অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/11/blog-post_18.html

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস 2022 কবে - শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এর ছবি

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে? আপনি কি এ বিষয়ে জানতে চান? তাহলে সঠিক জায়গাতে এসেছেন আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে? এছাড়া শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করব। আপনি যদি জানতে চান শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে? তাহলে সম্পূর্ণ আর্টিকেল মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

সূচিপত্রঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে - শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এর ছবি

ভূমিকাঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে - শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এর ছবি

বাংলাদেশের একটি বিশেষ দিবস হল শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। প্রতিবছর একটি বিশেষ দিনে বাংলাদেশের এই বিশেষ দিবসটি পালন করা হয়। তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে এছাড়াও শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস রচনা pdf, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্ট্যাটাস সম্পর্কে আলোচনা করব। তাহলে চলুন আমাদের মূল আলোচনা শুরু করা যাক।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে?

বাংলাদেশের জাতীয় দিবস গুলোর মধ্যে অন্যতম হলো শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস সম্পর্কে জানার আগে আপনাকে অবশ্যই শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে? এ সম্পর্কে জেনে নিতে হবে কারণ বাংলাদেশের একটি জাতীয় দিবস শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। একজন প্রকৃত বাঙালি হিসেবে বাংলাদেশের ইতিহাস সম্পর্কে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশের জাতীয় আয়কর দিবস কবে - আয়কর দিবস কেন পালিত হয়

১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর বাংলাদেশের সকল বুদ্ধিজীবীদের পাক হানাদার বাহিনী হত্যা করেছিল তাদের স্মরণ করতে প্রতি বছর ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়। সাধারণত এই দিনে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ করা হয় এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়। তাদের সমাধিতে ফুল দেওয়া হয়। এককথায় তাদের সম্মান জানানো হয়।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস রচনা pdf

প্রিয় পাঠক এখন আমরা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস রচনা pdf সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আমাদের স্কুল কলেজ অথবা জেলা-উপজেলা পর্যায়ে বিভিন্ন রকম রচনা প্রতিযোগিতা হয়ে থাকে। তাদের জন্য নিচে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস রচনা pdf আলোচনা করা হলো।

ভূমিকাঃ বাংলাদেশের স্বাধীনতার পেছনে অনেক মানুষ তাদের জীবন বিলিয়ে দিয়েছে। পাক হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে আমরা দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধ করে আমাদের সোনার বাংলাদেশ তাদের হাত থেকে উদ্ধার করেছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের অনেক মানুষ বিভিন্ন রকম ভাবে সাহায্য করেছিলে তাদের সাধ্য অনুযায়ী।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পেছনে অনেক মানুষ শহীদ হয়েছিলেন তাদের মধ্যে যেসব খ্যাতনামা ব্যক্তিবর্গ শহীদ হয়েছিলেন তাঁদের শহীদ বুদ্ধিজীবী বলা হয়। ১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ দিনটিকে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ঘোষণা করেছিল।

শহীদ বুদ্ধিজীবী কি? এবং কারাঃ বুদ্ধিজীবী বলতে আমরা বুঝতে পারছি যারা তাদের মেধা দিয়ে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চেয়েছিল অথবা বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে তাদের মেধা কাজে লাগিয়েছিল তাদের শহীদ বুদ্ধিজীবী বলা হয়। বুদ্ধিজীবী বিভিন্ন পেশার মানুষ হতে পারে যেমন একজন বিজ্ঞানী চিকিৎসক, প্রকৌশলী, রাজনীতিবিদ, আইনজীবী, গবেষক সাংবাদিক ইত্যাদি যে কোন পেশার মানুষ বুদ্ধিজীবী হতে পারে।

যে ব্যাক্তি শারীরিক শ্রম কাজে না লাগিয়ে তাদের মানসিক শ্রম কাজে লাগিয়ে মানুষের সাহায্য সহযোগিতা করে থাকে তাদেরকে বুদ্ধিজীবী বলা হয়।

বুদ্ধিজীবীদের হত্যার পরিকল্পনাঃ বাংলাদেশের বিজয় অর্জনের দুইদিন আগেই বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণীর সকল বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল কারণ পাক হানাদার বাহিনী বুঝতে পেরেছিলো যে তাদের বাংলাদেশ ক্ষমতা আর থাকবে না তারা খুব দ্রুতই বাংলাদেশের ক্ষমতা হারাতে চলেছে। তাই পরিকল্পিতভাবেই এ হত্যাকাণ্ড চালানো হয়েছিল।

ঢাকা সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকাতে মেধাবী মানুষদের নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল ১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর। হত্যাকাণ্ড চালায় তারা পরিকল্পনা এবং তালিকা করেছিল তাদের হত্যা করবে। তাদের পরিকল্পনাতে প্রায় ২০,০০০ বুদ্ধিজীবী হত্যা করার চিন্তা ছিল। তারা বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করতে সাহায্য নিয়েছিল বাংলাদেশে থাকা স্বাধীনতাবিরোধী কিছু সংগঠনের যেমন রাজাকার।

মুক্তিযুদ্ধে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের গুরুত্বঃ বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অনেক মানুষ তাদের প্রাণ বিলিয়ে দিয়েছে শুধুমাত্র দেশকে স্বাধীন করার জন্য। বুদ্ধিজীবীরা যদিও অনেকে আছে যারা শারীরিকভাবে যুদ্ধে অংশগ্রহণ না করলেও তাদের বুদ্ধি দিয়ে বিভিন্ন রকম পর্যায়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছে। সাধারণত সেজন্যই তাদেরকে বুদ্ধিজীবী বলা হয়।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পেছনে বুদ্ধিজীবীদের ভূমিকা ছিল অপরিসীম। তার জন্যই পাক হানাদার বাহিনীরা চিহ্নিত করে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছিল। তারা বুদ্ধিজীবীদের তালিকা করে তাদের হত্যা করেছিল। এর একমাত্র কারণ ছিল বাংলাদেশকে সম্পূর্ণরূপে মেধাশূন্য করার লক্ষ্যে। কিন্তু তারা তাদের এই পরিকল্পনা সফল হতে পারেনি। যদিও অনেকগুলো প্রথম শ্রেণীর বুদ্ধিজীবীদের নির্মমভাবে হত্যা করেছিল।

শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধঃ ১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর বাংলাদেশের সকল বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল। বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ এ দিনটিকে বুদ্ধিজীবী দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। তখন থেকে প্রতিবছর ১৪ই ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয় এবং তাদের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য ঢাকার মিরপুরে প্রথম শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়।

আরো পড়ুনঃ সশস্ত্র বাহিনী দিবস কবে ২০২২ - সশস্ত্র বাহিনী দিবস কবে

উপসংহারঃ পাক হানাদার বাহিনীরা বাংলাদেশকে একেবারে মেধাশূন্য করে দেওয়ার উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের সকল বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল। তারা ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার অন্যতম মহানায়ক। তারা বিভিন্নভাবে বাংলাদেশের স্বাধীনতার অংশগ্রহণ করেছিল তাদের স্মরণে প্রতিবছর ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী পালন করা হয়।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কেন পালন করা হয়?

প্রিয় পাঠকগণ আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে? এই বিষয় সর্ম্পকে আলোচনা করছি। ইতিমধ্যে আমরা জেনে গিয়েছি যে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে? প্রতিবছর ডিসেম্বর মাসের ১৪ তারিখ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়। কিন্তু আপনি কি জানেন শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কেন পালন করা হয়? তাহলে জেনে নিন।

আমরা সকলেই জানি যে বাংলাদেশে প্রতি বছর ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয় কারণ ১৯৭১ সালের ১০ই-১৪ই ডিসেম্বর পাকিস্তান হানাদার বাহিনী বাংলাদেশের প্রথম শ্রেণীর সকল বুদ্ধিজীবীদের নির্মমভাবে হত্যা করেছিল। বাংলাদেশের বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করতে পাক হানাদার বাহিনীদের সাহায্য করেছিল রাজাকার আলবদর আলশামস বাহিনীর সদস্যরা।

সেই দিন পাক হানাদার বাহিনীর হাতে হত্যা হওয়া সকল বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে ঢাকা মিরপুরে প্রথম শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা হয়। বুদ্ধিজীবীরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে বিভিন্ন রকম ভাবে সাহায্য করেছে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার পেছনে তাদের সকলের ভূমিকা রয়েছে। তাই বাংলাদেশকে একবারে মেধাশূন্য করে দেওয়ার কারণেই বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল।

সেই বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ করার জন্য এবং তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করার জন্য প্রতিবছর ১৪ই ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়। দেশের সকল মানুষ তখন তাদের স্মরণ করে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে তাদের স্মরণ করা হয় এবং দোয়া মাহফিল এর মাধ্যমে তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্ট্যাটাস

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে? এ সম্পর্কে আমরা বিস্তারিত আলোচনা করেছি। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্ট্যাটাস অনেকেই জানতে চাই। বিশেষ করে যারা রাজনীতির সাথে জড়িত রয়েছে তারা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে তাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্ট্যাটাস দিয়ে থাকে। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্ট্যাটাস নিচে দেওয়া হল।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্ট্যাটাস - ১ঃ আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস সকল বুদ্ধিজীবীদের জানাই আমার সালাম। আপনাদের জন্যই আমরা এত সুন্দর বাংলাদেশে বসবাস করতে পারছি। সকল শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করি। সকলকে জানাই শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের শুভেচ্ছা।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্ট্যাটাস - ২ঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে সবাইকে শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন। সকল বুদ্ধিজীবীদের জানাই শ্রদ্ধা।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের স্ট্যাটাস - ৩ঃ আজ ১৪ই ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। আজকের এই দিনে বাংলাদেশের সকল বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল। ঐ সকল শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আমার লাখো সালাম। তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি এবং সকলকে জানাচ্ছি শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের শুভেচ্ছা।

শহীদ বুদ্ধিজীবী কারা

বাংলাদেশ বিজয় অর্জন করার দুইদিন আগে পাকহানাদার বাহিনী বুঝে গিয়েছিল যে তাদের দিন শেষ হতে চলেছে। তখন তারা বাঙালি জাতিকে সম্পূর্ণরূপে মেধাশূন্য করতে বাংলার শ্রেষ্ঠ সন্তান বুদ্ধিজীবীদের পরিকল্পিতভাবে এবং রাজাকারদের সাহায্যে পাক হানাদার বাহিনী হত্যা করেছিল। তাই প্রতিবছর শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে ১৪ই ডিসেম্বর বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়।

বাংলাদেশ বিজয় অর্জন করার আগে পরিকল্পিতভাবে বেছে বেছে অসংখ্য শিক্ষাবিদ, গবেষক, চিকিৎসক, প্রকৌশলী সাংবাদিক কবি সাহিত্যিক এদের হত্যা করেছিল। পাক হানাদার বাহিনীর ষড়যন্ত্রে এক শ্রেণীর দালাল এই কার্যক্রম চালিয়ে ছিল। যাদের হত্যা করা হয়েছিল তারা সবাই ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে।

আরো পড়ুনঃ জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস কি - জাতীয় সংহতি দিবস অনুচ্ছেদ

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে তারা বিভিন্ন রকম ভাবে সাহায্য সহযোগিতা করেছিল। কিন্তু বাংলাদেশের রাজাকার সহ অন্যান্য স্বাধীনতাবিরোধী ষড়যন্ত্রে এবং হানাদার বাহিনীর অস্ত্র সরবরাহ করার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশকে একেবারে মেধাশূন্য করে দেওয়ার জন্য বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়েছিল।

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এর ছবি

প্রিয় পাঠক আজকের এই আর্টিকেলে আমরা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে এই সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করছি। আমরা ইতিমধ্যে জেনে এসেছে যে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস হল ১৪ই ডিসেম্বর। আমাদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে ছবি তাদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করে থাকে তাদের জন্য শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এর ছবি নিচে উল্লেখ করা হলো।

আমাদের শেষ কথাঃ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে - শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এর ছবি

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস কবে, শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস এর ছবি শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস রচনা সহ আরো অনেকগুলো বিষয় আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনযোগ সহকারে পড়ে থাকেন তাহলে ইতিমধ্যে উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। যদি না বুঝে থাকেন তাহলে সম্পূর্ণ আর্টিকেল মনোযোগ সহকারে আবার পড়ে নিন।২০৭৯১

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?