদ্র বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে।

প্রাক-স্বাধীনতা ইতিহাসঃ বর্তমান বাংলাদেশ সহ ভারতীয় উপমহাদেশ ১৭৫৭ সালে মুঘল সম্রাট নবাব সিরাজ-উদ-দৌলার পরাজয়ের সাথে তার স্বাধীনতা হারায়। তখন থেকেই ইংরেজ শাসন শুরু হয়। ইংরেজরা প্রায় ২০০ বছর ধরে আমাদের শাসন করেছে। পাশাপাশি শোষক ও সম্পদহীন। তারপর ভারতীয় উপমহাদেশ এবং আরও অনেকে কঠোর আন্দোলন ও যুদ্ধের মাধ্যমে স্বাধীনতা ফিরিয়ে আনে। ১৯৪৭ সালে স্বাধীনতা লাভের পর, দ্বিজাতি তত্ত্বের মাধ্যমে ভারত ও পাকিস্তান নামে দুটি রাষ্ট্র সৃষ্টি হয়। পাকিস্তান ১৪ই আগস্ট ১৯৪৭ সালে এবং ১৫ই আগস্ট ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীনতা লাভ করে। কিন্তু পাকিস্তান আবার পূর্ব পাকিস্তান এবং পশ্চিম পাকিস্তানে বিভক্ত হয়। পূর্ব পাকিস্তান ছিল আমাদের বর্তমান বাংলাদেশ। পূর্ব পাকিস্তান তখন পশ্চিম পাকিস্তান শাসিত। কারণ আমরা তখন স্বাধীনতা পাইনি। ১২০০০ মাইল দূর থেকে পশ্চিম পাকিস্তানিরা আমাদের শাসন করে চলেছে। পাশাপাশি শোষণ-নির্যাতন। প্রথমে তারা আমাদের মাতৃভাষা বাংলার উপর আঘাত করে।

তখন থেকেই নানা ধরনের শোষণ-বঞ্চনার প্রচলন শুরু হয়। কিন্তু এসব বাঙালি মেনে নেয়নি। তারা প্রতিরোধ গড়ে তোলে এবং পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায়। বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালিদের নেতৃত্ব দিয়েছেন এবং উৎসাহিত করেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বর্তমান সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে একটি ঐতিহাসিক ভাষণ দেন যা ইউনেস্কো কর্তৃক ৩০ অক্টোবর ২০১৬ বিশ্ব ঐতিহ্যবাহী স্থান হিসেবে ঘোষণা করা হয়। তিনি তার ১৬ মিনিটের অলিখিত ভাষণে বাংলাদেশ শব্দটি ব্যবহার করেন এবং তুলে ধরেছেন বাঙালির স্বাধীনতা।
১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ রাতে পাকিস্তানি সেনারা আমাদের বাংলাদেশে আক্রমণ করলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। স্বাধীন বাংলাসহ বিভিন্ন চ্যানেলের মাধ্যমে বাঙালিদের কাছে এই ভাষণ পৌঁছে দেওয়া হয়। বেতার কেন্দ্র। এরপর দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ ও ৩০ লাখ মানুষের শহীদ হওয়ার পর ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর আমাদের দেশ বাংলাদেশ স্বাধীনতা লাভ করে।

সুবর্ণ জয়ন্তীতে বাংলাদেশের কৃতিত্বঃ "উদয়মান ১১" বর্তমানে বিশ্বের ১১টি দেশের মধ্যে ভবিষ্যৎ উন্নয়নের জন্য গণনা করা হয়, যার মধ্যে বাংলাদেশ একটি। বাংলাদেশ বর্তমানে অর্থনীতিতে ৪১তম দেশ যা একসময় একেবারে শেষের দিকে ছিল। গত কয়েক বছরে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার গড়ে ৭ শতাংশের কাছাকাছি। যেখানে ১৯৮৬ সালে দারিদ্র্যের হার ছিল ৭৫%, বর্তমান হার ২০%। বাংলাদেশের জিডিপি (গ্রস ডোমেস্টিক প্রোডাক্ট) শুধুমাত্র কৃষির উপর নির্ভরশীল নয়। জিডিপিতে কৃষির অবদান মাত্র .১৩% এবং শিল্প ও পরিষেবার অবদান যথাক্রমে ৩০% এবং ৫৬%৷ অনেক ক্ষেত্রে নিজেদের প্রয়োজন মেটাতে বাংলাদেশে রপ্তানি করে অর্থ উপার্জন করছেন। রেমিটেন্স প্রাপ্তিতে বাংলাদেশের অবস্থান সপ্তম। বাংলাদেশ থেকে প্রবাসীরা কাজ করে অন্য অনেক দেশে টাকা পাঠাচ্ছেন। ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতি সমৃদ্ধ হচ্ছে। ফ্রিল্যান্সাররা ফ্রিল্যান্সিং করে দেশের উন্নতি করছে। এছাড়া আয়ুষ্কাল, মাতৃমৃত্যুর হার ও শিশুমৃত্যুর হার অনেক কমেছে। বাংলাদেশ থেকে বিশ্বের প্রায় সব দেশে সিমেন্ট, শাকসবজি, মাছ, বিভিন্ন ফল ও পোশাক রপ্তানি হচ্ছে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই এলজিডি (সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা) অর্জন করেছে। এছাড়া সব ক্ষেত্রেই বাংলাদেশ অভূতপূর্ব উন্নতি করেছে।
বাংলাদেশের অগ্রগতিঃ সুবর্ণ জয়ন্তীতে বাংলাদেশের অগ্রগতি অনুযায়ী ২০২১ সালে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রথমে দরিদ্র ও অনুন্নত তারপর স্বাধীনতার ৫০ বছরে আমরা উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছি। রূপকল্প ২০৪১-এর মাধ্যমে বাংলাদেশ একটি আধুনিক রাষ্ট্রে পরিণত হওয়ার লক্ষ্য অর্জন করেছে। বাংলাদেশে বর্তমানে অনেক মেগা উন্নয়ন প্রকল্প চলছে। মেট্রোরেল, পদ্মা সেতু, বড় ফ্লাইওভারের মতো কাজ। এছাড়া বাংলাদেশে রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে এবং মহাকাশে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ নামে একটি স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণকারী বাংলাদেশ ৫৭তম দেশ। আরও ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজও চলছে।

ডিজিটাল বাংলাদেশঃ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর আরেকটি অর্জন ডিজিটাল বাংলাদেশ। এ লক্ষ্যে বর্তমান সরকার বিশ্বের সব দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদের বাংলাদেশকে পরিচালনার জন্য ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ রূপকল্প ঘোষণা করেছে। বলা হয়েছিল, রূপকল্প ২০২১ অনুসরণ করে ডিজিটাল দেশ হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে। রূপকল্প ২০২১-এর মূল লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশকে একটি সুখী, সমৃদ্ধ, ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত দেশ হিসেবে গড়ে তোলা। বর্তমানে বাংলাদেশ প্রায় সফলতার সাথে তা অর্জন করছে। বাংলাদেশ আরও সফল হতো যদি কর্ণ মহামারীর মতো বাধা না থাকত।

বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর পর বাংলাদেশের উন্নয়নঃ ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারকে হত্যা করা হলেও ভাগ্যক্রমে বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বিদেশে থাকার কারণে বেঁচে যান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ছিল সোনার বাংলা গড়ার। আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে দেশরত্ন শেখ হাসিনা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুরা আমাদের বলেছিল যে স্বাধীনতার ১০০ বছর পরেও আমাদের মাথাপিছু আয় ১০০০ ডলার হবে না। কিন্তু তাদের কথার দ্বিগুণ অর্থ, স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় হয়েছে ২০৬৪ ডলার। ১৯৭০ সালে এদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ছিল মাত্র ১৪০ ডলার। তাছাড়া করোনার সময় এশিয়ায় বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধির হার কমেনি বরং বেড়েছে। হেনরি কিসিঞ্জারের মতে এই যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশটি "আনলকড ঝুড়ি" দিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল। কিন্তু একাত্তরের পর শোষণ-বঞ্চনার পর আমরা আর ছন্দহীন নেই। এখন সেই ঝুড়ি সাফল্যে ভরপুর। কারণ বর্তমানে বাংলাদেশের রিজার্ভ রয়েছে ৪০ মিলিয়ন ডলার।

বাংলাদেশের উন্নয়নে আমাদের কর্তব্যঃ অবশ্যই স্বাধীন দেশের নাগরিক হিসেবে এদেশের প্রতি আমাদের দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে হবে। শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। যে দেশ যত উন্নত, তার মানুষ তত বেশি শিক্ষিত। তাই সবাইকে সুশিক্ষিত হতে হবে। ঘরে বসে অলস থেকে বিভিন্ন কাজ শিখতে হবে। এর ফলে দেশের উন্নয়ন হবে এবং নিজস্ব অর্থনৈতিক ঘাটতি পূরণ হবে।

উপসংহারঃ ৩০ লাখ শহীদের রক্তের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি এই বাংলাদেশ। আমরা আমাদের দেশে তাদের জন্য স্বাধীনভাবে বাঁচতে পারি। তাই আমরা তাদের সবসময় মনে রাখব। সোনার বাংলা গড়বো। এদেশের সার্বিক উন্নয়নে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করব এবং ২০৪১ সালের সুবর্ণ জয়ন্তীতে আমরা উন্নত দেশে পরিণত হব ইনশাআল্লাহ।

স্বাধীনতা দিবস রচনা ১০০০ শব্দ | মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা 

সূচনাঃ স্বাধীনতা মানে স্বাধীন বা স্বাধীন হওয়ার অবস্থা। স্বাধীনতা দিবস মানে যে দিন স্বাধীন সরকারের ঘোষণা দেওয়া হয়। স্বাধীনতা দিবস প্রতিটি জাতির ইতিহাসে লাল অক্ষরের দিন। ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ, যে তারিখে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস ঘোষণা করা হয়, সেই দিনটিকে আমাদের স্বাধীনতা দিবস হিসেবে গণ্য করা হয়। এটি আমাদের জাতীয় জীবনে একটি লাল অক্ষরের দিন।

স্বাধীনতার পটভূমিঃ ১৯৪৭ সালে, পাকিস্তান একটি মুসলিম রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে যার দুটি অংশ-পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তান। পাকিস্তান সৃষ্টির পরপরই পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমানে বাংলাদেশ) জনগণ পশ্চিম পাকিস্তানের আধিপত্যবাদী পাকিস্তানি শাসকদের অন্যায্য, বন্ধুত্বহীন ও দমনমূলক মনোভাব উপলব্ধি করে। পাকিস্তানের প্রথম গভর্নর জেনারেল মোঃ আলী জিন্নাহ ১৯৪৮ সালে ঢাকায় ঘোষণা করেন যে শুধুমাত্র উর্দুই হবে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা। পাকিস্তান ভাষা আন্দোলনের নেতৃত্বে বাঙালিদের ওপর উর্দু চাপিয়ে দেওয়ার প্রচেষ্টা শুরু করে। ১৯৬৯ সালে, পাকিস্তানের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি আইয়ুব খানের স্বৈরাচারী শাসনের বিরুদ্ধে একটি বড় আকারের গণবিপ্লব শুরু হয়। কিন্তু পশ্চিম পাকিস্তানি শাসকরা গুলি করে সাধারণ জনতার কণ্ঠস্বর বন্ধ করার চেষ্টা করে। আইয়ুব খানের অগণতান্ত্রিক ও নিপীড়নমূলক শাসনামলে, বাঙালি জাতীয়তাবাদের আপোষহীন চ্যাম্পিয়ন শেখ মুজিবুর রহমান তার বিখ্যাত ছয় দফা আন্দোলনের ঘোষণা করেছিলেন যা পিন্ডির সিংহাসনকে ভয়ঙ্করভাবে কাঁপিয়ে দিয়েছিল। শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে আগরতলার ষড়যন্ত্র মামলা করা হয়। বঙ্গবন্ধুর মুক্তির দাবিতে তুমুল গণআন্দোলন শুরু হয়। 
অবশেষে শক্তিশালী স্বৈরশাসককে জনগণের ভয়ঙ্কর মহিমার কাছে নতি স্বীকার করতে হয়েছিল। ইয়াহিয়া খান পাকিস্তানে একটি সাধারণ নির্বাচন করেন, আওয়ামী লীগ নির্বাচনে ব্যাপক বিজয় লাভ করে এবং তাই সরকার গঠনের আইনি অধিকার ছিল। জনাব ভুট্টো দেশের সংখ্যাগরিষ্ঠ দল আওয়ামী লীগের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ান। কিন্তু আলোচনা ও মীমাংসার আড়ালে পাকিস্তানিরা বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদকে চিরতরে নিশ্চিহ্ন করার ষড়যন্ত্র করে। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ বর্বর পাকবাহিনী বাংলাদেশের নিরীহ, নিরস্ত্র ও শান্তিকামী নাগরিকদের ওপর অমানবিক হামলা চালায়। শেখ মুজিবুর রহমান যে রাতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন সেই রাতেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। সেই রাত থেকেই অর্থাৎ ২৬শে মার্চ থেকেই বাংলাদেশী মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্যদের মধ্যে সংগ্রাম ও লড়াই শুরু হয়। পাকসেনারা বাঙ্গালীদের কুকুর-বিড়ালের মতো হত্যা করেছে, তাদের ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে, তাদের সম্পত্তি লুট করেছে, নারীদের ধর্ষণ করেছে ইত্যাদি। কিন্তু কোনো বুলেট বাংলাদেশী জাতীয়তাবাদের অদম্য চেতনাকে দমন করতে পারেনি। নয় মাস কঠোর সংগ্রামের পর বাংলাদেশ স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে।

সার্চলাইটঃ ২৫ মার্চ অন্ধকার রাতে বর্বর বাহিনী নিরস্ত্রী বঙ্গালীর ওপর নির্মমভাবে হত্যা শুরু করে। সামরিক বাহিনীর জোটে বড় বড় নেতাদের নিয়ে ইয়াহিয়া খান বলেন- “বঙ্গালীকে হত্যা কর, তখন তারা আমাদের হাত চেটে খাবে। আর তাই পাকিস্তানি বাহিনী ২৫ মার্চের রাতে অপারেশন সার্চলাইট শুরু করে যার কারণ ছিল বাঙ্গালীদের প্রতিরোধ ভেঙ্গে দেওয়া। এরই জন্য পাকিস্তানিরা সর্বপ্রথম এই বাংলার ছাত্র-শিক্ষক, বুদ্ধিজীবি, কবি, সাংবাদিক সহ সকল সাধারন মানুষকে হত্যা করে।

তাৎপর্য ও উদ্দেশ্যঃ আত্মনিয়ন্ত্রণ অর্জন এবং একটি অসাম্প্রদায়িক, কল্যাণমুখী, মানবিক, প্রগতিশীল ও স্বাধীন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে বাংলাদেশকে প্রতিষ্ঠা করা ছিল স্বাধীনতা যুদ্ধের মূল লক্ষ্য। মৌলিক মানবাধিকার ও ন্যায্য অধিকার নিশ্চিত করে জাতীয় পরিচয় প্রতিষ্ঠা, শোষণ, বৈষম্য ও অবিচারের অবসান ঘটিয়ে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সুখী-সমৃদ্ধ সমাজ প্রতিষ্ঠা করাই ছিল স্বাধীনতার মূল উদ্দেশ্য।

আমাদের জীবনে স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য অপরিসীম। বাঙালির জীবনে এই দিনটি একই সঙ্গে আনে আনন্দ-বেদনার অম্ল-মধুর অনুভূতি। একদিকে হারানোর বেদনা অন্যদিকে পাওয়ার আনন্দ। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সর্বস্ব হারিয়ে স্বাধীনতা লাভের অপার আনন্দ হয়ে ওঠে প্রতিটি বাঙালির। প্রতি বছর এই মহিমান্বিত দিনটি আসে আত্মত্যাগ ও আত্মপরিচয়ের বার্তা নিয়ে। যা আমাদের দায়িত্বের কথা মনে করিয়ে দেয়। এই দিনটি নতুন প্রচেষ্টায় অনুপ্রেরণা ও এগিয়ে যাওয়ার দিকনির্দেশনা নিয়ে আসে।

বিশেষ কর্মসূচিঃ ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালিত হয়। দিনটি পালনের জন্য মানুষ অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে। এই দিনে আমরা আমাদের স্বাধীনতার জন্য জীবন উৎসর্গকারী শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করি। সরকার বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান দিবসটি উদযাপনের জন্য বিভিন্ন প্রোগ্রাম হয়। প্রতি বছর যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন করা হয়। সারা দেশে সকল ধরনের সরকারি-বেসরকারি অফিসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়, বেসরকারি ও সরকারি ছাত্ররা একত্রিত হয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করে। শহর ও শহরে, পটকা, বোমা এবং ড্রাম সহ অসংখ্য মানুষের উল্লাসের মাঝে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। বিভিন্ন ইউনিট, সশস্ত্র বাহিনীর কুচকাওয়াজ দর্শকদের সামনে উপস্থাপন করে। সকল ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও অফিস ছুটি থাকে। বাড়ি এবং সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলি সুসজ্জিত করা হয়। আমাদের দেশের রাজধানী ঢাকা এখন উৎসবমুখর। মধ্যাহ্নের পর অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সেমিনার হয়। সমস্ত মসজিদে শহীদদের জন্য বিশেষ প্রার্থনা করা হয়, মন্দিরে সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলি দিবসটি স্মরণে অনুষ্ঠান করে। সন্ধ্যায় সমস্ত বাড়ি, গুরুত্বপূর্ণ বেসরকারি ও সরকারি ভবন আলোকসজ্জায় আলোকিত হয়। রেডিও ও টেলিভিশন কেন্দ্র বিশেষ অনুষ্ঠান জারি করে। ভিক্ষুকদের ভিক্ষা দেওয়া হয় এবং খাওয়ানো হয়। শিশুদের মধ্যে মিষ্টি বিতরণ করা হয়।

স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুঃ একটি নাম, একটি সংস্কৃতি ও একটি দেশ - বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। অতিশয়োক্তি নয়, একজন বাংলাদেশীকে স্বীকার করতেই হবে যে, বঙ্গবন্ধু না থাকলে 'বাংলাদেশ' নামের এ দেশের জন্ম হতো না। আজ তাই বাংলাদেশ রাষ্ট্রে এবং স্বতন্ত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সমার্থক হয়ে উঠেছে।

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ শব্দ দুটি অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত। বাংলা ও বাংলার জন্য শেখ মুজিবুর রহমানের ত্যাগ ও অবদানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে শেখ মুজিবকে 'বঙ্গবন্ধু' উপাধি দেওয়া হয় ১৯৬৯ সালে রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) কেন্দ্রীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সভায়। আওয়ামী লীগ ১৯৬৯ সালের ৫ ডিসেম্বর, শেখ মুজিবুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে পূর্ব বাংলার নামকরণ করেন 'বাংলাদেশ'।

জাতীয় চেতনায় স্বাধীনতা দিবসঃ স্বাধীনতা দিবসের গুরুত্ব বাঙালির জাতীয় চেতনায় থাকা উচিত।  আমাদের নিজেদেরকে জাতি হিসেবে ভাবতে শিখিয়েছে এই মহান স্বাধীনতা দিবস। স্বাধীনতা দিবস শিখিয়েছে স্বাধীন জাতি হিসেবে আমাদের বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে।

অন্যান্য ক্রিয়াকলাপঃ বাংলাদেশের ইতিহাসে এটি একটি আনন্দময় দিন হওয়ায় এই দিনটি উদযাপনের জন্য বিভিন্ন ধরণের খেলা ও খেলাধুলার আয়োজন করা হয়। সাধারণত ফুটবল, ভলিবল, ক্রিকেট, নৌকাবাইচ ইত্যাদি খেলা থানা ও জেলা শহরসহ বিভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। লোকেরা এই উপলক্ষে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং নাট্য পরিবেশনায় অংশ নেয়।

বর্তমান বাস্তবতাঃ স্বাধীনতার স্বপ্ন ও বর্তমান বাস্তবতা পর্যালোচনা করে শিল্পি হায়দার হোসেন এই গানটি গেয়েছিলেন ‘কি দেখার কথা কি দেখছি. . . তিরিশ বছর পরেও আমি স্বাধীনতাটাকে খুঁজছি. . .’।  যা এখনো আমাদের মনের কোণে বিষণ্ণ সুরে বাজে। ত্রিশ নয়, স্বাধীনতার বায়ান্ন বছর পেরিয়ে গেছে। এখনও আমাদের সুখী-সমৃদ্ধ শান্তিপূর্ণ সমাজের স্বপ্ন পূরণ হয়নি। এখনো আমরা ক্ষুধা, দারিদ্র, নিরক্ষরতা, বেকারত্বের দুর্দশায় ভুগছি। মূল্যবোধের অবক্ষয়, সহিংস বিরোধী রাজনীতি, লেজুড়বৃত্তি ছাত্র রাজনীতি, ব্যাপক দুর্নীতি ইত্যাদি সব কিছুই স্বাধীনতার স্বপ্ন বাস্তবায়নের লাগাম টেনে ধরছে। ম্লান হয়ে গেছে স্বাধীনতার চেতনা এবং আমরা পিছু হটছি বলে মনে হচ্ছে।

উপসংহারঃ ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সূচনার ইঙ্গিত দেয়। এই দিনটি তাদের মূল্যবান জীবন উৎসর্গ করা মানুষদের স্মরণ করিয়ে দেয়। দিনটি আমাদের আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে টিকে থাকার দৃঢ় সংকল্পের প্রতীক। এটি আমাদের আশায় উদ্বুদ্ধ করে এবং আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ করে এবং আমাদের হৃদয়ে দৃঢ় বিশ্বাস স্থাপন করে যে বাংলাদেশ থাকতে এসেছে। তাই ২৬শে মার্চ বাংলাদেশের ইতিহাসে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে চিরদিন স্মরণীয় হয়ে থাকবে।
স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষা প্রতিটি জাতিরই থাকে। আর এই আকাঙ্খাই বাঙালিকে স্বাধীনতার সূর্য ছিনিয়ে নিতে উদগ্রীব করে তুলেছিল শত শৃঙ্খল ভেঙে দিয়ে। এই স্বাধীনতা আমার অহংকার, আমাদের অহংকার।

স্বাধীনতা দিবস রচনা ২০০ শব্দ

প্রতিটি দেশের কিছু অর্জন আছে যা তারা গর্ব করতে পারে। তেমনি স্বাধীনতা দিবস আমাদের জাতীয় অর্জন। ২৬শে মার্চ আমাদের স্বাধীনতা দিবস। ১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ এই দিনে আমরা পাকিস্তানের বিরুদ্ধে স্বাধীনতা অর্জন করি। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ বিশ্বের মানচিত্রে একটি দেশের নাম অন্তর্ভুক্ত হয় যার নাম বাংলাদেশ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস এই দিনেই ঘেরা। স্বাধীনতা দিবসের আনন্দঘন মুহূর্তগুলোতে স্মরণ করছি দেশের বহু দেশপ্রেমিক শহীদের আত্মত্যাগের কথা। ১৯৭১ সালের এই দিনে পাকিস্তানি ঔপনিবেশিক স্বৈরশাসনের চব্বিশ বছরের শ্লীলতাহানি কাটিয়ে মুক্তির পথ খুঁজে পায় বাংলার মানুষ। লাখো শহীদের রক্তে আমাদের স্বাধীনতার সূর্য। বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের প্রেক্ষাপট রয়েছে।

১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ শেখ মুজিবুর রহমান ঐতিহাসিক রেসকোর্স গ্রুপে বিশাল জনসমাবেশে ভাষণ দিতে গিয়ে ঘোষণা করেন যে, এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম। এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। ২৬শে মার্চ তারিখে মেজর জিয়াউর রহমান কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে বঙ্গবন্ধুর পক্ষে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে ছাত্র, কৃষক, শ্রমিক, সকলেই মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয় এবং গেরিলা প্রশিক্ষণ নিয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। এভাবে এক সাগর রক্ত ​​ও অনেক ত্যাগের পর আমরা পাকিস্তান থেকে মুক্তি পেয়েছি। আজ আমরা স্বাধীন ও সার্বভৌম জাতি হিসেবে গর্বিত।

স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ | ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য

২৬শে মার্চের প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান গ্রেফতার হওয়ার পূর্ব মূহূর্তে রাত ১টা ৩০মিনিটে স্বাধীনতার ঘোষণা করেন। ঘোষনাটি ইংরেজিতে করা হয়েছিল কারণ বিশ্ববাসী যেন সেই ঘোষনাটি শুনতে পায় ও বুঝতে পারে। ২৬শে মার্চের ভাষণের বাংলা অনুবাদ - "হয়ত এটাই আমার শেষ বার্তা। বাংলাদেশ আজ থেকে স্বাধীন। বাংলাদেশের জনগনকে আমি আহব্বান দিচ্ছি যে, যেখানে যে আছে, যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত হও এবং পাকিস্থানি হানাদার বাহিনীকে সর্বশক্তি দিয়ে প্রতিরোধ কর। এই বাংলার মাটি থেকে পাকিস্থানি হানাদার বাহিনীর সর্বশেষ সৈন্যটিকে বিতাড়িত না করা পর্যন্ত এবং লড়ায় চালিয়ে যাও সেই পর্যন্ত যতক্ষন পর্যন্ত এই বাংলার চূড়ান্ত বিজয় অর্জন না হয়"। (৩রা জুলাই ২০১১ বাংলাদেশ গেজেট, সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী)। বাংলাদেশের সকল স্থানে স্বাধীনতার এই ঘোষনাটি প্রচার করা হয় তদানিন্তন ইপিআর এর ট্রান্সমিটার, টেলিগ্রাম ও টেলিপ্রিন্টারের মাধ্যমে। ২৬শে মার্চ দুপুরে চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা এম. এ. হান্নান বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষনাটি চট্টগ্রাম বেতার কেন্দ্র থেকে দ্বিতীয়বার প্রচার করা হয়। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার এই ঘোষনাটি প্রতিটি বাঙালি সামরিক, আধা সামরিক ও বেসামরিক বাহিনীর সমর্থন ও স্বাধীনতাকামী জনগনকে উজ্জীবিত করে।

স্বাধীনতা দিবস নিয়ে কিছু কথা

১৯৭১ সালের ২৬শে মার্চ বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ভাষণের পর বাঙ্গালীরা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সাথে যুদ্ধে নেমে পড়ে। এই সময় ছোট-বড়, কৃষক-শ্রমিক, তাঁতি-জেলে, ছেলে-মেয়ে সকলে মিলে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে। এই যুদ্ধে অনেক মা-বোনের সম্মানহানি হয়েছে। অনেক ভাইবোনকে প্রান দিতে হয়েছে। অবশেষে দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধের পর ৩০ লক্ষ শহিদের বিনিময়ে ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে অর্জিত হয়েছে আমাদের এই বাংলা। আমাদের এই ভাইয়ের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত বাংলার মাটিকে কখনও কোন কলঙ্কের দাগ লাগতে দিবনা। প্রান দিয়ে রক্ষা করব আমাদের এই জন্মভূমিকে। আমাদের এই সুজলা-সুফলা, শস্য-শ্যমলা দেশকে বিশ্বের দরবারে একটি আদর্শ দেশ হিসেবে পরিচিত করাবো। তাহলেই আমরা সার্থক।

শেষ কথাঃ ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য - স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য - ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস

বন্ধুরা আজ আমরা ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য, ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস, ২৬শে মার্চ এর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রচনা , স্বাধীনতা দিবস রচনা ১০০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবস রচনা ২০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ ও মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা, স্বাধীনতা দিবস নিয়ে কিছু কথা নিয়ে আলোচনা করেছি। আমাদের এই পোস্টটে ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য, ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস, ২৬শে মার্চ এর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রচনা , স্বাধীনতা দিবস রচনা ১০০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবস রচনা ২০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ ও মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা সহ সকল তথ্য বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি আমাদের এই ২৬শে মার্চ এর বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের বক্তব্য, ২৬ মার্চ ১৯৭১ এর ইতিহাস, ২৬শে মার্চ এর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য, স্বাধীনতা দিবসের তাৎপর্য, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী রচনা , স্বাধীনতা দিবস রচনা ১০০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবস রচনা ২০০ শব্দ, স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ ও মহান স্বাধীনতা দিবস রচনা পোস্টটি আপনাদের ভালো লাগবে। ধন্যবাদ।

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?