অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2022/11/nur-hosen.html

নূর হোসেন দিবস ২০২২ - নূর হোসেন দিবস কবে

নূর হোসেন দিবস কবে এই বিষয় সর্ম্পকে আজকের এই আর্টিকেলে আলোচনা করা হবে। আমরা যারা বাংলাদেশের ইতিহাস সম্পর্কে ধারণা রাখি তারা নিশ্চয়ই নূর হোসেন এনাম শুনে থাকবে। নূর হোসেন দিবস নামে একটি দিবস রয়েছে যা আমরা অনেকেই জানিনা। তাই আজকের এই আর্টিকেলে আমরা নূর হোসেন দিবস কবে সম্পর্কে আলোচনা করব।

আপনি যদি শেষ পর্যন্ত আমাদের সঙ্গে থাকেন তাহলে নূর হোসেন দিবস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন। তো চলুন আর কথা না বাড়িয়ে নূর হোসেন দিবস কবে তা জেনে নেই।

কনটেন্ট সূচিপত্রঃ নূর হোসেন দিবস - নূর হোসেন দিবস কবে

নূর হোসেন দিবস - নূর হোসেন দিবস কবেঃ ভূমিকা

নূর হোসেন হলেন বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের স্মরণীয় একজন ব্যক্তিত্ব। তিনি ১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর তৎকালীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ এর স্বৈরাচারী শাসন ব্যবস্থার বিরুদ্ধে সংগঠিত গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন এবং পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছিলেন। তাই আজকে আমরা সেই নূর হোসেন দিবস নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। তো চলুন জেনে নেওয়া যাক নূর হোসেন দিবস কবে?

নূর হোসেন দিবস - শহীদ নূর হোসেন দিবস

১৯৮২ সালে একটি সেনা উত্থানের মধ্য দিয়ে ক্ষমতা গ্রহণ করেন হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদ এবং ১৯৮৭ সালের নির্বাচনে জয়লাভ করেন কিন্তু বিরোধী দলগুলো তার এই নির্বাচনকে জালিয়াতি বলে ঘোষণা করেছিলেন। যার ফলে বিরোধীদলগুলো হোসেন মোহাম্মদ এরশাদ এর বিরুদ্ধে আন্দোলনের ডাক দিয়েছিলেন।

আরো পড়ুনঃ জাতীয় ৪ নেতার নাম - জাতীয় চার নেতার নাম ও পদবী

১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর বাংলাদেশের বিরোধী দলগুলো এরশাদের পতনের লক্ষ্যে ঢাকা অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেছিলেন। কারণ বিরোধী দলের একমাত্র দাবী ছিল জাতীয় সংসদ নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নিয়ন্ত্রণে। অবরোধ কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকায় একটি মিছিল হয়েছিল যেখানে অংশগ্রহণ করেছিল নূর হোসেন।

নূর হোসেন এর বুকে এবং পিঠে সাদা রং দিয়ে লিখা ছিল "স্বৈরাচার নিপাত যাক, গণতন্ত্র মুক্তি পাক" মিছিলের এক পর্যায়ে স্বৈরাশাসক পুলিশ বাহিনীর গুলিতে নূর হোসেনসহ মোট তিনজন আন্দোলনকারী ওইখানে মৃত্যুবরণ করেছিলেন। কিন্তু যেহেতু মিছিলের মূল আকর্ষণ ছিলেন নূর হোসেন তাই ১০ নভেম্বর নূর হোসেন দিবস হিসেবে পালন করা হয়।

নূর হোসেন দিবস কবে?

বাংলাদেশ এরকম রয়েছে যে সব দিবস সম্পর্কে আমাদের মধ্যে অনেকের জানা নেই। কিন্তু আমরা যারা বাংলাদেশের ইতিহাস সম্পর্কে ধারনা রাখে তারা নিশ্চয়ই নূর হোসেন দিবস এ বিষয়টি সম্পর্কে অবগত রয়েছেন। কারণ নূর হোসেন দিবস বাংলাদেশের একটি জাতীয় দিবস গুলোর মধ্যে অন্যতম একটি। তাই আজকে দিয়ে আর্টিকেলে আমরা নূর হোসেন দিবস কবে? সে সম্পর্কে জানব।

১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর স্বৈরাশাসক তৎকালীন রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের বিরুদ্ধে বিরোধীদলগুলো আন্দোলনের ডাক দিয়েছিলেন। সেই আন্দোলনে নূর হোসেন নামে একজন ব্যক্তি অংশগ্রহণ করেছিলেন যার বুকে লিখা ছিল "স্বৈরাচার নিপাত যাক" এবং পিঠে লেখা ছিল "গণতন্ত্র মুক্তি পাক"। এই শ্লোগান গুলো লিখে তিনি মিছিলে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

আরো পড়ুনঃ বাংলাদেশের সংবিধান দিবস কবে - বাংলাদেশের সংবিধান গৃহীত হয় কবে

মিছিলের এক পর্যায়ে এসে পুলিশের গুলিতে নূর হোসেন নিহত হয়েছিল। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠন বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে নূর হোসেনের স্মরণে দিনটি পালন করা হয়। প্রতিবছর ১০ নভেম্বর নূর হোসেন দিবস পালন করা হয়।

নূর হোসেন দিবস আজ - শহীদ নূর হোসেন দিবস আজ

আজ ১০ নভেম্বর নূর হোসেন দিবস। ১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর এই দিনে নূর হোসেনসহ যুগের দুজন নেতা স্বৈরাচারীর বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে পুলিশের গুলিতে মৃত্যু বরণ করেছিলেন। তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন নূর হোসেন তার রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল ঢাকার রাজপথ নূর হোসেনের জীবনের বিনিময়ে তৎকালীন স্বৈরশাসকের বিরুদ্ধে মানুষ আন্দোলনে উৎসাহিত হয়েছিল।

নূর হোসেনের স্মরণে প্রতিবছর ১০ নভেম্বর নূর হোসেন দিবস পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামাজিক সংগঠন বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে থাকে। বিশেষ করে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে নূর হোসেন কে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয় এর সাথে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়।

১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর তৎকালীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদের বিরুদ্ধে আন্দোলনের ডাক দেওয়া হয়। সে আন্দোলনের অন্যতম সদস্য ছিলেন নূর হোসেন যিনি সেই আন্দোলনের মূল আকর্ষণ ছিলেন। তিনি তার বুকে লিখেছিলেন স্বৈরাচার নিপাত যাক এবং পিছে লিখেছিলেন গণতন্ত্র মুক্তি পাক।

তখন আন্দোলনের এক পর্যায়ে এসে স্বৈরাচারী পুলিশের গুলিতে নূর হোসেন মৃত্যুবরণ করেন তার সাথে যুবলীগের আরো দুজন নেতা নিহত হয়েছিল। তাদের সকলের স্মরণে ১০ নভেম্বর প্রতিবছর এই দিনটি পালন করা হয়। বিশেষ করে নূর হোসেন এর স্মরণে দিনটি পালন করা হয় বলে এটিকে নূর হোসেন দিবস বলে।

১০ নভেম্বর নূর হোসেন দিবস

১৯৮৭ সালের ১০ নভেম্বর বাংলাদেশের বিরোধী দলগুলো বিশেষ করে আওয়ামী লীগ এবং বিএনপি তখনকার বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ এর পদত্যাগের লক্ষ্যে আন্দোলনের ডাক দেয়। কারণ ১৯৮২ সালে একটি সেনা উত্থানের মধ্য দিয়ে হোসেন মোহাম্মদ এরশাদ ক্ষমতায় গিয়েছিলেন এবং ১৯৮৭ সালে নির্বাচনে জয়লাভ করেছিল।

কিন্তু বাংলাদেশের বিরোধীদলগুলো তারা এ নির্বাচনে জয়লাভ করাকে জালিয়াতি বলে আখ্যা দিয়েছিলেন তার বিরুদ্ধে তারা আন্দোলন শুরু করেন। সেই আন্দোলনে সাধারণ জনতা অংশগ্রহণ করেছিল তার মধ্যে অন্যতম ছিল নূর হোসেন। তিনি তার বুকে এবং পিঠে সাদা রং দিয়ে লিখে অংশগ্রহণ করেছিলেন আন্দোলনের মধ্যে।

আরো পড়ুনঃ মুক্তিযুদ্ধে জাতীয় চার নেতার ভূমিকা

মিছিলের এক পর্যায়ে স্বৈরশাসক পুলিশের গুলিতে নূর হোসেন নিহত হয়। সেইদিন নূর হোসেনের রক্তে ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত হয়েছিল। যার ফলে ওই আন্দোলনের ধারাবাহিকতায় ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর জেনারেল হোসেন মোহাম্মদ এরশাদ পদত্যাগ করেন। যার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের স্বৈরাচারী সরকারের অবসান ঘটে এবং বাংলাদেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠাত হয়।

যেহেতু স্বৈরাচারী আন্দোলনের অন্যতম আকর্ষণ ছিলেন নূর হোসেন তাই প্রতিবছর ১০ নভেম্বর শ্রদ্ধাভরে তাকে স্মরণ করা হয়। তার নাম অনুযায়ী ১০ নভেম্বর নূর হোসেন দিবস পালন করা হয়। আশাকরি নূর হোসেন দিবস কি এবং কখন পালন করা হয় এ বিষয়ে সম্পর্কে সম্পূর্ণ ধারণা পেয়েছেন।

তথ্যঃ 

নূর হোসেন দিবস - নূর হোসেন দিবস কবেঃ উপসংহার

নূর হোসেন দিবস কবে? নূর হোসেন দিবস আজ এ সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে ওপরে আলোচনা করা হয়েছে। আশা করি আপনি আমাদের এই আর্টিকেল থেকে উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। আপনাকে উক্ত বিষয়গুলো সম্পর্কে ধারণা দিতে পেরে আমরা আনন্দিত। আপনার এবং আপনার পরিবারের সুস্থতা কামনা করে আজকের মত এখানেই শেষ করছি ধন্যবাদ।২০৮৭৬

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?