অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2021/12/31st-night.html

থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস - থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে

আজকে আলোচনা করব থার্টি ফার্স্ট নাইট কি? থার্টি ফার্স্ট নাইট অর্থ কি? থার্টি ফার্স্ট নাইট উইকিপিডিয়া এবং থার্টি ফার্স্ট নাইট ও ইসলাম। আরো আলোচনা করব, থার্টি ফার্স্ট নাইটের ইতিহাস, থার্টি ফার্স্ট নাইট হারাম, থার্টি ফার্স্ট নাইট স্ট্যাটাস এবং 31 ডিসেম্বর এই দিনে করণীয়।


আর মাত্র কয়েকদিন বাকি থার্টি ফার্স্ট নাইট এর। বছরের শেষ এলেই আমরা এই উৎসবের কথা সকলেই শুনতে পাই। কিন্তু আমরা সবাই কি থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস সম্পর্কে জানি। বা থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে? আমাদের সকলকে বছরের শেষের এই উৎসব সম্পর্কে জানা উচিত। দেশ-বিদেশ এমনকি বিশ্বের সকল দেশে 31 ডিসেম্বর এই দিনে উৎসবমুখরিত থাকে।

পোস্ট সূচিপত্র: থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস | থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে?

থার্টি ফার্স্ট নাইট কি? 

থার্টি ফার্স্ট নাইট হল খ্রিস্টীয় বা গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার হিসেবে 31 ডিসেম্বর দিবাগত রাত। অর্থাৎ পহেলা জানুয়ারির প্রথম প্রহর। 31 ডিসেম্বর এই দিনে রাত 12 টার পর থেকে সারাবিশ্বে শুরু হয়ে যায় উৎসবমুখর পরিবেশ। নতুন বছরকে বরণ করতে পালন করা হয় নানা ধরনের অনুষ্ঠান, আতশবাজি, নাচ ও নিত্য ইত্যাদি। কিন্তু কিছু মুসলমান রাষ্ট্রে এই দিনটি পালিত হয় না। যেমন ইসরাইল, সৌদি আরব, নেপাল, ইথিওপিয়া ও আফগানিস্তান এই দেশগুলো খ্রিস্টীয় ক্যালেন্ডার অনুসরণ করলেও থার্টি ফার্স্ট নাইট পালন করে না। 31 ডিসেম্বর এই দিনকে বলা হয় নিউ ইয়ার ইভ। মূলত এই দিনটি নতুন বছরকে বরণ করার জন্য পালন করা হয়। থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস থেকে জানা যায় ১৭৫২ সাল থেকে ইংরেজি নববর্ষ পরিচালিত হয়। কেনো মুসলমান রাষ্ট্রে এই অনুষ্ঠান পালিত হয় না এবং থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে এ সম্পর্কে পরবর্তীতে আমরা এ সম্পর্কে জানতে পারবো। 

থার্টি ফাস্ট নাইট অর্থ কি?

থার্টি ফার্স্ট নাইট ইংরেজি শব্দ। থার্টি অর্থ ত্রিশ। ফার্স্ট অর্থ প্রথম এবং নাইট অর্থ রাত। অর্থাৎ থার্টি ফাস্ট নাইট অর্থ একত্রিশ এর রাত। ইংরেজি নতুন বর্ষকে বরণ করার লক্ষে এই দিবস পালন করা হয়। বিভিন্ন দেশে এই দিনটিতে পাবলিক হলিডে পালন করা হয়। বিভিন্ন ধরনের উৎসবের পালনের মাধ্যমে মুখরিত করা হয় এই দিনটি। খ্রিস্টীয় ক্যালেন্ডার অনুসারে এই দিবস পালন করা হয়। এই রাত পেরোতেই নতুন বছরের সূর্য উঠে। নতুন বছরের প্রথম দিনটি পুরনো দিনগুলোর স্মরণার্থে এবং নতুন দিনগুলোকে আগমন জানতে পালন করা হয়। থার্টি ফার্স্ট নাইটকে নিউ ইয়ার ইভও বলা হয়। 

থার্টি ফার্স্ট নাইট উইকিপিডিয়া: থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস|থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে?

থার্টি ফার্স্ট নাইট উইকিপিডিয়া বলতে এখানে আমরা আলোচনা করব থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস থেকে উল্লেখযোগ্য কয়েকটি দিক নিয়ে। যে বিষয়গুলো আপনাকে থার্টি ফার্স্ট নাইট সম্পর্কে বিশদ তথ্য দেবে। গ্রেগরীয় বা খ্রিস্টীয় বর্ষপঞ্জী অনুসারে বছরের শেষ দিন অর্থাৎ 31 ডিসেম্বরের এই দিনে থার্টি ফার্স্ট নাইট পালন করা হয়। মানে দিবাগত সন্ধ্যাকে বুঝানো হয়। প্রাশ্চাত্যের অনেক দেশে এই দিবসকে সাধু সিলভেস্টার দিবস বলা হয়। 

এই দিনে বিশ্বের সকল মানুষ বন্ধুবান্ধব বা পরিবারের সাথে সামাজিক অনুষ্ঠানে যোগদান করে। নাচ-গান, খাওয়া-দাওয়া, আতশবাজি ইত্যাদির মাধ্যমে উৎসবকে মুখরিত করে তোলে‌।‌ নববর্ষের মধ্যরাত থেকে উদযাপিত হওয়া অনুষ্ঠান গুলি পহেলা জানুয়ারির ভোর পর্যন্ত পালিত হয়। এই দিনে ইংরেজী ভাষাভাষী দেশগুলোতে অল্ড ল্যান্ড জাইন (Auld Lang Syne) নামে একটি স্মৃতিবিদুরমূলক গান গাওয়া হয়। বাংলাদেশের এটি পুরনো সেই দিনের কথা নামে রবীন্দ্র সংগীত হিসেবে অনুদিত হয়েছে। খ্রিস্টীয় প্রাক্কাল দিবস হলেও গণমাধ্যমে প্রচার এর সুবাদে বর্তমানে বিশ্বে প্রায় সবকটি দেশেই এই দিবস পালিত হয়। বাংলাদেশেও এই দিবস থার্টি ফার্স্ট নাইট হিসেবে পরিচিত। 

থার্টি ফার্স্ট নাইটের ইতিহাস

এই থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস অনেক বিরল। খ্রিস্টপূর্ব ৪৬ সালে জুলিয়াস সিজার এর হাত ধরে সর্বপ্রথম ইংরেজি নববর্ষ উদযাপিত হয়। পরবর্তীতে পারস্য সম্রাট জমশিদ খ্রিস্টপূর্ব ৮০০ সালে এই নওরোজের প্রচলন করেন। এই ধারাবাহিকতায় পারস্যে এখনো নওরোজ ঐতিহ্যগত জাতীয় উৎসব পালন করা হয়। তারপর পারস্য হতে ধীরে ধীরে বাহিত হয়ে মধ্যপ্রাচ্যে, মুসলিম দেশ ও ভারতসহ বিভিন্ন দেশে এই উৎসব পালিত হয়। কিন্তু বিভিন্ন দেশে নির্দিষ্ট নিয়ম অনুযায়ী এই উৎসব পালন করা হয়। ব্যাবিলনিয়ায় নববর্ষ শুরু হতো মহাবিষুবের দিন 20 মার্চ। গ্রীকদের নববর্ষ শুরু হতো খ্রিস্টপূর্ব পঞ্চম শতাব্দি পর্যন্ত 21 ডিসেম্বর। এভাবে বিভিন্ন রীতিনীতি অনুযায়ী পালন করা হতো নববর্ষ। এই সব তথ্য থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস থেকে পাওয়া যায়।  

পরবর্তীতে খ্রিস্টীয় রীতি অনুযায়ী সারাবিশ্বে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুযায়ী 31 ডিসেম্বর এই দিনে নববর্ষ পালন করা হয়। শুধুমাত্র মুসলিম দেশগুলো ব্যতিরেকে। ইংরেজি সাল গননার বিষয়টি ইংরেজদের আবিষ্কার নয়। একটি গ্রেগরিয়ান বা খ্রিস্টানদের আবিষ্কার। তাই এটিকে ইংরেজি নববর্ষ নয় গ্রেগরিয়ান নববর্ষ বলা হয়। 1752 সালে ইংরেজরা ১লা জানুয়ারিকে ইংরেজি নববর্ষ হিসেবে পালন করে। থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস থেকে বোঝা যায় এটি গ্রেগরিয়ান নববর্ষ। 

থার্টি ফার্স্ট নাইট ও ইসলাম

বর্তমানে বিশ্বের সব দেশেই এই উৎসব পালিত হলেও মুসলমান দেশে 31 ডিসেম্বর এই দিনে উৎসব পালিত হয় না। বছরের শেষ রাতে মধ্যরাত থেকে এই উৎসব পালন করা খ্রিস্টীয় সংস্কৃতি। ইসলামে এই উৎসবকে অবৈধ বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এখনই আমরা জানতে পারবো থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে এ সম্পর্কে? অন্য কোন ধর্মের রীতিনীতি বা উৎসব পালন করা মুসলমানদের জন্য বৈধ নয়। যেহেতু এই উৎসব খ্রিস্টীয় সংস্কৃতি থেকে এসেছে। তাই 31 ডিসেম্বর এই দিনে থার্টি ফার্স্ট নাইট উৎসবটি পালন করা মুসলমানদের জন্য নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। প্রত্যেক মুসলমানের জানা উচিত থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে এ সম্পর্কে?

আল্লাহ তা'আলা কুরআনের মাধ্যমে এ সম্পর্কে জানিয়েছেন। আল্লাহ তা'আলা বলেন,' যে ব্যক্তি ইসলাম(ইসলামী রীতিনীতি) ছাড়া অন্য কোন ধর্ম অনুসরণ করবে কখনো তার সেই আমল গ্রহণ করা হবে না। পরকালে সে ক্ষতিগ্রস্তদের অন্তর্ভুক্ত হবে।' (সূরা আল-ইমরান, আয়াত: ৮৫). রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,' যে ব্যক্তি অন্য জাতের আচার-আচরনে, সভ্যতা সংস্কৃতিতে সামাঞ্জস্য করবে সে ঐ দলের অন্তর্ভুক্ত বলে বিবেচিত হবে।' (আবু দাউদ). শুধুমাত্র বিজাতীয় সংস্কৃতি নয়, মুশরিকদের সাহায্যও গ্রহণ করতেন না আমাদের নবী। অন্য একটি হাদীসে এসেছে, হযরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণিত, ' এক মুশরিক বিশ্ব নবীর কাছে এসে যুদ্ধে অংশগ্রহণ করার ইচ্ছা প্রকাশ করলে। নবী বললেন, 'তুমি ফিরে যাও। আমরা মুশরিকদের সাহায্য চাই।' 
কারণ প্রত্যেক ধর্মেরই রয়েছে নির্দিষ্ট রীতি- নীতি ও করণীয়। তাই মুসলমান ধর্মেরও রয়েছে সুনির্দিষ্ট দিক-নির্দেশনা। কোন মুমিন কখনো বিজাতীয় সংস্কৃতি পালন করতে পারে না। ইসলামিক স্কলার্সরা কোরআন এবং হাদীসে এ বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন। তাই উনারা ইসলামে এই উৎসবকে অবৈধ বলে ঘোষণা করেছেন।

থার্টি ফার্স্ট নাইট হারাম: থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে?

দেখুন থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে এ সম্পর্কে?ইসলামে থার্টি ফার্স্ট নাইট হারাম বলে ঘোষণা করা হয়েছে। ডিসেম্বর এই দিনে রাত বারোটার পর থেকে নববর্ষ উদযাপনের নামে নানা রকম নাচ, গান, আতশবাজি করা হয়। অনুষ্ঠানগুলোতে মদ্যপান করার ব্যবস্থা থাকে। তাছাড়া এই দিনে নগ্ন হয়ে ছবি তোলা ও নাচ গান করা হয়। থার্টি ফার্স্ট নাইট স্ট্যাটাস হিসেবে এগুলো আপলোড করা হয়। যেগুলো যুব সমাজকে ধ্বংসের পথে পরিচালিত করে। যেই মধ্যরাতে এই অনুষ্ঠান পালন করা হয় তখন মুসলমানদের তাহাজ্জুদের সময়। এইসময় আল্লাহতালা নিজে বান্দাদেরকে ইবাদতের জন্য ডাকেন। উনার কাছে সাহায্য, ক্ষমা চাওয়ার জন্য বলেন। এই গুরুত্বপূর্ণ সময় মুসলমানদের জন্য নাচ-গানে মগ্ন থাকা ইহকাল এবং পরকালের জন্য ক্ষতিকারক। যেহেতু 31 ডিসেম্বর এই দিনের অনুষ্ঠানের প্রতিটি কাজ মুসলমানের জন্য নিষিদ্ধ। তাই থার্টি ফার্স্ট নাইট হারাম ঘোষণা করা হয়েছে। শুধুমাত্র তাই নয় থার্টি ফার্স্ট নাইট স্ট্যাটাস দেওয়া নিষিদ্ধ। 

শেষ কথা: থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস|থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে?

আমাদের আজকের পোস্ট থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস এবং থার্টি ফার্স্ট নাইট ইসলাম কি বলে? পড়ে নিশ্চয়ই উপকৃত হয়েছেন। জানতে পেরেছেন থার্টি ফার্স্ট নাইট এর ইতিহাস এবং কেনো ইসলামে থার্টি ফার্স্ট নাইট পালন করা বৈধ নয়। আমরা যারা মুসলমান আছি তারা নিশ্চয়ই 31 ডিসেম্বর এই দিনে অনুষ্ঠান থেকে বিরত থাকতে হবে। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়াতে থার্টি ফার্স্ট নাইট স্ট্যাটাস দেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। কারণ এটি আমাদের আল্লাহ এবং নবীর নির্দেশ। আমাদের অবশ্যই ইহকালের জীবন নবী রাসূলের নির্দেশ মতোই পরিচালিত করতে হবে। আর যদি আমাদের পোস্টটি পড়ার পর আপনার কোন প্রশ্ন থেকে থাকে তাহলে কমেন্ট বক্সে অবশ্যই জানাবেন। এবং শেয়ার করে আমাদের সকল মুসলমান ভাই ও বোনকে এই বিষয়ে অবগত করবেন। 

পরিচিতদেরকে জানাতে শেয়ার করুন

1 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?