Ordinary IT https://www.ordinaryit.com/2019/11/top-10-interview-tips.html

ইন্টারভিউ বা ভাইভাতে সফল হবার ১০টি সেরা টিপস

ইন্টারভিউ বা মৌখিক পরীক্ষা বেশিরভাগ মানুষের জন্যই একটি আতঙ্কের বিষয়। এজন্য সফল ইন্টারভিউ টিপস নিয়ে জানানো হয়েছে এই পোস্ট। ইন্টারভিউতে একজন চাকরি প্রত্যাশী ব্যক্তির যোগ্যতার পাশাপাশি আচরণ,স্মার্টনেস, বাচনভঙ্গি, উপস্হাপন কৌশল এই বিষয়গুলোও সমান গুরুত্বপূর্ণ। ইন্টারভিউতে যাওয়ার আগে যে বিষয়গুলো মাথায় রাখা প্রয়োজন সেরকম ১০টি বিষয় নিয়ে আমরা আজকে আলোচনা করবো। চলুন জেনে নিই ইন্টারভিউকে জয় করার ১০টি কৌশল।

প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানুন

যে প্রতিষ্ঠানে  চাকরীর জন্য ইন্টারভিউ দিতে যাবেন, সে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে তথ্য জেনে নিন। প্রতিষ্ঠাকাল,কার্যক্রম, পলিসি,কর্মী সংখ্যা, মাসিক বেতন,কাজের পরিবেশ ইত্যাদি সম্পর্কে ইন্টার্ভিউ তে যাওয়ার আগেই স্বচ্ছ একটি ধারণা নিন। তাহলে ইন্টারভিউতে গিয়ে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে কোন প্রশ্ন করলে আপনার জন্য উত্তর করা সহজ হবে। যেকোনো প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইট, লিঙ্কডইন এ গিয়ে সে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে ধারণা নিতে পারেন।

ইন্টারভিউ গ্রহণকারী সম্পর্কে জানুন

যিনি ইন্টারভিউ নিবেন তার সম্পর্কে জেনে নিন। তার অফিসিয়াল পেজ অথবা সোস্যাল মিডিয়া সাইট থেকে অথবা প্রতিষ্ঠানের সাথে যুক্ত কোন ব্যক্তি থেকে ইন্টারভিউ গ্রহণকারী সম্পর্কে জানুন। তারর ব্যক্তিত্ব, পছন্দ, অপছন্দ, প্রশ্ন করার ধরন সম্পর্কে একটি সম্যক ধারণা কল্পনা করে নিন।

কমন প্রশ্নোত্তরগুলোর উত্তর রেডি রাখুন

ইন্টারভিউতে সাধারণত কমন কিছু প্রশ্ন থাকে যেগুলো সব ক্যান্ডিডেটকেই জিজ্ঞেস করা হয়। যেমন, নিজের সম্পর্কে বলুন, এই প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে কেনো আগ্রহী, আপনি এই প্রতিষ্ঠানের জন্য কতটুকু পরিশ্রম দিতে পারবেন ইত্যাদি। এই প্রশ্নগুলোর একটা ধারণা তৈরী করে অথবা খাতায় লিখে সুন্দর ভাবে উপস্হাপনের চেষ্টা করুন ইন্টারভিউয়ের জন্য। আরো একটি কাজ করতে পারেন সেটা হলো ভাইবায় জিজ্ঞেস করে এরকম কমন ১৫০ টি প্রশ্নোত্তর রেডি করে নিজে নিজে আয়নার সামনে অথবা বন্ধু-বান্ধব ও পরিবারের কারো সাথে বলার চেষ্টা করুন।

সময়মত প্রবেশ

ইন্টারভিউতে আপনাকে সময়মত ধীরস্হিরভাবে প্রবেশ করতে হবে। এইমাত্র ইন্টারভিউ এর জায়গায় আসলেন আর এসেই তাড়াহুড়ো করে ইন্টারভিউ দিতে ঢুকে গেলেন, এটা কখনওই ভালো ফলাফল নিয়ে আসেনা। এতে আপনার মনোযোগ বিচ্ছিন্ন হতে পারে,আপনি সঠিকভাবে সব প্রশ্নের উত্তর করতে নাও পারেন,এমনকি আপনার উত্তর জানা থাকলেও। তাই নির্দিষ্ট সময়ের আগেই ইন্টারভিউ এর প্রতিষ্ঠানে প্রবেশ করুন। ইন্টারভিউ বোর্ডে প্রবেশের সময় নিজ ধর্মীয় শিষ্টাচার অনুযায়ী সম্বোধন করে প্রবেশ করুন।

পোশাক নির্ধারন

ভাইবা বোর্ডে অবশ্যই মার্জিত পোশাক পরে যেতে হবে। খুব বেশি কালারফুল অথবা টাইট  অথবা দৃষ্টিকটু এরকম পোশাক পরে যাওয়া যাবেনা। এগুলো ইন্টারভিউতে অনুমোদিত পোশাক নয়। আবার কিছু প্রতিষ্ঠানের নির্দিষ্ট ড্রেসকোড আছে, আপনি চায়লে সেটা ফলো করতে পারেন। কিছু কোম্পানিতে নির্দিষ্ট কিছু পোশাক নিষিদ্ধ আছে যেগুলোকে ওই কোম্পানির বিধিবহির্ভূত ধরা হয়,সেসব পোশাক পরে গেলে আপনার চাকরি না হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তাই ইন্টারভিউ তে যাওয়ার আগে পোশাক নির্ধারন অবশ্যই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

বাচনভঙ্গি 

ইন্টারভিউতে একজন প্রার্থীর বাচনভঙ্গি অবশ্যই সুন্দর, স্পষ্ট ও মার্জিত হতে হবে।  আঞ্চলিকতা পরিহার করার চেষ্টা করতে হবে। সাবলীল ও সহজ ভাষায় কথা বলুন। অপ্রয়োজনীয়, অপ্রাসঙ্গিক কথাবার্তা পরিহার করুন। নিজেকে বিনীতভাবে উপস্হাপন করুন। কথা বলার সময় মুখের দুর্গন্ধ অথবা থু থু যেন আপনার সামনে বসে থাকা মানুষ কে বিব্রত না করে সেদিকে খেয়াল রাখুন। ধুমপান করে কখনওই ইন্টারভিউ দিতে যাবেন না। ভাইবা বোর্ডে কোনরকম মিথ্যার আশ্রয় নেওয়া যাবেনা। কারণ আপনি ধরা পড়ে  গেলে চাকরি হারাতে পারেন।

অল্প কথায় উত্তর দিন

ইন্টারভিউতে গিয়ে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব জাহির করা যাবে না। অল্প কথায় কিন্তু অর্থবহ ভাষায় অত্মবিশ্বাসের সাথে প্রশ্নের উত্তর করুন। সোজা হয়ে বসুন এবং ইন্টারভিউ গ্রহণকারীর চোখের দিকে তাকিয়ে উত্তর করুন। 

মনোযোগ ধরে রাখার চেষ্টা করুন

অনেকসময় ইন্টারভিউ বোর্ডে গিয়ে অনেকে নার্ভাস হয়ে যায়। আর মনোযোগ হারিয়ে ফেলে। কিন্তু ইন্টারভিউ বোর্ডে মনোযোগ ধরে রাখাটা খুব গুরুত্বপূর্ণ।  ইন্টারভিউ গ্রহণকারীর প্রতিটা কথা মনোযোগ এবং গুরুত্ব সহকারে শুনতে হবে। তাহলে আপনার উত্তর করা সহজ হবে। ইন্টারভিউ বোর্ডে অনেকসময় প্রার্থী কে উল্টাপাল্টা প্রশ্ন করে তার মানসিক যোগ্যতা যাচাই করা হয়। এক্ষেত্রে উত্তেজিত না হয়ে মাথা ঠান্ডা রেখে কৌশলে উত্তর দিতে হবে।

প্রয়োজনীয় কাগজপত্র ফাইল করুন

ইন্টারভিউতে যাওয়ার আগে ইন্টারভিউ বোর্ডে কি কি কাগজপত্র নিয়ে যেতে হবে সেটা জেনে সকল প্রয়োজনীয় কাগজ একটি ফাইলে সংরক্ষণ করুন ইন্টারভিউ এর আগের দিনই। ইন্টারভিউ বোর্ডে গিয়ে ফাইলটি টেবিলের উপর না রেখে নিজের হাতে রাখুন। 

মানসিক প্রস্তুতি ও পরিকল্পনা

ইন্টারভিউ যেহেতু একটা মানসিক চাপ। এটা কমবেশি সবাইকেই কিছুটা হলেও চিন্তায় ফেলে দেয়। তাই ইন্টারভিউ দিতে যাবার আগের দিন থেকে একটা মানসিক প্রস্তুতি নিজে নিজে তৈরী করুন। নিজে নিজে একটা পরিকল্পনা করুন আগামীকাল আমার সাথে কি কি ঘটতে পারে। ইন্টারভিউ এর জন্য তৈরী হওয়া, পথে যান বাহন, ইন্টারভিউ এর জায়গা, ইন্টারভিউ বোর্ড সবকিছু নিজের কল্পনার মধ্যে নিয়ে আসুন। এরপর নিজেকে প্রস্তুত করুন। এভাবে চিন্তা করলে ইন্টারভিউ এর আগে আপনার মানসিক চাপ কিছুটা হলেও কমবে।

আশা করছি উল্লেখিত টিপসগুলো কিছুটা হলেও আপনাদের কাজে লাগবে। আপনাদের সার্বিক সাফল্য কামনা করছি। চেষ্টা করুন,সাফল্য আসবেই।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

সর্বশেষ আপডেটেড অফার পেতে চান?

অর্ডিনারি আইটি কী?