অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/02/shobe-meraj-date.html

শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে - ২০২২ সালের শবে মেরাজ কত তারিখে

শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে ও ২০২২ সালের শবে মেরাজ কত তারিখে তা জানতে আমাদের এই নিবন্ধটি মনোযোগ দিয়ে পড়ুন।
আমরা জানি হিজরি রজব মাসের ২৭ তারিখ পবিত্র শব-ই-মেরাজ। কিন্তু শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে বা ইংরেজি ২০২২ সালের শবে মেরাজ কত তারিখে তা জানাতে আমাদের আজকের এই পোস্ট। চলুন দেখে নেই ২০২২ সালের শবে মেরাজ কত তারিখে বা শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে।

পেজ সূচীপত্রঃ শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে - ২০২২ সালের শবে মেরাজ কত তারিখে

শবে মেরাজ কি? | শবে মেরাজ কবে

শবে ও মেরাজ দুটি আরবি শব্দ। শবে অর্থ রাত্রি এবং মেরাজ শব্দের অর্থ হচ্ছে আরোহণ। তার মানে শবে মেরাজ মানে স্বর্গারোহণের রাত। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এই রাতে সাত আসমান অতিক্রম করে মহান আল্লাহর দর্শন লাভ করেন। আর তিনি এ রাতে আল্লাহর পক্ষ থেকে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের নির্দেশ নিয়ে এসেছেন। মেরাজের রাত মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জীবনের একটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ রাত। এই রাত মুসলমানরা মর্যাদার সাথে পালন করে এবং আল্লাহর ইবাদত করে।

শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে

মুসলমানরা রজব (ইসলামী ক্যালেন্ডারের সপ্তম মাস) এর 27 তম রাতে শব-ই-মেরাজ উদযাপন করে। এটি শব-ই-মিরাজ-উন-নবী এবং লায়লাতুল মেরাজ নামেও পরিচিত। শব-ই-মেরাজ আল্লাহর সাথে সাক্ষাতের জন্য নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর যাত্রাকে স্মরণ করতে উদযাপিত হয়। মুসলমানরা প্রার্থনা, জমায়েত, কুরআন তেলাওয়াত এবং প্রার্থনা করে এই ঘটনাটি পালন করে। তারা দিনের বেলা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত রোজা রাখে।

এই বছরে শব-ই-মেরাজ পালিত হবে ১ মার্চ ২০২২ মঙ্গলবার।

চাঁদ দেখার ভিত্তিতে তারিখ পরিবর্তিত হতে পারে।

বাংলাদেশে শবে মিরাজ শুরু হয় ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২ (২৬ রজব ১৪৪৩ হিজরি) সন্ধ্যা থেকে এবং ০১ মার্চ ২০২২ (২৭ রজব ১৪৪৩ হিজরি) পবিত্র শব-ই-মেরাজ। ইসলামে বেশ কিছু ইসলামিক ঘটনা রয়েছে যেগুলোর নিজস্ব তাৎপর্য রয়েছে। যাইহোক, শবে মিরাজ ইসলামের পবিত্রতম অনুষ্ঠানগুলির মধ্যে একটি। প্রতি বছর বাংলাদেশের মুসলমানরা এই অনুষ্ঠানের জন্য বিশেষ আয়োজন করে থাকে। তারা বাংলাদেশে শবে মিরাজের নিশ্চিত তারিখ সম্পর্কে সচেতন হতে এবং সেই অনুযায়ী তাদের কার্যক্রম পরিকল্পনা করার জন্য চাঁদ দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করে।

শবে মেরাজ সম্পর্কিত হাদীস | শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে

আনাস ইবনু মালিক (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ

বোরাককে আমার কাছে আনা হল, বোরাক একটি চার পায়ের প্রাণী, সাদা, লম্বা, গাধার চেয়ে বড় এবং একটি খচ্চরের চেয়ে ছোট, সে তার দৃষ্টির শেষ প্রান্তে তার পা রাখল, সে বলল: আমি এতে চড়েছিলাম, অবশেষে আমি বায়তুল মাকদিসে নিয়ে আসা হয়, তিনি বলেনঃ আমি তাকে সেই খুঁটিতে বেঁধে রেখেছিলাম যার সাথে নবীরা বেঁধেছিলেন। তিনি বললেনঃ অতঃপর আমি মসজিদে প্রবেশ করি, সেখানে দুই রাকাত সালাত আদায় করি, তারপর বের হই।

তারপর জিব্রাইল (আঃ) আমার কাছে এক জগ মদ ও দুধ নিয়ে এল, আমি এক জগ দুধ নিই, জিব্রাইল আমাকে বললেন: তুমি ফিতরাত (প্রকৃতি) গ্রহণ করেছ, তারপর আমাদেরকে বেহেশতে নিয়ে যায়।
তিনি হাদীসটি উল্লেখ করেছেন, যেখানে বলা হয়েছে: "আমি আমার প্রভু ও মুসা (আঃ) এর মধ্যে আসতাম এবং যেতাম। অবশেষে, তিনি বললেন: হে মুহাম্মাদ, এটি প্রতি রাতে এবং দিনে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ, প্রতিটি নামাজের জন্য দশটি। , এবং এইভাবে পঞ্চাশটি নামাজ।" আমি তার জন্য একটি নেকী লিখি যে ভাল কাজ করতে চেয়েছিল কিন্তু তা করেনি, যদি সে তা করে তবে তার জন্য দশটি লেখা হয়। যে পাপ করতে চায় কিন্তু করে না তার জন্য কিছুই লেখা নেই, কারণ সে যদি করে তবে তার জন্য গুনাহ লেখা হয়। তিনি বললেনঃ অতঃপর আমি অবতরণ করলাম এবং মূসা (আঃ)-এর কাছে এসে খবর দিলাম। তিনি আমাকে বললেনঃ তোমার প্রভুর কাছে ফিরে যাও, তাঁর কাছে সাহায্য চাও। রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেনঃ আমি বললাম আমি আমার রবের নিকট বারবার গিয়েছি এখন লজ্জা করছি”।
 
(তথ্যসূত্র > বইঃ সহীহ হাদীস কুদসী, অধ্যায়ঃ ১/ বিবিধ, হাদীস সংখ্যাঃ ৯৯, ইসলামিক ফাউন্ডেশন [বুখারী ও মুসলিম]।)

মহানবী (সা.)-এর শ্রেষ্ঠ মুজেযা মেরাজ | শবে মেরাজ কবে

আমাদের প্রিয় নবী (সা.)-এর শ্রেষ্ঠ মুজেজাগুলোর একটি হলো ‘মেরাজ’। এ রাতে তিনি বায়তুল মোকাদ্দাসে নামাজে সকল নবীর ইমাম হন এবং সাইয়্যিদুল মুরসালিনের আসনে অধিষ্ঠিত হন। ফলে এ রাত নিঃসন্দেহে তাঁর শ্রেষ্ঠত্বের এক মহিমান্বিত নিদর্শন বহন করে।

যে ঘরে মহানবী (সা.) মেরাজের রাতে ঘুমিয়েছিলেন

মেরাজের রাতে হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.) পরহেজগার উম্মে হানি বিনতে আবু তালিবের ঘরে ঘুমিয়েছিলেন। হঠাৎ হযরত জিব্রাইল (আ.) এসে হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-কে মসজিদুল হারামে নিয়ে গেলেন। যেখানে তিনি তার বক্ষ ছিঁড়ে জমজম কূপের পানি দিয়ে সিনা মুবারককে ধৌত করে মজবুত করেন। এই ঘটনাকে ‘শাক্কুস সদর’ বলা হয়।

বোরকে করে আকাশে গমন | শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে

রাসূল (সা.)-এর জীবনে অন্তত তিনবার এমনটি ঘটেছে। সেখান থেকে তিনি 'বোরাক' নামক ঐশী বাহনে চড়ে বায়তুল মোকাদ্দাসে যান এবং সকল নবীর ইমাম হন এবং দুই রাকাত নামাজ আদায় করেন। তারপর বোরায় উঠে ওপরের দিকে হাঁটতে লাগল। একের পর এক আকাশ পার হতে থাকল। পথিমধ্যে তিনি হযরত মুসা (আ.)সহ অনেক নবী-রাসূলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

স্বচক্ষে জান্নাত ও জাহান্নাম দর্শণ | শবে মেরাজ কবে

সপ্তম আসমানের পর হযরত মোহাম্মদ (সা.) বায়তুল মামু জিয়ারত করেন। বায়তুল মামুরে প্রতিদিন ৭০ হাজার ফেরেশতা প্রবেশ করে। ফেরেশতাদের সংখ্যা এত বেশি যে, তারা একবার এই বায়তুল মামুরে প্রবেশ করলে কিয়ামত পর্যন্ত তাদের প্রবেশের পালা নেই। সেখানে হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.) স্বচক্ষে জান্নাত ও জাহান্নাম প্রত্যক্ষ করেন।

প্রকৃতি ধর্মের নিদর্শন প্রাপ্তি | শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে

অতঃপর এক বাটি মদ, এক বাটি দুধ ও এক বাটি মধু হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর সামনে আনা হলো। সে তা থেকে দুধের জগ নিল। তখন হজরত জিব্রাইল (আ.) বললেন, এটা প্রকৃতি ধর্মের নিদর্শন। আপনি এবং আপনার উম্মত এই ইসলাম ধর্মের উপর প্রতিষ্ঠিত হবে।

মহান আল্লাহ পাকের সাক্ষাত লাভ করা

হযরত জিবরাঈল (আ.)-কে বায়তুল মামুরে রেখে তিনি 'রফরফ' নামক আরেকটি ঐশী বাহনে আল্লাহর দরবারে হাজির হন। কিছু বর্ণনা অনুযায়ী, মেরাজের রাতে হযরত রাসুলুল্লাহ (সা.) আল্লাহর এত কাছে এসেছিলেন যে উভয়ের মধ্যে কেবল একটি ধনুকের ব্যবধান ছিল।

পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ ফরজ আদায় করা | শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে

এখানে হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর উম্মতের ওপর ৫০টি নামাজ ফরজ করা হয়েছে। পরবর্তীকালে, বারবার অনুরোধের জবাবে, আল্লাহ মুহাম্মদের উম্মতের উপর পাঁচটি দৈনিক নামাজ চাপিয়ে দেন, যা ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের একটি। আর এই দোয়া মানুষকে সকল প্রকার পাপাচার ও অন্যায় থেকে রক্ষা করে তাকে একজন প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলে।

শেষ কথাঃ শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে

বন্ধুরা আমাদের এই আজকের নিবন্ধটিতে শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে ও ২০২২ সালের শবে মেরাজ কত তারিখে তা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি আপনারা জানতে পেরেছেন শবে মেরাজ ২০২২ কত তারিখে।

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?