অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/10/putul.html

ঘরে পুতুল রাখা জায়েজ কি না বিস্তারিত তথ্য জেনে নিন

অনেকেই বাচ্চাদের খেলার জন্য বাসায় পুতুল রাখেন। এখন প্রশ্ন হলো ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? আপনি যদি এই ব্যাপারে বিস্তারিত তথ্য জানতে চান তাহলে আপনাকে আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে।

পেজ সূচিপত্রঃ ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বিস্তারিত তথ্য জেনে নিন

ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বিস্তারিত তথ্য জেনে নিনঃ ভূমিকা

ঘরে পুতুল রাখা যাবে কি না সে ব্যাপারে অনেক হাদীস রয়েছে। ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? সে ব্যাপারে নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। শিশুদের খেলার উদ্দেশ্যে তাদেরকে আমরা অনেক সময় পুতুল কিনে দেই। 

ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? এ ব্যাপারে যেহেতু আলেমদের মতপার্থক্য রয়েছে তাই এক কথায় এই প্রশ্নের জবাব দেয়া সম্ভব নয়। নিচে এই বিষয়টি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো। 

একদল আলেম মনে করেন যে পুতুল নিয়ে বাচ্চারা খেলতে পারবে এতে কোন ধরনের সমস্যা নেই। পক্ষান্তরে আর একজন আলেম মনে করেন যে পুতুল দিয়ে খেলা সম্পূর্ণ অবৈধ ও হারাম। উভয় দলের আলেমরাই কোরআন এবং হাদিস থেকে দলিল প্রদান করে থাকেন। চলুন তাহলে দেখে নেয়া যাক,  ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য। 

যেহেতু ইসলামে মূর্তি রাখা হারাম, তাই পুতুল ঘরে রাখা যাবে কি না সে ব্যাপারে আমাদের বিস্তারিত জানা উচিত। ইসলামের বিধান অনুযায়ী ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? সে সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো।

ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা?: হাদিস সমূহ

বাচ্চারা পুতুল নিয়ে খেলতে পারবে কিনা? সে ব্যাপারে আলেমদের মধ্যে মতপার্থক্য রয়েছে। কোন কোন আলেম বলেন যে, পুতুল দিয়ে খেলা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। কেননা যেহেতু ইসলামে হারাম তাই এ ধরনের চেহারা যুক্ত বা আকৃতি যুক্ত পুতুল দিয়ে খেলা বৈধ নয়।

পক্ষান্তরে আরেকদল আলেম বলেন যে, যেহেতু রাসুলুল্লাহ (সাঃ) আম্মাজান আয়েশা (রাঃ) কে পুতুল দিয়ে খেলার ব্যাপারে অনুমতি প্রদান করেছিলেন তাই পুতুল দিয়ে খেলতে কোন সমস্যা নেই।উভয়পক্ষের আলেমরাই হাদিসের বর্ণনা অনুযায়ী নিজেদের পক্ষে প্রমাণ দিয়ে থাকেন।
ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? সে ব্যাপারে যে সকল হাদিস এসেছে তা নিচে উল্লেখ করা হলোঃ

আয়েশা (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ আমি রাসুলুল্লাহ (সঃ) এর উপস্থিতিতে পুতুল দিয়ে খেলতাম। আমার বান্ধবিরাও আমার সাথে খেলত। যখন রাসুলুল্লাহ (সঃ) আসতেন তখন তারা লুকিয়ে যেত। কিন্তু নবী (সঃ) তাদেরকে ডাকতেন এবং খেলায় অংশগ্রহণ করতে বলতেন। সহিহ বুখারি, ৯ম খণ্ড, হাদিসঃ ৫৭০০ (ইসলামিক ফাউন্ডেশন)

আয়েশা(রাঃ) বলেনঃ আমি আল্লাহর রাসুলের উপস্থিতিতে পুতুল নিয়ে খেলা করতাম আমার বান্ধবীরাও আমার সাথে খেলত। যখন আল্লাহর রাসুল (আলাইহিছ ছালাম) বাড়ীতে প্রবেশ করতেন, তখন ওরা পুতুলগুলো লুকিয়ে নিত। কিন্তু তিনি (সঃ) তাদেরকে আমার সাথে একত্রে খেলতে বলতেন। (সহিহ বুখারি, হাদিস নং-৬১৩০ ; সহিহ মুসলিম, হাদিস নং-২৪৪০ )

আয়েশা (রাঃ) আরো বলেনঃ একবার রাসুলুল্লাহ (সঃ) আয়েশা(রাঃ)-র ঘরের পর্দা উন্মোচন করে খেলনা দেখে বললেন, এগুলো কী? তিনি বললেন, এগুলো আমার পুতুল। এগুলোর মধ্যে একটি পাখাওয়ালা ঘোড়া ছিল। সেটি দেখে তাকে তিনি(সঃ) বললেন-" এই খেলনাগুলোর মাঝে এটি কি?" আমি বললাম,"ঘোড়া", রাসুলুল্লাহ (সঃ) বললেন-"ঘোড়ার উপর কি?" আমি বললাম-"২ টি ডানা",অতঃপর আমি বললাম- "আপনি শুনেননি যে, সুলাইমান আলাইহিস সালামের একটি ঘোড়া ছিল যার ২ টি ডানা ছিল?এরপর রাসুলুল্লাহ (সঃ) হাসলেন এমনকি তার চোয়ালের দাঁত মুবারকও দেখা যাচ্ছিল।" আবু দাউদ, ৫ম খণ্ড, হাদিস নং-৪৮৫০(ইসলামিক ফাউন্ডেশন)

ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা?: পক্ষের দলিল

যে সকল আলেম মনে করেন যে, বাচ্চারা পুতুল নিয়ে খেলতে পারবে এতে কোন সমস্যা নেই। কেননা এ ব্যাপারে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের কোন নিষেধাজ্ঞা নেই। যেহেতু আম্মাজান আয়েশা (রাঃ) পুতুল নিয়ে খেলেছেন এবং তা খেলতে রাসূলুল্লাহর সালাত সালাম বাধা প্রদান করেননি, তাই পুতুল নিয়ে খেলা তে কোন সমস্যা নেই। 

ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? এই প্রশ্নের উত্তর হিসেবে যারা মনে করেন যে তাছাড়া পুতুল দিয়ে খেলতে পারবে তারা দলিল হিসেবে তারা উপরে উল্লেখিত হাদীস গুলো বর্ণনা করেন যেখানে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু সাল্লাম পুতুল খেলার ব্যাপারে কোনো নিষেধাজ্ঞা প্রদান করেননি। 
পক্ষান্তরে যে সকল আলেমগণ মনে করেন যে পুতুল দিয়ে খারাপ কোনভাবেই বৈধ নয়, তারা উপরের হাদীসগুলোকে বিভিন্নভাবে ব্যাখ্যা বিশ্লেষণ করার মাধ্যমে তাদের সাপেক্ষে দলিল প্রদান করে থাকেন।তাছাড়া মূর্তি নিষিদ্ধ হওয়ার ব্যাপারে যে সকল হাদিস রয়েছে সেগুলোকে তারা দলিল হিসেবে গ্রহণ করেন।

তারা মনে করেন যে, মূর্তি এবং পুতুলের জিনিস আর এ কারণে তারা পুতুল দিয়ে খেলা করাকে নিষিদ্ধ বিবেচনা করেন। ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? এ প্রশ্নের উত্তরে যারা বলেন যে কখনোই যাবে না তাদের দলিল নিচে উল্লেখ করা হলো। 

ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা?: বিপক্ষের দলিল

যেসকল আলেমগণ মনে করেন যে প্রথম দিয়ে খেলাম বৈধ নয় তারাও এ ব্যাপারে একমত যে পুতুলের যদি মাথা না থাকে বা কোন আকৃতি না থাকে তাহলে সেই ধরনের পুতুল দিয়ে খেলাতে কোন সমস্যা নেই। কেননা মাথা বা আকৃতি হল মূল বিষয়। যদি কোন পুতুলের মাথা না থাকে বাড়িতে না থাকে তাহলে সেটি কোন প্রাণীর সদৃশ হবে না। তাই এ ধরনের পুতুল দিয়ে খেলতে কোনো বাধা নেই।

কিন্তু মাথাযুক্ত বা আকৃতি যুক্ত পুতুল খেলা তাদের মতে বৈধ নয়। দলিল হিসেবে নিম্নোক্ত হাদীসটি তারা পেশ করেনঃ ইমাম বুখারী (রহ.) থেকে বর্ণিত একটি হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, যারা জীবন্ত কোনো কিছুর ছবি তৈরি করে, কেয়ামতের দিন তাদের জন্য রয়েছে সবচেয়ে কঠিন শাস্তি। (বুখারি)

পূর্বে বর্ণিত হাদীসগুলো যেখানে দেখা যাচ্ছে যে রাসূলুল্লাহ (সাঃ) আম্মাজান আয়েশা (রাঃ)কে পুতুল দিয়ে খেলতে বাধা প্রদান করেননি সে হাদীসগুলোর ব্যাপারে এই অংশের আলেমগণ বলেন যে, আয়েশা রাদিয়াল্লাহু তা'আলা আনহা যেসকল দিয়েছিল কাপড়ের তৈরি এবং সেগুলোর আকৃতি ছিল না। 
এ ব্যাপারে সহীহ বুখারীর ভাষ্যকার প্রখ্যাত হাদিস ব্যাখ্যাকার ইমাম ইবনে হাজার আসকালানী তার ব্যাখ্যাগ্রন্থ ফাতহুল বারীতে উপরোল্লিখিত আদেশগুলোর ব্যাপারে বলেনঃ যদি আয়েশা (রা.) এমন পুতুল দিয়ে খেলতেন যাতে স্পষ্ট মানবাকৃতি ছিলো, তাহলে তা ছবি তৈরির ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার হাদিস আসার পূর্বে।

আর যদি তিনি এই হাদিস আসার পরে পুতুল দিয়ে খেলতেন, তবে সে পুতুল ছিল নিতান্তই সাধারণ যেখানে মানুষের কোন আকৃতি ছিলো না। 

ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ?: উপসংহার 

উপরে ঘরে পুতুল রাখা কি জায়েজ? বা ঘরে বাচ্চাদের খেলার পুতুল রাখা যাবে কিনা? সে ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে এবং পুতুল দিয়ে খেলা সম্পর্কিত হাদিস গুলো তুলে ধরা হয়েছে। যারা মনে করেন যে পুতুল দিয়ে খেলা বৈধ, তাদের পক্ষের দলিলগুলো উপরে তুলে ধরা হয়েছে।

পক্ষান্তরে যারা মনে করেন যে পুতুল দিয়ে খেলা কোনোভাবেই বৈধ নয়, তাদের দলিল গুলো তুলে ধরা হয়েছে। উপরে উল্লেখিত হাদীস এবং আলেমদের ব্যাখ্যা গুলো যাচাই-বাছাই করার মাধ্যমে আপনার কাছে যেটি সঠিক বলে মনে হবে আপনি সেটি গ্রহণ করবেন। ১৬৪১৩

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?