অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/08/peyara.html

পেয়ারা পাতার ২৫টি উপকারিতা ও অপকারিতার বিস্তারিত

পেয়ারার মত করে পেয়ারার পাতাতেও আছে প্রচুর উপকারিতা। পেয়ার পাতাতে আছে ঔষুধি গুনাগুন। আমাদের শরীরের বিভিন্ন ধরনের সমস্যাতেই পেয়ারা পাতার গুনাগুনা সর্বাধিক। আজ আমরা আমাদের এই পোস্টে পেয়ারা পাতার উপকারিতা, পেয়ারা পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা, পেয়ারা পাতার উপকারিতা চুলের জন্য, পেয়ারা পাতার উপকারিতা কি, পেয়ারা পাতার গুনাগুন, পেয়ারা পাতার বৈশিষ্ট্য, পেয়ারা পাতার অপকারিতা নিয়ে আলোচনা করব।
চলুন আর দেরি না করে পেয়ারা পাতার উপকারিতা চুলের জন্য, পেয়ারা পাতার উপকারিতা কি, পেয়ারা পাতার গুনাগুন, পেয়ারা পাতার বৈশিষ্ট্য, পেয়ারা পাতার অপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জেনে নেই।

পেজ সূচিপত্রঃ পেয়ারা পাতার উপকারিতা - পেয়ারা পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা 

পেয়ারা পাতার উপকারিতা কি?

পেয়ারা পাতার অনেক উপকারিতা আছে। পেয়ারা পাতা চুলের জন্য বেশ উপকারী। পেয়ারা পাতার রস চুলের গোড়া করে মজবুত। এছাড়াও পেয়ারা পাতা দাঁত ব্যাথা, ব্লাডপ্রেশার, কোলেস্টেরল, ডায়বেটিস সহ বিভিন্ন ধরনের রোগের ঔষুধ হিসেবে কাজ করে। কারণ পেয়ারা পাতায় আছে বিভিন্ন ধরনের ঔষুধি গুনাগুন।

পেয়ারা পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা

পেয়ারা পাতার বেশ কিছু উপকারিতা ও অপকারিতা আছে। চলুন প্রথমে আমরা পেয়ারা পাতার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেই।

পেয়ারা পাতার উপকারিতা-

  • পেয়ারার পাতাতে ভিটামিন আছে প্রচুর পরিমানে। যা আমাদের চুলের জন্য বেশ উপকারী। পেয়ারা পাতার রস চুলের গোড়া মজবুত করে, নতুন চুল গজাতে ও মাথার চুল ঝরে পড়া কমাতে সাহায্য করে।
  • আপনার যদি ব্লাডপ্রেশার, কোলেস্টেরল, ডায়বেটিস সহ অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ কোন রোগ থাকে তাহলে নিয়মিত ৭ দিনে ৩টি করে পেয়ারা পাতা খান। এতে করে আপ্নাই এই সকল জটিল রোগ থেকে মুক্তি পাবেন।
  • পেয়ারার পাতা আমাদের দাঁতের জন্য খুবই উপকারী। যদি কারও দাঁতে শিরশির করে তাহলে পেয়ারা পাতা পরিষ্কার করে ধুয়ে চিবিয়ে মুখের ভিতরে কিছুক্ষন রাখতে হবে, এতে করে দাঁতের শিরশিরাভাব কমে যাবে।
  • আমাদের দেশে অনেক নারী-পুরুষ ডায়বেটিস রোগে ভুগছেন। পেয়ারা পাতা ডায়বেটিস রোগীদের জন্য অত্যান্ত উপকারী। পেয়ারা পাতাতে আছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন বি৩, ভিটামিন বি৬ ও নিয়াসিন যা ডায়বেটিস নিয়ন্ত্রন করতে সাহায্য করে।
  • পেয়ারা পাতা নারী-পুরুষের গোপনীয় রোগ থেকে রক্ষা করে।

পেয়ারা পাতার অপকারিতা -

উপকারিতার পাশাপাশি পেয়ারা পাতার কিছু অপকারিতা আছে। পেয়ারা পাতা ঔষুধি গুন অনেক থাকায় পেয়ারা পাতার অপকারিতা কিছুটা কম। তাও পেয়ারা পাতার কিছু অপকারিতা আছে। যদি আপনি পরিমানের চেয়ে বেশি মাত্রায় ব্যবহার করেন তাহলে পেয়ারা পাতার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হতে পারে। চলুন পেয়ারা পাতার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া বা অপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেই। 
  • আমরা জানি যে, পেয়ারা পাতা আমাদের শরীরের উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। তাই আপনি যদি অতিরিক্ত মাত্রায় পেয়ারা পাতার রস বা পেয়ারা পাতা বেশী পরিমানে খেয়ে ফেলেন তাহলে আপনার রক্তচাপ প্রয়োজনের চেয়ে বেশী কমে যেতে পারে। যার ফলে আপনার ক্ষতি হতে পারে।
  • গর্ভবতী মায়েরা পেয়ারা পাতা না করায় ভালো। কিন্তু যেহেতু এখন পর্যন্ত এই বিষয়ে কোন প্রকার সঠিক তথ্য জানা যায়নি তাই গর্ভবতী মহিলাকে পেয়ারা পাতা খাওয়ার পূর্বে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
পেয়ারার থেকে পেয়ারা পাতায় প্রচুর গুনাগুন আছে। যা বলে শেষ করা যাবে না। তাই আপনি রোজ আপনার যেকোন প্রয়োজনীয় কাজে পেয়ারা পাতা ব্যবহার করতে পারেন। পেয়ারা পাতাতে কোন প্রকার ক্ষতিকারক কোন উপাদান নেই। তাই আপনি নির্দ্বিধায় প্রতিদিন পেয়ারা পাতা ব্যবহার করতে পারেন। পেয়ারা পাতা আপনি সেবন করে সু-স্বাস্থ্যের অধিকারী হন ভালো থাকুন সুস্থ্য থাকুন।

পেয়ারা পাতার উপকারিতা চুলের জন্য

পেয়ারা পাতা চুলের জন্য খুবই উপকারী। পেয়ারা পাতায় প্রচুর পরিমানে অ্যান্টঅক্সিডেন্ট ও ভিটামিন  আছে যা  নতুন চুল গজাতে ও চুল লম্বা করতে খুবই উপকারী। পেয়ারা পাতা চুলকে মজবুত ও উজ্জ্বল করে তোলে। পেয়ারা পাতা চুলের স্বাস্থ্য ভালো করে। এছাড়াও পেয়ারার পাতার রস চুলের গোড়া মজবুত করতে সাহায্য করে।

পেয়ারা পাতা ব্যবহারের নিয়ম-
পেয়ারা পাতা চুলে ব্যবহার করার জন্য একটি পরিষ্কার পাত্রে ৩ থেকে ৪ কাপ পানি নিয়ে তাতে ৫-৬টি পেয়ারা পাতা দিয়ে ২০ মিনিট সেদ্ধ করুন। তারপর এই গরম পানির সাথে ২ কাপ পরিমান ঠান্ডা পানি মেশান। তারপর এই পানিটি হালকা গরম থাকা অবস্থায় মাথার ত্বকে ভালো করে লাগিয়ে প্রায় ১ ঘন্টার মত রেখে দিন। ১ ঘন্টা পর আপনার মাথা ভালো করে পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। 
যদি আপনি আরও ভালো ফলাফল পেতে চান তাহলে এই পদ্ধতিটি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে প্রয়োগ করুন। এই পদ্ধতিটি সপ্তাহে অন্তত ৩ দিন প্রয়োগ করুন। এই পদ্ধতিতে চুলের যত্ন নিলে আপনার চুল ঝড়া কমবে ও মাথায় নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে।

পেয়ারা পাতার গুনাগুন

পেয়ারা পাতার বেশ কিছু গুনাগুন বা পুষ্টিগুন আছে। তা কত পরিমান আছে কি কি আছে তা আমরা নিচে জেনে নেব। চলুন পেয়ারা পাতার গুনাগুন সম্পর্কে নিচে দেওয়া হল-
  • পোষক উপাদান - ১০০ গ্রামে মাত্রা
  • কার্বোহাইড্রেট - ৭ মিলিগ্রাম
  • স্টার্চ - ৬>.৩ মিলিগ্রাম
  • প্রোটিন - ১৬>.৮ মিলিগ্রাম
  • অ্যামিনো অ্যাসিড - ৮ মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন সি - ১০৩>.০ মিলিগ্রাম
  • ভিটামিন বি - ১৪>.৮০ মিলিগ্রাম
  • ক্যালশিয়াম - ১৬৬০>.০ মিলিগ্রাম
  • আয়রন - ১৩>.৫০ মিলিগ্রাম
  • ম্যাগনেশিয়াম - ৪৪০ মিলিগ্রাম
  • পটাসিয়াম - ৩৬০ মিলিগ্রাম
  • ফসফরাস - ৪১৭ মিলিগ্রাম

পেয়ারা পাতার বৈশিষ্ট্য | পেয়ারা পাতার ব্যবহার

পেয়ারা পাতা আমরা প্রায় সকল ধরনের কাজে ব্যবহার করতে পারি, কারণ পেয়ারা পাতার উপকারিতা অনেক। নিচে পেয়ারা পাতার আমরা কি কি কাজে ব্যবহার করতে পারব তা দেওয়া হল-
  • পেয়ারা পাতা দাঁতে সমস্যায় খুব ভালো কাজ করে।
  • পেয়ারা পাতা সেদ্ধ করে মাথার ত্বকে ব্যবহার করলে মাথার চুল পড়া কমে ও নতুন চুল গজায়।
  • পেয়ারা পাতার পেস্ট তৈরি করে ত্বকে ব্যবহার করলে ত্বক ভালো থাকে।
  • পেয়ারা পাতার চা খেলে পেটের সমস্যা দূর হয়। ও কোলেস্টেরল হ্রাস করতে সাহায্য করে।
  • পেয়ারা পাতার টনিক বানিয়ে খাওয়া শরীরের জন্য খুবই উপকারী।

শেষ কথাঃ পেয়ারা পাতার উপকারিতা - পেয়ারা পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা 

বন্ধুরা, আজ আমরা পেয়ারা পাতার উপকারিতা - পেয়ারা পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা নিয়ে একটি নিবন্ধ তৈরি করেছি। আমাদের এই পোস্টে পেয়ারা পাতার উপকারিতা, পেয়ারা পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা, পেয়ারা পাতার উপকারিতা চুলের জন্য, পেয়ারা পাতার উপকারিতা কি, পেয়ারা পাতার গুনাগুন, পেয়ারা পাতার বৈশিষ্ট্য, পেয়ারা পাতার অপকারিতা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।
আশাকরি, আমাদের এই পেয়ারা পাতার উপকারিতা, পেয়ারা পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা, পেয়ারা পাতার উপকারিতা চুলের জন্য, পেয়ারা পাতার উপকারিতা কি, পেয়ারা পাতার গুনাগুন, পেয়ারা পাতার বৈশিষ্ট্য, পেয়ারা পাতার অপকারিতা পোস্টটি আপনাদের ভালো লাগবে এবং আপনারা উপকৃত হবেন। এই ধরনের আরও নতুন নতুন পোস্ট পেতে আমাদের সঙ্গেই থাকুন, ধন্যবাদ।

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?