অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/11/digital.html

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস প্রশ্ন - ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস কবে পালন করা হয়? এর সম্পর্কে আমরা অনেকেই জানিনা। আজকেরে আর্টিকেলে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। ডিজিটাল বাংলাদেশ হওয়ার অগ্রযাত্রা অনেকটাই এগিয়ে যাচ্ছে। যত দিন পার হচ্ছে আমাদের বাংলাদেশে ততই ডিজিটাল হচ্ছে। আজকের এই আর্টিকেলে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস সম্পর্কে আপনাদের জানাবো।

আপনি যদি শেষ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে থাকেন তাহলে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

কনটেন্ট সূচিপত্রঃ ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস - ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস - ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২ঃ ভূমিকা

বাংলাদেশে পালিত দিবস গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি দিবস হল ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস। প্রতিবছর একটি নির্দিষ্ট দিনে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস পালন করা হয়ে থাকে। আজকেরে আর্টিকেলে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২, ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস, ডিজিটাল বাংলাদেশ কত সালে ঘোষিত হয় এসকল বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। আশা করি আপনিও বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস - ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস এর পূর্ণ নাম হল আইসিটি দিবস অর্থাৎ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস। ২০১৭ সালের ২৭ বাংলাদেশ সরকার এই দিবসটি রাষ্ট্রীয়ভাবে পালনের ঘোষণা করেছিলেন। ২০১৮ সালে আইসিটি দিবস এর পরিবর্তে এই দিনটিকে ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

আরো পড়ুনঃ বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস কবে পালিত হয় - বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস ২০২২

প্রতিবছর ১২ ডিসেম্বর জাতীয় রাষ্ট্রীয়ভাবে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস পালন করে থাকে। ২০২১ সালে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে আইসিটি টাওয়ার এর ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস উপলক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সেখানে ২০২১ সালের ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয় জানানো হয় " ডিজিটাল বাংলাদেশের অর্জন, উপকৃত সকল জনগণ"।

ডিজিটাল বাংলাদেশ এর সুফল প্রায় প্রতিটি ঘরে ঘরে রয়েছে। আইসিটি খাতে প্রযুক্তিনির্ভর কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে আগের তুলনায় অনেক বেশি। অনলাইন শক্তিতে বাংলাদেশের অবস্থান দ্বিতীয়। যেখানে আউটসোর্সিং থেকে প্রতিবছর প্রায় ৭০০ মিলিয়ন ডলার আয় হচ্ছে। প্রতিবছর এর পরিমাণ আরও বাড়তে আছে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস প্রশ্ন

অনেক সময় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস কত তারিখে ধরনের প্রশ্ন আসে বিশেষ করে যারা আইসিটি নিয়ে পড়াশোনা করে অথবা যেসব শ্রেণির আইসিটি বিষয় রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে এই প্রশ্নটিই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিবছর ১২ ডিসেম্বর ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস পালন করা হয়। প্রথমেই দিবসটিকে পালন করা হতো আইসিটি দিবস অর্থাৎ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি দিবস ২৭ নভেম্বরে।

কিন্তু পরবর্তীতে এটি কে রাষ্ট্রীয়ভাবে ঘোষণা করে পরিবর্তন করা হয় এবং এর নাম রাখা হয় ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস যা প্রতিবছর ১২ ডিসেম্বর পালন করা হয়। প্রথমবার ২০১৮ সালে ১২ ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস পালন করা হয়।

ডিজিটাল বাংলাদেশ রুপকল্প

রুপকল্প ২০২১ ছিল ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হওয়ার আগে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের একটি নির্বাচনী ইশতেহার। এটি বাংলাদেশের বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী জন্য বাংলাদেশের একটি রাজনৈতিক রূপকল্প হয়ে উঠেছে। ভিশন ২০২১ হল ২০২১ সালে এই জাতির কোথায় থাকা দরকার তার একটি বিবৃতি যে বছরটি বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ তম বার্ষিকী চিহ্নিত করে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ বলতে কম্পিউটার এর ব্যাপক ব্যবহার কে বুঝায়। বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষ এখন ডিজিটাল বাংলাদেশ এর সুবিধা নিচ্ছে। কারণ এখন প্রতিটি কাজে ডিজিটাল পদ্ধতিতে করতে হচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ এর দর্শনের মধ্যে রয়েছে জনগণের গণতন্ত্র নিশ্চিত করা এবং মানবাধিকার জবাবদিহিতা ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা নাগরিক সেবা নিশ্চিত করা ডিজিটাল বাংলাদেশের চূড়ান্ত লক্ষ্য।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশের জাতীয় আয়কর দিবস কবে - আয়কর দিবস কেন পালিত হয়

ডিজিটাল বাংলাদেশ এর চারটি উপাদানের ওপর সরকার আরও জোর দিচ্ছে মানব সম্পদ উন্নয়ন জনগণের অংশগ্রহণ, সিভিল সার্ভিস এবং ব্যবসায় তথ্য প্রযুক্তির ক্ষেত্রে ব্যবহার করে। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করার জন্য অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য এটি।

ডিজিটাল বাংলাদেশ কত সালে ঘোষিত হয়

যত দিন পার হচ্ছে বিশ্ব আরো বেশি উন্নত হচ্ছে। বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশ ও ডিজিটাল হচ্ছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ কথাটি প্রথম শোনা যায় ২০০৮ সালে। ওই বছর ১২ ডিসেম্বর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহার তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রীও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উল্লেখ করেন, "২০২১ সালে স্বাধীনতার ৫০ বছরে বাংলাদেশে ডিজিটাল বাংলাদেশ পরিণত হবে"

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মূল লক্ষ্য ছিল একটি উন্নত দেশ, দেশের সমৃদ্ধি ডিজিটাল সমাজ, ডিজিটাল যুগের জনগোষ্ঠী রূপান্তরিত উৎপাদন ব্যবস্থা, নতুন জ্ঞানভিত্তিক অর্থনীতি একটি দেশ গঠন করা। ২০০৯ সালে ১২-১৭ ডিজিটাল বাংলাদেশ সামিট নামক বিষয়ে প্রথম শীর্ষ সম্মেলন আয়োজন করে। জাতীয় ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় এবং অগ্রধিকার বিষয়গুলো আলোচিত হয়।

ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রবর্তক কে?

প্রিয় বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলে আমরা ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস সম্পর্কে আলোচনা করছি। আমাদের একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হল ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রবর্তক কে? ২০০৮ সালে ১২ ডিসেম্বর তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী এবং বর্তমানের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষণা দেওয়ার সময় বলেন ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ রূপান্তরিত করা হবে।

আরো পড়ুনঃ বিশ্ব শিশু দিবস রচনা - বিশ্ব শিশু দিবস অনুচ্ছেদ

তাহলে এই আলোচনা থেকে বলা যায় যে ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রবর্তক হলো বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস - ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস ২০২২ঃ উপসংহার

ডিজিটাল বাংলাদেশ দিবস, ডিজিটাল বাংলাদেশ কত সালে ঘোষিত হয়? সহ আরো অনেকগুলো বিষয় আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি আজকের এই আর্টিকেল থেকে আপনি উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে জানতে পেরেছেন। আপনাকে বিষয়গুলো জানাতে পেরে আমরা সত্যিই অনেক আনন্দিত। আপনার এবং আপনার পরিবারের সুস্থতা কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করছি ধন্যবাদ।২০৮৭৬

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?