অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/11/shiter-pitha.html

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি ২০২২ - শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি করে গিয়েছেন অনেক বিখ্যাত ব্যক্তিবর্গ। বাঙ্গালীদের একটি অন্যতম উৎসব হলো শীতের পিঠা। অনেকে আছে শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা পড়তে ভালোবাসে। শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি সম্পর্কে জানতে চাইলে সম্পূর্ণ আর্টিকেল মনোযোগ সহকারে পড়ুন। তাহলে চলুন আর কথা না বাড়িয়ে শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি গুলো জেনে নেওয়া যাক।

কনটেন্ট সূচিপত্রঃ শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি - শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি - শীতের পিঠা নিয়ে কবিতাঃ ভূমিকা

শীত আসলেই বাঙ্গালীদের পিঠা খাওয়ার ধুম পড়ে। বিশেষ করে গ্রামাঞ্চলে শীতের সময় পিঠা খাওয়ার প্রচলন বেশি দেখা যায়। শীতের সকালে উঠে বাড়ির বড়রা বিভিন্ন রকম পিঠা তৈরি করে। বাঙালির কাছে খুবই বিখ্যাত একটি খাবার। পিঠা পছন্দ করেনা এরকম মানুষ খুব কম রয়েছে। অনেকেই আছে যারা শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি পছন্দ করে থাকে। তাহলে চলুন শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

শীতের পিঠা নিয়ে কিছু কথা

শীতের সময় পিঠা খাওয়ার রীতি বাংলাদেশের ঐতিহ্য এবং ইতিহাসের মধ্যে পড়ে। শীতের সময় পিঠা না খেলে বাঙ্গালীদের শীত পরিপূর্ণ হয় না। শীতের সময় গ্রামের প্রতিটি ঘরে ঘরে পিঠা খাওয়ার আনন্দে মেতে ওঠে সবাই। কিন্তু এখনকার সময়ে তেমন আর চোখে পড়ে না। মানুষের পিঠা খাওয়ার আগ্রহ অনেকটাই আগের তুলনায় কমে গিয়েছে।

আরো পড়ুনঃ বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার - বিশ্ব শিশু দিবস লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য

আগে যতই শীত বাড়তো পিঠা খাওয়ার ধুম এবং পিঠা বানানোর ব্যস্ততা আরো বেড়ে যেত। গ্রামের প্রতিটি ঘরে ঘরে পিঠা তৈরির উৎসবে মেতে উঠতো দাদী নানীরা। এ সময় কিশোর-কিশোরীরা আনন্দে আত্মহারা হতো এবং বড়রা অপেক্ষা করতো পিঠা তৈরির। বিশেষ করে কৃষক পরিবারে শীতের পিঠা বানানোর উৎসব আরো বেশি দেখা যেত।

কারণ শীতের সময় নতুন ধান উঠলে সে ধান থেকে তৈরি করার চাল দিয়ে বিভিন্ন রকম পিঠা পায়েস তৈরি করা হতো এবং সেগুলো কে আত্মীয়-স্বজন গ্রাম প্রতিবেশীর মাঝে দেওয়া হতো কারণ সে আনন্দ সকলের মাঝে ভাগাভাগি করে নেওয়ার জন্য। এ উৎসবকে নবান্ন উৎসব বলা হত। কিন্তু এখনকার সময়ে শীতের পিঠা তৈরীর তেমন আগ্রহ আর মানুষের মাঝে দেখা যায় না।

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি

শীতের পিঠা গ্রামীণ সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। প্রাচীনকাল থেকেই শীতের পিঠা নিয়ে বিভিন্ন রকম উক্তি করে গিয়েছেন। কারণ বাংলার প্রতিটি মানুষ শীতের পিঠা খেতে পছন্দ করে। বাংলার মানুষের কাছে শীতের পিঠার গুরুত্ব অনেক বেশি। তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমরা বাংলাদেশের সংস্কৃতি শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি সম্পর্কে আলোচনা করব।

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি - ১ঃ শীতের পিঠার মেলা বসবে এবার গ্রামের মাঠে শিশুরাই মেলায় যাবে যাবে না পাঠে।

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি - ২ঃ শীত এলে হিম হিম নামের সাথে কুয়াশা প্রকৃতি টা যাই সুখে পায় তার পিপাসা। বৃক্ষের পাতা ঝড়ে বায়ুথলি কম্পন করে।

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি - ৩ঃ পাহাড় নিয়ে এলো শীতের বুড়ি দাদি নানি তোমরা বলো আছো কোথায়।

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি - ৪ঃ শীতের পিঠা খেতে কার না মন চায় গ্রামের ঘরে শীতের পিঠার স্বাদ সবাই পাই।

শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা

প্রিয় বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি সম্পর্কে আলোচনা করছি। ইতিমধ্যে আমরা শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি এছাড়া আরও কয়েকটি বিষয় সম্পর্কে আলোচনা করেছি। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা পড়তে পছন্দ করে এখন তাদের জন্য শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা নিচে আলোচনা করা হলো।

আরো পড়ুনঃ মুক্তিযোদ্ধা দিবস কত তারিখ - বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা দিবস - ০১ ডিসেম্বর

শীতের পিঠা নিয়ে কবিতাঃ

শীত এলেই গাঁয়ের বাড়ি পিঠা তৈরির মেলা
গাঁয়ের বধূ পিঠা বানায় কাটিয়ে দেয় বেলা।
ছানাপুলি নারকেলপুলি পাটিসাপটার ঘ্রাণ ভাপা, সেমাই, পাকনপিঠা নেচে ওঠে প্রাণ।
খেজুর রসে ভেজানো হয়
চিতই নামের পিঠা ভেজানোর পর খেলেই তা লাগে যেন মিঠা।
শীতের পিঠা খাই সকলে একটু আয়েশ করে
শীতের পিঠা দেখলে আমার মনটা ওঠে ভরে।

সংগৃহীত

শীতের পিঠা নিয়ে স্ট্যাটাস

শীতকালে পিঠা খেতে পছন্দ করেনা এরকম মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না। শীতকালে মূলত নতুন গুড়ের পিঠা খাওয়ার উপযুক্ত সময় তাই এই সময় মানুষ পিঠা খেতে বেশি পছন্দ করে। নতুন গুড় দিয়ে বানানো পিঠা খেতে অনেক সুস্বাদু হয়। শীতকাল হল বাঙ্গালীদের পিঠা বানানোর সময়। শীতকালের পিঠা বানাই এর কারণ হলো একটি ঐতিহ্য প্রাচীনকাল থেকে এই ধারাবাহিকতায় চলে আসছে। নিচে আপনাদের জন্য শীতের পিঠা নিয়ে স্ট্যাটাস দেওয়া হল।

১। পিঠা খাব খেজুর রসে শীতের রোদে বসে তোমরা বানাও অধিক পিঠা কোমর বেঁধে কষে।

২। পিঠা যাবে কুটুম পাড়া, ভোরের আগে ভীষণ তারা নবান্নে তাই শীতের ভোরে পিঠার গন্ধে ভরে।

৩। উড়ছে পাখি দিচ্ছে ডাক কুয়াশা আসে ঝাঁক ঝাঁক খেজুর গাছে রসের হাড়ি আমি আসি তোমার বাড়ি উঠবে মাঝি তোর ব্যাপার বন্ধুকে জানাই শুভ সকাল।

৪। শীতকাল চলে এসেছে আমি জানি না আমরা কতদিন পর্যন্ত ভাপা পিঠা খাবেন না।

৫। আহা কত রঙের পিঠা দেখা পাবো দেখে মন ভরে সবাই মাদবর খুশির খেয়াই।

সংগৃহীত

শীতের পিঠা তৈরির নিয়ম - শীতের পিঠা বানানোর নিয়ম

প্রিয় বন্ধুরা আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি সম্পর্কে আলোচনা করছি। আমরা প্রায় সকলেই পিঠা খেতে পছন্দ করি। কিন্তু সবথেকে বড় সমস্যা হচ্ছে শীতের পিঠা তৈরির নিয়ম সম্পর্কে আমাদের জানা নেই। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শীতের পিঠা তৈরির নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

নকশি পিঠা তৈরির নিয়মঃ

উপকরণ সমূহ - আতপ চালের গুঁড়া, মুগ ডাল আধা কাপ, দুধ 2 কাপ, পানি 1 কাপ, এক চামচ ঘি, নকশা করার জন্য খেজুরের কাঁটা।

নিয়মঃ

দুধের সঙ্গে পানি মিশিয়ে ফুটিয়ে নিতে হবে। ফুটে উঠলে সামান্য লবণ চালের গুড়া দিয়ে ভালোভাবে নেড়ে চুলা বন্ধ করে কয়েক মিনিট ঢেকে রাখতে হবে। মুগডাল টেলে সেদ্ধ করে বেটে রাখুন। চালের গুড়া ভালোভাবে এর সঙ্গে ডাল দিয়ে রাখুন। এরপরে খেজুরের কাঁটা ও নকশা তৈরি করে ডুবো তেলে মাঝারি আঁচে ভাজুন।

হৃদয় হরন পিঠা তৈরির নিয়মঃ

উপকরণ সমূহ - ময়দা 1 কাপ, তরল দুধ দেড় কাপ, পোলাওয়ের চাউল এর গুঁড়ো 2 টেবিল চামচ, লবণ চিনি গুড়ের শিরা দেড় কাপ।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশের জাতীয় আয়ের এর বৃহ খাত কোনটি জেনে নিন

নিয়মঃ

দুধ ফুটে উঠলে সামান্য লবণ চালের গুঁড়া ও ময়দা দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিতে হবে। ভালোভাবে পাতলা রুটি বানাতে হবে। কুচি করে ভাঁজ করুন এবার মাঝেমাঝে অংশে ভেতরে ঢুকিয়ে অপর পাশ দিয়ে ঘুরিয়ে আটকে দিন এরপর তেলে ভাজুন তারপরে সিরায় দিয়ে তুলে নিন।

শীতের পিঠার নাম ও ছবি

প্রিয় বন্ধুরা ইতিমধ্যে আমরা শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি সহ আরো অনেকগুলো বিষয় সম্পর্কে জেনেছি। এমনকি শীতে কয়েকটি পিঠা তৈরি করার নিয়ম সম্পর্কেও জানতে পেরেছি। শীতের পিঠার নাম ও ছবি অনেকেই আছে যারা জানতে চাই। এখন আমরা শীতের পিঠার নাম ও ছবি আপনাদের জন্য নিচে উল্লেখ করছি।

পুলি পিঠাঃ

মালপোয়াঃ
ভাপা পিঠাঃ
চিতই পিঠাঃ
পাটিসাপটাঃ

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি - শীতের পিঠা নিয়ে কবিতাঃ উপসংহার

শীতের পিঠা নিয়ে উক্তি, শীতের পিঠা নিয়ে কবিতা, শীতের পিঠার নাম ও ছবি আজকেরে আর্টিকেলে আলোচনা করা হয়েছে। প্রিয় বন্ধুরা আশা করি আপনি উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। আপনাকেও বিষয়গুলো জানাতে পেরে আমরা সত্যিই অনেক আনন্দিত। আপনার এবং আপনার পরিবারের সুস্থতা কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করছি ধন্যবাদ। ২০৮৭৬

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?