অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/09/mohaloya.html

মহালয়া ২০২২ তারিখ - মহালয়ার দিন কি করা উচিত

প্রিয় পাঠক আজকের এই পোস্টে আমরা মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি এবং মহালয়া সময় এই বিষয় নিয়ে আলোচনা করব। আর কিছুদিন পর শুরু হতে চলেছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। সনাতন ধর্মাবলম্বীরা সারাবছর এই দিনটির জন্য অপেক্ষা করে থাকে। শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হয় মহালয়ার মধ্য দিয়ে। আজকে আমরা মহালয়ার দিন কি করা উচিত এ বিষয়ে জানাবো।

আপনি যদি মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি? তা জানতে চান তাহলে সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে চলুন দেরি না করে মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি? তা জেনে নেই।

পেজ সূচিপত্রঃ মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি

মহালয়ার অর্থ কি?

আপনারা যারা আমাদের এই পোস্টটি পড়ছেন তারা নিশ্চয়ই মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি এ সম্পর্কে জানার জন্য গুগলের সার্চ করে আমাদের এই পোস্টে ওপেন করেছেন। আজকের এই পোস্টে আমরা মহালায়া নিয়ে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করব। মহালয়ার দিন কি করা উচিত এটি জানার আগে আপনাকে অবশ্যই আগে জানতে হবে মহালয়ার অর্থ কি?

আরো পড়ুনঃ শারদীয় দূর্গা পূজার ইতিহাস

হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা আর কিছুদিন পর শুরু হতে চলেছে। আপনারা যারা হিন্দু সম্প্রদায়ের লোক রয়েছেন তারা মহালয়ার মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গাপূজা কার্যক্রম শুরু হয়। পিতৃ পক্ষের শেষ সময় এবং মাতৃপক্ষের সূচনা কালের সময়কে মহালয়া বলা হয়। মহালয় শব্দটি উৎপত্তি হয়েছে মহালয় থেকে। এর অর্থ হলো পরমাত্মা। প্রাচীনকালে আমাদের এই পৃথিবী এক বিরাট সমুদ্রে পরিণত হলে শ্রী বিষ্ণু এই সমুদ্রের উপর অনন্তনাগকে শয্যা করে যোগ নিদ্রায় চলে যান। মহালয়া হল শারদীয় দুর্গাপূজা পূর্ব অমাবস্যা।

এই সময় বিষ্ণুর কর্ণমল থেকে মধু কৈটভ নামে দুটি দৈত্য বের হয়ে বিষ্ণুর নাভি পদ্মে স্থিত ব্রহ্মকে বধ করতে উদ্যত হল। ব্রহ্মা বিষ্ণু কে জাগরিত করার জন্য তার নয়নাশ্রিতা যোগনিদ্রাকে স্তব করতে লাগলেন। দেবী সৃষ্টি হয় শ্রীবিষ্ণু কে জাগরিত করলে তিনি ৫ হাজার বছর ধরে মধু ও কৈটভ এর সাথে মহাযুদ্ধে লিপ্ত হয়েছিলেন। তাই বলা হয় পিতৃপক্ষ আর দেবীপক্ষের সন্ধক্ষিণ হচ্ছে মহালায়া।

মহালয়ার দিন কি করা উচিত

আজকে আমাদের এই পোষ্টের মূল আলোচনার বিষয় হল মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি? আমরা সকলেই জানি যে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব হলো শারদীয় দুর্গাপূজা। দুর্গাপূজার সূচনা হয় মহালয়ার মধ্য দিয়ে। দূর্গা পূজার প্রতিটি দিন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা পবিত্র মনে করে থাকেন। ঠিক তেমনি মহালায়া ও একটি পবিত্র দিন। এই দিনে অনেকগুলো কাজ করা যাবে না আবার কিছু কাজ রয়েছে যা করতে হয় পুণ্য লাভের জন্য। তাহলে চলুন আজকে মহালয়ার দিন কি করা উচিত এবং কোন কাজগুলো করা যাবে না সে সম্পর্কে জানব।

মহালয়ার দিন যে কাজগুলো করা উচিতঃ

  • মহালয়ার দিন খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে স্নান করতে হবে।
  • স্নান করার পর ধুতি পরতে হবে তারপর পূর্বপুরুষদের জন্য তর্পণ করতে হবে। জেনে থাকা ভালো যে খালি পেটে তর্পণ করা উত্তম।
  • অনেকেই আছে যারা তর্পণ করতে পারে না তারা একটি কাজ করতে পারেন সেটি হল পূর্বপুরুষদের ছবিতে মালা দিতে পারেন এবং ছবির সামনে প্রিয় খাবার রেখে দিবেন।
  • মহালয়ার দিন বেশি বেশি দান করুন। গরীব দেখে মানুষ দের খাবার খাওয়াতে পারেন অথবা পোশাক দান করতে পারেন।
  • বিভিন্ন ধরনের পশু প্রাণী কে খাবার খাওয়াতে পারেন যেমন কুকুর, বিড়াল, কাক, গরু ইত্যাদি।
  • মহালয়ার দিন বেশি বেশি রামায়ণ, মহাভারত অথবা গীতা পাঠ করতে হবে। এবং অবশ্যই এই দিনে বেশি বিষ্ণুর নাম জপ করতে হবে।

মহালয়ার দিন যে কাজগুলো করা উচিত নয়ঃ

  • মহালয়ার দিন বিয়ে করা, ব্যবসা শুরু করা, বাড়ি-গাড়ি কেনাকাটা করা উচিত নয়। অবশ্যই মনে রাখবেন মহালয়ার দিন কোন শুভ কাজ করবেন না।
  • মহালয়া একটি পবিত্র দিন তাই এই দিনে ধূমপান মদ্যপান করবেন না।
  • পূর্বপুরুষদের ছবির সামনে পছন্দের খাবার দেবেন কিন্তু আমিষ খাবার কখনো রাখবেননা।
  • যে ব্যক্তি পূর্বপুরুষদের তর্পণ করবেন সে ব্যাক্তি চুল দাড়ি কাটবেন না।
  • খাবারের মধ্যে মহালয়ার দিন আমিষ খাবার খাওয়া শোভনীয় নয়।
  • এই দিনে কেউ যদি কখনো দান চাইতে আসে তাহলে তাকে কখনো খালি হাতে ফিরিয়ে দেবেন না।

মহালয়া ২০২২ তারিখ

ভাদ্র মাসের কৃষ্ণ প্রতিপদ শুরু হয় পরবর্তী অমাবস্যা পর্যন্ত সময়কে পিতৃপক্ষ বলে। ব্রহ্মার নির্দেশে পিতৃপুরুষরা এই ১৫ দিন মানুষদের অনেক কাছাকাছি চলে আসেন। গোটা পক্ষকাল ধরে পিতৃপুরুষদের স্মরণ ও মননের মাধ্যমে র্তপণ করা হয়। যার মহালগ্ন হল মহালায়া। এ দিনটিকে অনেকেই দেবীপক্ষের সূচনা বলে থাকেন। পিতৃপক্ষের শেষ দিন হল মহালায়া।

আরো পড়ুনঃ দুর্গা পূজা ২০২২ কত তারিখে

মহালয়া ২০২২ তারিখ হিসেবে ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ রবিবার মহালয়া পালন করা হবে।

২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ শনিবার রাত ২ টা ৫৫ মিনিট ৩৯ সেকেন্ড অমাবস্যা তিথি শুরু হবে এবং ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ রবিবার রাত ৩ টা ২৪ মিনিট ১৭ সেকেন্ড পর্যন্ত অমাবস্যা তিথি থাকবে।

মহালয়ার পাঠ লিরিক্স - মহালয়ার গান

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই পোস্টে আমরা মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি এ সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করছি। ইতিমধ্যেই আমরা এগুলো সম্পর্কে আলোচনা করে এসেছি। তার জন্য আপনাকে সম্পূর্ণ পোস্ট মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে। তাহলে চলেন এখন আমরা মহালয়ার পাঠ লিরিক্স সম্পর্কে জেনে নেই।

মহালয়ার পাঠ লিরিক্সঃ

ইয়া চন্ডী মধু কৈটভাদিদৈত্যদলনী 

ইয়া মাহিষোন্নূলিনী

ইয়া ধূম্রেক্ষণচন্ডমুশুমথনি

ইয়া রক্তবীজাশনী

শক্তিশুম্ভনিম্ভদৈত্যদলনী

ইয়া সিদ্ধিদাএী পরা

সা দেবী নবকোটীমূর্তিসহিতা

মাং পাতু বিশ্বেশ্বরী

মহালয়ার পাঠ লিরিক্সঃ

আশ্বিনের শারদ প্রাতে বেজে উঠেছে আলোক মঞ্জির।

ধরণীর বহিরাকাশে অন্তহিত মেঘমলা।

প্রকৃতির অন্তরাকাশে জাগরিত জ্যোতির্ময়ী

জগন্নাতার আগমন বার্তা।

আনন্দময়ী মহামায়ার পদধ্বনি

অসীম ছন্দে বেজে উঠে রূপ লোক

রসলোকে আনে নবভাবধূরীর সঞ্জীবন।

তাই আনন্দিতা শ্যামলীর মাতৃকার চিন্নয়ীকে 

মৃন্নয়ীতে আবাহন।

মহালয়ার পাঠ লিরিক্সঃ

বাজলো তোমার আলোর বেণু মাতলো রে ভুবন

আজ প্রভাতে যে সুর শুনে খুলে দিনু মন

অন্তরে যা লুকিয়ে বাজে

অরুণ বীণায় সেই সুর বাজে

এই আনন্দ সবার মধুর আমন্ত্রণ

আজ সমীরণ আলোয় পাগল, নবীন সুরের বীণায়

আজ শরতের আকাশ বীণায় গানের মালা বিলায়

তোমায় ছাড়া জীবন মম, তোমারি আলোয় নিরূপণ

ভোরের পাখি উঠছে গাহি তোমার এই বন্ধন।

মহালয়ার পাঠ লিরিক্সঃ

মহামায়া সনাতনী, শক্তিরুপা, গুণময়

তিনি এক, তবু প্রকাশ বিভিন্ন দেবী নারায়ণী,

আবার ব্রহ্মশক্তিরুপা ব্রাহ্মণী

কখনো মহেশ্বরী রুপে প্রকাশমানা

কখনো বা নির্মলা কৌমারী রুপধারিণী

কখনো মহা-বজ্র রূপিণী ঐন্দ্রি

মহালয়ার পাঠ লিরিক্সঃ

ত্বং স্বাহা ত্বং স্বধা ত্বং হি বষ্‌টকারঃ স্বরাত্মিকা

সুধা ত্বং অক্ষরে নিত্যে তৃধা মাত্রাত্মিকা স্থিতা

অর্ধমাত্রা স্থিতা নিত্যা ইয়া অনুচ্চারিয়া বিশেষত

ত্বমেব সন্ধ্যা সাবিত্রী ত্বং দেবী জননী পরা

ত্বয়েতদ্ধার্যতে বিশ্বং ত্বয়েতৎ সৃজ্যতে জগৎ

ত্বয়েতৎ পাল্যতে দেবী ত্বমৎস্যন্তে চ সর্বদা

বিসৃষ্টৌ সৃষ্টিরূপা ত্বং স্থিতিরূপা চ পালনে

তথা সংহৃতিরূপান্তে জগতো’স্য জগন্ময়ে

মহাবিদ্যা মহামায়া মহামেধা মহাস্মৃতিঃ

মহামোহা চ ভবতি মহাদেবী মহেশ্বরী

প্রকৃতিস্ত্বং চ সর্বস্ব গুণাত্রয়বিভাবিনী

কালরাত্রির্মহারাত্রির্মোহারাত্রিশ্চ দারূণা

ত্বং শ্রীস্তমীশ্বরী ত্বং হ্‌রীস্ত্বং বুদ্ধির্বোধলক্ষণা

লজ্জা পুষ্টিস্তথা তুষ্টিস্ত্বং শান্তিঃ ক্ষান্তিরেব

খড়্গিনী শূলিনী ঘোড়া গদিনী চক্রিনী তথা

শঙ্খিনী চাপিনী বাণ ভূশূন্ডী পরিঘআয়ূধা

সৌম্যা সৌম্যতরাহ্‌শেষ, সৌম্যেভ্যস ত্বতিসুন্দরী

পরাপরাণাং পরমা ত্বমেব পরমেশ্বরী।

মহালয়ার পাঠ লিরিক্সঃ

তব অচিন্ত্য রূপ-চরিত-মহিমা

নব শোভা, নব ধ্যান রূপায়িত প্রতিমা

বিকশিল জ্যোতি প্রীতি মঙ্গল বরণে

তুমি সাধন ধন ব্রহ্ম বোধন সাধনে

তব প্রেমনয়ন ভাতি নিখিল তারণী

কনককান্তি ঝরিছে কান্ত বদনে

হে মহালক্ষ্মী জননী গৌরী শুভদা

জয় সংগীত ধ্বনিছে তোমারই ভুবনে

মহালয়ার গানঃ

বাজলো তোমার আলোর বেণু, মাতলো যে ভুবন

আজ প্রভাতে সে সুর শুনে খুলে দিনু মন।

অন্তরে যা লুকিয়ে রাজে অরুণবীণায় সে সুর বাজে—

এই আনন্দযজ্ঞে সবার মধুর আমন্ত্রণ

আজ সমীরণ আলোয় পাগল নবীন সুরের বীণায়

আজ শরতের আকাশবীণা গানের মালা বিলায়

তোমায় হারা জীবন মম তোমারই আলোয় নিরুপম—

ভোরের পাখি ওঠে গাহি তোমারই বন্দন

মহালয়ার গানঃ

ওগো আমার আগমনীর আলো 

জ্বালো প্রদীপ জ্বালো জ্বালো

ওগো আমার আগমনীর আলো

এই শরতের ঝঞ্ঝাবাতে

নিশার শেষে রুদ্রবাতে এ..

নিভলো আমার আ.পথের বাতি

নিভলো প্রাণের আলো ও.

ওগো আমার ও.

পথদেখানো আলোও জীবন জ্যোতিরূপের সুধা ঢালো ও.

দিক হারানো শঙ্কাপথে আসবে এ.

অরুণরথে আসবে কখন আসবে

টুটবে পথেরও নিবিড়ও আঁধারো সকলো বিষাদ-কালো

বাজাও আলোর কন্ঠবীণা 

ওগো পরম ভালো করো মা ভালো

সূত্রঃ chalokolkata.com/banglaalyrics.com

মহালয়া চন্ডীপাঠ

মহালয়া হচ্ছে একটি অমাবস্যা তিথি শাস্ত্রমতে। এই সময়ে সাধারণত পিতৃপুরুষদের শ্রদ্ধা তর্পন করা হয়। হিন্দু ধর্মে বিশ্বাস করা হয় যে এই দিনে পিতৃপুরুষদের তর্পন করা হরে পিতৃপুরুষেরা নরকের যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পায় এবং আমাদের আশীর্বাদ করেন। এছাড়া মহালয়ার দিনে দেবী দূর্গার জাগরণ করা হয়। তাই মহালয় এরপর দেবীপক্ষের ঘট বসিয়ে শারদীয় দুর্গাপূজার সূচনা করা হয়।

আরো পড়ুনঃ দূর্গা পূজার সময়সূচী ২০২২

মহালয়ার পর প্রতিপদে যে বোধন হয় সে সময় সংকল্প করে দূর্গা পূজার আয়োজন চলে। আমরা জানি যে মহাষষ্ঠী থেকে দূর্গা পূজার প্রধান কার্যক্রম শুরু করা হয়। সপ্তমী থেকে বিজয় দশমী পর্যন্ত পূজো এবং চণ্ডীপাঠ চলে।

তথ্যঃ wikipedia

শেষ কথাঃ মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি

আপনারা যারা মহালয়ার দিন কি করা উচিত - মহালয়ার অর্থ কি এ সম্পর্কে জানতে চেয়েছিলাম তাদের জন্য উপরে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয়েছে। তার জন্য আপনাকে সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে। তাহলেই মহালয়ার সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জানতে পারবেন। আমরা সকলেই জানি যে আর কিছুদিন পর সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান শারদীয় দুর্গাপূজা শুরু হতে চলেছে।

শারদীয় দূর্গা পূজার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয় মহালয়ার মধ্য দিয়ে। আপনি যদি একজন সনাতন ধর্মাবলম্বী তাই এ সম্পর্কে জান আপনার অত্যন্ত প্রয়োজন। এতক্ষন আমাদের সঙ্গে থাকার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। এরকম পোস্ট আরও পড়তে নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইট ফলো করুন। ১৬৮৩০

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?