অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2021/09/baby-sick.html

শিশুর জ্বর হলে করণীয় - শিশুর জ্বর কমানোর ২০ উপায়

সদ্য বাবা-মা হওয়া মানুষ খুব কমই জানি শিশুর জ্বর হলে করণীয় কি কি থাকে? অথবা শিশুর জ্বর কমানোর উপায় বা নবজাতক শিশুর জ্বর হলে করণীয় কর্তব্য সমূহ অনেকবারই আজকাল জানা থাকে না যার ফলে নবজাতকের জীবন অনেকটা ঝুঁকির মধ্যে পড়ে যায়। এমন অনেক আছে গরমে শিশুর জ্বর হলে করণীয় কি সেটা না জানার ফলে শিশুর প্রাণ অকালে ঝরে গেছে।


তাই আপনার ছোট শিশুর কথা ভেবে শিশুর সর্দি জ্বর হলে করণীয় কর্তব্য শিশুর জ্বরের এন্টিবায়োটিক কি হতে পারে সে সম্পর্কে আপনাদের জানানোর জন্যই আজকের আমাদের পোস্ট। এছাড়া শিশুর জ্বর ১০২ হলে করনীয় কাজ বা কিভাবে আপনি আপনার শিশুর জ্বরের পরিচর্যা করবেন তার সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে আমাদের লেখনী পড়তে থাকুন।

শিশুর জ্বরের এন্টিবায়োটিক | গরমে শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর সর্দি জ্বর হলে করণীয় | ৫ মাসের শিশুর জ্বর হলে করণীয়

শিশু এবং বাচ্চাদের জন্য একটি স্বাভাবিক তাপমাত্রা হলো প্রায় ৩৬.৪°C. কিন্তু এটি শিশু থেকে শিশুর মধ্যে সামান্য কিছু পরিবর্তিত হতে পারে। একটি উচ্চ তাপমাত্রার লেভেল হলো প্রায় ৩৮°C বা তার বেশি। একটি উচ্চ তাপমাত্রা্য আক্রান্ত শিশুর জন্য লক্ষণ গায়ের তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়া এর সাথে আরো হল কাশি এবং সর্দির মতো সংক্রমণ যার বিরুদ্ধে শরীরের স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া দেখা যায়।

অনেক কিছুর কারণে শিশুদের উচ্চ তাপমাত্রা হতে পারে। শুধু যে জ্বর হলেই তাপমাত্রা বাড়বে এমনটা নয়। শিশুদের বা বাচ্চাদের ছোটবেলার সাধারণ অসুস্থতা থেকে শুরু করে চিকেনপক্স এবং টনসিলাইটিস, টিকা দেওয়া হলে তাপমাত্রা বাড়তে পারে। তাই আগেই উদ্বিগ্ন না হয়ে শিওর হন আপনার শিশুর সমস্যা টা কোথায়? এরপর সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করুন। প্রয়োজনে নিম্নোক্ত ব্যবস্থার মাধ্যমে তাপমাত্রা পরিমাপ করতে পারেনঃ

আপনার শিশু সন্তানকে পর্যবেক্ষণ করে যদি নিম্নোক্ত অবস্থা বোধ করেন তবে হয়তো জ্বরে আক্রান্ত বলে ধরে নেওয়া যায়ঃ
  • যখন আপনি তাদের পিঠ বা বুকে স্পর্শ করেন তখন স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি গরম বোধ করেন।
  • ঘাম দিয়ে দিয়ে শরীর দুর্বল লাগছে।
  • চেহারা বা শরীরের মধ্যে অসুস্থতা বোধ করছে। অথবা অস্বস্তি বোধ করছে।
  • হাতে পায়ে জ্বালাপোড়া সহ ঠান্ডায় শরীরে কাঁপুনি।

আপনার সন্তানের তাপমাত্রা নিতে একটি থার্মোমিটারব্যবহার করুন, এটি আপনি ফার্মেসী এবং সুপার মার্কেট থেকে কিনতে পারেন।

শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর জ্বরের এন্টিবায়োটিক | গরমে শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর সর্দি জ্বর হলে করণীয় | ৬ মাসের শিশুর জ্বর হলে করণীয়

আপনি যদি একজন বাবা - মা হন, এটি এমন একটি দৃশ্য যা খুব পরিচিত। আপনি আপনার অসুস্থ সন্তানের কপালে হাত রাখেন এবং এটি গরম অনুভব করে। তারপর থার্মোমিটার আপনার সন্দেহ নিশ্চিত করে: তারা জ্বর পেয়েছে। কিন্তু যদি আপনি কিছু সহজ নিয়ম মেনে চলেন তবে আপনি সেগুলিকে আরও আরামদায়ক করে তুলবেন এবং সেগুলিকে নিরাপদ রাখবেন।

জ্বর সংক্রমণের বিরুদ্ধে এক প্রকার প্রতিরক্ষা। এটি আপনার শিশুর শরীর জীবাণু মারার জন্য তার তাপমাত্রা বাড়িয়ে দিচ্ছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, এটি নিরীহ এবং ০৩ থেকে সর্বোচ্চ ০৭ দিনের মধ্যে নিজেই চলে যায়। এসিটামিনোফেন জাতীয় ঔষধ বা প্যারাসিটামল ধরনের ঔষধ আপনার সন্তানের শরীরের তাপমাত্রা কমিয়ে দিতে পারে। যদি তাদের বয়স ০২ এর বেশি হয়, ডোজটি লেবেলে তালিকাভুক্ত করা হবে। যদি তারা ছোট হয় বা আপনার ৫ মাসের শিশুর জ্বর হলে করণীয় হয়, তাহলে আপনার ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করুন যে তাদের কতটা দিতে হবে।

আরেকটি বিকল্প হল ৫ মাসের শিশুর জ্বর হলে করণীয় আইবুপ্রোফেনপ্রয়োগ করা। এটি জ্বরের জন্য খুব ভালো প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করে। তবে ভুলে যাবেন না যে প্রচুর তরল পান করলে শরীরের তাপমাত্রা অনেকাংশে কমে আসে। তাই যতটা সম্ভব আপনার সন্তানকে তরল জাতীয় খাবার পান করান বা খাওয়ান।

তাদের ভাল বোধ করার জন্য আপনি অনেক কিছু করতে পারেন। তাদের মাথায় একটি শীতল বা ভিজানো কাপড় রাখুন এবং তাদের ঘরটি মাঝারি তাপমাত্রায় রাখুন ( খুব বেশি গরম নয় এবং খুব বেশি ঠান্ডা নয়)। তাদের হালকা পোশাকের বা এক স্তরের সূতি কাপড় পরি্যে দিন। যদি শীত ভাব থাকে তবে একটি হালকা কম্বল বা কাথা দিন। আপনি একটি হালকা স্পঞ্জ বা গামছা দিয়ে সারা শরীর মুছিয়ে দিয়ে তাদের ঠান্ডা করতে পারেন। আপনার সন্তান স্বস্তি বোধ করবে।

নবজাতক শিশুর জ্বর হলে করণীয় | গরমে শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর সর্দি জ্বর হলে করণীয় | ৬ মাসের শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর জ্বর হলে করণীয়

একটি উচ্চ তাপমাত্রা আপনার শিশুর জন্য উদ্বেগজনক হতে পারে, কিন্তু অন্যথায় সুস্থ শিশুর ক্ষেত্রে এটি সাধারণত গুরুতর কিছু নয়। জ্বর বলতে প্রায়শই বোঝায় যে একটি শরীর যেভাবে কাজ করতে পারে সেভাবে কাজ করছে এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। তবে জটিল শিশুর অবস্থা একটু বেশি খারাপ মনে হয় ভাতার জ্বরের মাত্রা যদি বেশি হয় তবে অবশ্যই আপনাকে ডাক্তার দেখাতে হবে। তবে কোনো অবস্থা হলে ডাক্তারের কাছে যাওয়া জরুরী তা হলঃ
  • আপনি যদি মনে করেন শিশুর তাপমাত্রা অত্যধিক তবে তার চিকিৎসা প্রয়োজন।

  • শিশুটি ৫ মাসের কম বয়সী যার থার্মোমিটার তাপমাত্রা ১০০.৪° F বা তার বেশি।

  • শিশুটির বয়স ৫ মাস থেকে ২ বছর এবং তার ১০২° F বা তার বেশি জ্বর আছে বা এক দিনের বেশি সময় ধরে জ্বর আছে।

  • শিশুর একটি উচ্চ তাপমাত্রার জ্বর ২৪ ঘন্টা বেশী স্থায়ী হয়।

  • শিশুর বয়স ৫ মাসের কম কিন্তু শরীরের তাপমাত্রা ১০৪° F বা তার বেশি এবং জ্বর বারবার আসছে যাচ্ছে এরকম অবস্থা হলে।

  • শিশুর মাথার খুলির নরম দাগ ফুলে উঠেছে বা রফ ফুলে উঠেছে দেখলে।

  • শিশু বারবার বমি কর্লে বা গুরুতর ডায়রিয়া হয়ে গেলে।

  • শিশুর পানিশূন্যতার লক্ষণ রয়েছে, যেমন ডায়াপার না ভিজা, ছাড়া ছাড়া কান্না, শুকনো মুখ বা নাকে শ্লেষ্মা ঝিল্লি, অথবা চোখ ডুবে যাওয়া নরম দাগ স্পষ্ট ভাবে ভেসে উঠলে।

  • জ্বর খিঁচুনি সৃষ্টি করলে বা শিশু খুব অলস হয়ে গেলে বা খিটখিটে মেজাজ দেখা যায় তাহলে ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

  • শিশুর জ্বর এবং সাথে পুরো শরীরে ফুসকুড়ি রয়েছে।

  • আপনার শিশু গুরুতর সংক্রমণের জন্য বিশেষ ঝুঁকিতে রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রক্ত বা ইমিউন ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত শিশু, অথবা যে কোনো শিশু যারা নিয়মিত টিকা গ্রহণ করেনি।

এরকম শিশুর অবস্থা যদি হয়ে থাকে তবে আপনার দেরি না করে বা প্রাথমিক চিকিৎসা গ্রহণ করার পূর্বেই কালক্ষেপণ না করে ডাক্তারের কাছে আপনার শিশুকে নিয়ে যাওয়া উচিত। তাপমাত্রা নেওয়ার সবচেয়ে সঠিক উপায় হল রেকটালি বা মলদ্বারের মাধ্যমে। আপনি যদি এটি নিয়ে অস্বস্তিকর হন তবে বগলের নীচে বা মুখের তাপমাত্রা নিন। যদি এটি ৯৯°F এর বেশি হয়, তাহলে সবচেয়ে সঠিক মান পাওয়ার জন্য একটি রেকটাল থার্মোমিটার ব্যবহার করে এটি পুনরায় পরীক্ষা করুন।

শিশুর জ্বরের এন্টিবায়োটিক | ৮ মাসের শিশুর জ্বর হলে করণীয় | ৯ মাসের শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর জ্বর হলে করণীয়

যদি শিশুর তাপমাত্রা ১০০.৪°F এর বেশি হয়, আপনার শিশু বিশেষজ্ঞকে কল করুন। এই বয়সের একটি শিশু সবসময় অসুস্থ হলে তাদের শিশু বিশেষজ্ঞ দ্বারা দেখা উচিত। শিশুকে হালকা গরম জলে স্নান বা স্পঞ্জ করলে জ্বর কমতে পারে। ঠান্ডা জল, বরফ পানিতে গোসল বা অ্যালকোহল ব্যবহার করবেন না। ডাক্তারের সাথে প্রথমে আলোচনা না করা পর্যন্ত কোন ওষুধ দেবেন না। কেননা তাপমাত্রা বেশি হলে এবং সে অবস্থায়ই প্যারাসিটামল জাতীয় ওষুধ খাওয়ানো হলে শিশুর শরীরের তাপমাত্রা কমার বদলে মৃত্যু ঝুঁকি বেড়ে যায়।

এরূপ অবস্থায় সর্ব প্রথমে আপনাকে আপনার শিশুর জ্বর কমানোর ব্যবস্থা বা শরীরের তাপমাত্রা কমিয়ে ফেলার ব্যবস্থা করতে হবে। এটার জন্য আপনি সবচেয়ে বেশি কার্যকরী উপায় হিসেবে শরীর বারবার ঠান্ডা পানি দিয়ে মোছানো বা মাথায় পানি ঢালার মতো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন।

শিশুর জ্বরের এন্টিবায়োটিক | শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর জ্বর কমানোর উপায় | নবজাতক শিশুর জ্বর হলে করণীয় | ১ বছরের শিশুর জ্বর হলে করণীয়

আপনার সন্তানকে কখনো অ্যাসপিরিন দেবেন না। এটি রিয়েস সিনড্রোম নামে একটি গুরুতর অবস্থার সৃষ্টি করতে পারে। ছোট বাচ্চাদের ঠান্ডা এবং ফ্লু - এর প্রতিকার এড়িয়ে চলুন। এগুলি ২ থেকে ৪ বছরের কম বয়সী শিশুদের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়। আপনি যদি ঠাণ্ডার ওষুধ ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেন, তাহলে আপনার শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের সাথে যোগাযোগ করে নিশ্চিত করুন যে আপনার সন্তানের বয়স, আপনি যে ধরনের ঔষধের জন্য বিবেচনা করছেন সে তার জন্য যথেষ্ট বয়স্ক। 

এফডিএ অনুসারে, ২ বছরের কম বয়সী কোন শিশুকে কোন ধরনের কাশি বা ঠান্ডা পণ্য দেওয়া উচিত নয় যাতে ডিকনজেস্ট্যান্ট বা অ্যান্টিহিস্টামিন থাকে এবং ২ বছরের বেশি বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রেও সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। কয়েক মাস থেকে কয়েক বছর বয়সে এমন একটি ঔষধ দেওয়া উচিত যা কাশি এবং ঠান্ডার ওষুধের সমন্বয় করে। সম্ভাব্য পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া মারাত্মক এবং এমনকি জীবন এর জন্যও হুমকি হতে পারে এখন কোন ঔষধ ব্যবহার করা উচিত নয়।

যদি ডাক্তার বলে যে কাশি বা ঠান্ডার ওষুধ ব্যবহার করা ঠিক আছে, তাহলে কেনার আগে লেবেলটি পড়ে নিন এবং আপনার সন্তানের লক্ষণগুলির সাথে সবচেয়ে বেশি মিলে যায় এমনটি বেছে নিন। আপনার শিশু বিশেষজ্ঞের ঠিক না করে বিভিন্ন ঔষধের মধ্যে সন্তানের নিয়ম বা শরীরকে রেজিস্টেন্স করবেন না। 


বরফ ঠান্ডা পানি কখনোই গোসলের জন্য ব্যবহার করবেন না বা অ্যালকোহল দিয়ে আপনার সন্তানের ত্বক ঘষবেন না এতে আসলে জ্বর বাড়িয়ে দিতে পারে । এমনকি যদি আপনার সন্তানের ঠাণ্ডা লেগে থাকে, তবে তাদের মোটা কম্বল বা কাপড় দিয়ে মুড়িয়ে রাখবেন না। এতে করে শরীরের ঘাম বসে ঠান্ডা লেগে যাওয়ার সম্ভাবনা আরও বেশি থাকে।

শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর জ্বর কমানোর উপায় | শিশুর জ্বর ১০২ হলে করণীয় | ২ বছরের শিশুর জ্বর হলে করণীয়

বাবা-মার কাছে সন্তান সবচেয়ে বেশি আদরের এবং আকাঙ্ক্ষিত একটি জিনিস। কিন্তু সদ্য হওয়া বাবা মার জন্য নবজাতকের সঠিক দেখাশোনা করার জ্ঞানের অভাবের কারণে নবজাতকের জীবন হুমকির মুখে পড়তে পারে। এবং সামান্য জ্বর থেকে জীবন নাশের আশঙ্কা থাকে যদি তার সঠিক পরিচর্যা বা সেবা দেওয়া হয়। চলুন জেনে নেই শিশুর জ্বর হলে করণীয় এবং বর্জনীয় কিছু কাজ সমূহ-

শিশুর জ্বর হলে করণীয় - শিশুর জ্বর কমানোর উপায়ঃ

  • তাদের প্রচুর তরল জাতীয় খাবার খেতে দিন। তরল খাবার খেলে তার শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।

  • পানিশূন্যতার লক্ষণগুলি দেখুন। যদি তার ডায়রিয়া হয়ে থাকে তবে অবশ্যই তাকে স্যালাইন অথবা দুধের শিশু হলে ঘন ঘন বুকের দুধ বা নর্মাল দুধ খাওয়ানোর ব্যবস্থা করুন। এছাড়াও অন্এযান্তেয তরল যেমন পানি, জুস বা পপসিকল ইত্যাদি দিন। করে আপনার শিশু ডিহাইড্রেশন ভুগবে না।

  • তারা চাইলে খাবার খেতে দিন। এমনও অনেক সন্তান আছে শিশু আছে যারা জ্বর আসলে ঘন ঘন খাবার খেতে চায়। আপনার সন্তান যদি এরকম হয়ে থাকে তবে তা অবশ্যই পর্যাপ্ত পুষ্টিকর খাবার খেতে দিন।

  • রাতে আপনার শিশুর নিয়মিত জ্বর পরীক্ষা করুন। পরীক্ষা করে দেখা গেছে যে শিশুদের জ্বর রাতের দিকে বেশিরভাগ বেড়ে যায় এবং দিনের ভাগে পরিবেশগত কারণে স্বাভাবিক থাকে। তাই অবশ্যই রাতের বেলায় আপনার শিশুর জ্বর পরিমাপ করে দেখুন।

  • তাদের বাড়িতে রাখুন। আপনার সন্তান যদি জ্বরে আক্রান্ত হয় তবে অবশ্যই থাকে আপনার নিজের কাছে রাখার চেষ্টা করুন। যাতে পর্যাপ্ত পরিচর্যা এবং যত্ন পেয়ে থাকে।
  • শিশু অসুস্থ হলে তাদের প্যারাসিটামল দিন। তবে যদিও অন্য অন্যান্য লক্ষণ থেকে থাকে তবে অবশ্যই তাকে যে কোন ওষুধ খাওয়ানোর পূর্বে একজন ভালো শিশু বিশেষজ্ঞ ডাক্তার দেখিয়ে নিন।

  • আপনি যদি আপনার সন্তানের ব্যাপারে উদ্বিগ্ন থাকেন তাহলে অবশ্যই দেরি না করে চিকিৎসা পরামর্শ নিন।

  • আপনার শিশুকে হালকা পোশাক পরান। অতিরিক্ত পোশাক শরীরের তাপ আটকে দেবে এবং তাপমাত্রা বাড়বে।

  • আপনার শিশুকে হালকা গরম বা উষ্ণ পানিতে গোসল করান। আপনার শিশুকে ঠান্ডা পানি থেকে দূরে দেবেন না।

শিশুর জ্বর হলে বর্জনীয় কাজ - শিশুর জ্বর কমানোর উপায়ঃ

  • আপনার শিশুকে কাপড় খুলে একদম আলগা করা বা স্পঞ্জ ঘন ঘন করে ঠান্ডা করবেন না। উচ্চ তাপমাত্রা সংক্রমণের জন্য একটি প্রাকৃতিক এবং স্বাস্থ্যকর প্রতিক্রিয়া।

  • তাদের অনেক কাপড় দিয়ে বা বিছানার কাপড়ে বা কম্বলে একদম ঢেকে রাখবেন না।

  • ১৬ বছরের কম বয়সী শিশুদের অ্যাসপিরিন দেবেন না। আর ছোট শিশু হলে তো কখনোই নয়।

  • আইবিউপ্রোফেন এবং প্যারাসিটামল জাতীয় ঔষুধ দেবেন না, যদি না একজন রেজিস্ট্রার্ড ডাক্তার আপনাকে প্রেসক্রাইব করেন।

  • ০২ মাসের কম বয়সী শিশুকে প্যারাসিটামল দেবেন না।

  • ০৩ মাসের কম বয়সী বা ০৫ কেজির কম বয়সী শিশুকে আইবুপ্রোফেন জাতীয় ঔষুধ দেবেন না।

  • হাঁপানি আক্রান্ত শিশুদের আইবুপ্রোফেন কখনোই দেবেন না।

শিশুর জ্বরের এন্টিবায়োটিক | নবজাতক শিশুর জ্বর হলে করণীয় | গরমে শিশুর জ্বর হলে করণীয় | ২ বছরের শিশুর জ্বর হলে করণীয় | স্বাভাবিক জ্বরের লক্ষণ সমূহ 

একটি স্বাভাবিক শরীরের তাপমাত্রা প্রায় ৯৮.৬° F। ১০০.৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট বা তার বেশি তাপমাত্রা একটি শিশুর জ্বর হিসাবে বিবেচিত হয়। এই লক্ষণগুলি যদি আপনার সন্তানের মধ্যে থাকে তবে আপনার সন্তানের জ্বর হতে পারেঃ
  • স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি গরম লাগছে
  • ঘাম
  • কাঁপুনি
  • ক্ষুধামান্দ্য
  • শরীরের সাধারণ ব্যথা
  • অস্থিরতা বা বিরক্তি
যদি আপনার সন্দেহ হয় যে আপনার সন্তানের জ্বর আছে, তার তাপমাত্রা নিতে একটি থার্মোমিটার ব্যবহার করুন। থার্মোমিটার বেছে নেওয়ার সময় বা থার্মোমিটার ব্যবহার করে আপনার সন্তানের জ্বর মাপছেন সেটি তে আগে আপনার স্বাচ্ছন্দ্যের স্তর বিবেচনা করুন। ডাক্তারের চেম্বারে যেয়ে দরকারে আপনার ব্যবহার করা থার্মোমিটারের ধরন, শরীরের অংশ যেখান থেকে তাপমাত্রা নেওয়া হয়েছিল এবং সঠিক রিডিং উল্লেখ করতে ভুলবেন না।


আমেরিকান একাডেমি অফ পেডিয়াট্রিক্স পিতামাতাকে পরামর্শ দেয় যে, দুর্ঘটনাজনিত বিষক্রিয়া রোধ করতে পারদ থার্মোমিটার ব্যবহার বন্ধ করুন। একটি গ্লাস/পারদ থার্মোমিটার ফেলে দেওয়া এবং ভাঙা সহজ এবং শিশুদের উন্মুক্ত পারদ স্পর্শ করার জন্য প্রলুব্ধ করে। তাই এই ধরনের থার্মোমিটার ব্যবহার করা থেকে দূরে থাকুন এবং যদি সম্ভব হয় তবে ডিজিটাল থার্মোমিটার ব্যবহার করুন।

শিশুর জ্বর হলে করণীয় | শিশুর জ্বর কমানোর উপায় | নবজাতক শিশুর জ্বর হলে করণীয় | গরমে শিশুর জ্বর হলে করণীয় | ২ বছরের শিশুর জ্বর হলে করণীয়

আমেরিকান একাডেমি অফ পেডিয়াট্রিক্স (এএপি) আপনাকে একটি ডিজিটাল থার্মোমিটার ব্যবহার করার পরামর্শ দেয়। তিন বছর বা তার কম বয়সী শিশুদের জন্য তাপমাত্রা সঠিকভাবে গ্রহণ করা ভাল। ১০০.৪ ডিগ্রির বেশি রেকটাল তাপমাত্রা জ্বর বলে বিবেচিত হয়। যখন মৌখিকভাবে নেওয়া হয়, ৯৯.৫ ডিগ্রির বেশি তাপমাত্রা জ্বর হিসাবে নির্ণয় করা হয়।

সাধারণত, যদি আপনার সন্তান স্বাভাবিক আচরণ করে, তাহলে জ্বর-হ্রাসকারী কোনো চিকিৎসার প্রয়োজন নেই। আপনাকে আপনার স্বাস্থ্যসেবা প্রদানকারীর সাথে চেক করার পরামর্শ দিচ্ছে যদিঃ

বয়স ৩ মাস বা তার চেয়ে কমঃ 
১০০.৪ ডিগ্রী বা তার বেশি রেকটাল তাপমাত্রা - অবিলম্বে দেখা উচিত। আপনার শিশুর প্রাথমিক যত্ন নেওয়ার ব্যাপারে সতর্ক হন অথবা দরকারে নিকটস্থ জরুরি বিভাগে যান।

২ বছরের কম বয়সীঃ 
জ্বর ২৪ ঘন্টার বেশি থাকে।

বয়স ২ এবং তার বেশিঃ 
জ্বর ৭২ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে থাকে।

যে কোনো বয়সঃ 
জ্বর বারবার ১০৪ ডিগ্রির উপরে চলে যায় বা অন্যান্য উপসর্গ তখন সাথে থাকে। যেমন- খিঁচুনি, গলা তীব্র গলা, তীব্র পেটে বা কানে ব্যথা, তীব্র মাথাব্যথা, অব্যক্ত ফুসকুড়ি, বারবার বমি বা ডায়রিয়া, ঘাড় শক্ত হওয়া, অস্বাভাবিক ঘুম বা খুব উগ্র আচরণ, নীল ঠোঁট, জিহ্বা বা নখ।

শিশুর যত্নের অবহেলার কারণে শিশু মারাত্নক জীবন ঝুকিতে পড়তে পারে। এছাড়া শিশুর যত্নের প্রতি যথেস্ট সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। তাহলে শিশু সুস্থ এবং স্বাভাবিক জীবন পাবে আর সাথে পাবে এক সুন্দর জীবন।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?