অর্ডিনারি আইটি https://www.ordinaryit.com/2021/10/facebook-business.html

ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম ২০২১ (৬ ধাপে)

 

বর্তমানে ফেসবুক বা যেকোনো সোশ্যাল মিডিয়াতে গেলে আপিনি দেখতে পাবেন বিভিন্ন রকমের দৈনন্দিন ব্যবহারকৃত প্রয়োজনীয় জিনিসের ক্র‍য় বিক্রয়ের সমারোহ। এসব দেখে আপনার ফেসবুকে ব্যবসা করার ইচ্ছা জাগলো? কিন্তু আপনি জানেন না ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম? চিন্তা করছেন ফেসবুক অনলাইন ব্যবসা কিভাবে শুরু করবেন? আপনার ইচ্ছা জাগছে ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা করার? চলুন তাহলে দেরি না করে পোস্টটি পড়া শুরু করুন। কেননা, পোস্টটি পড়লে আপনি ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম, ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা এবং ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা সংক্রান্ত সকল তথ্য। 

ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা করার জন্য আপনার কি লাগতে পারে তা রয়েছে এই পোস্টে। এছাড়া আরো জানতে পারবেন ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম সংশ্লিষ্ট সকল তথ্য। এখানে উদাহারণ হিসেবে ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা নিয়ে আলোচনা করা হবে। তাহলে নিশ্চয় বুঝতে পারছেন যারা ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা করবেন এরকম ভাবছেন তাঁদের জন্য পোস্টটি কত গুরুত্বপূর্ন। চলুন বিস্তারিত শুরু করার আগে সূচিপত্র একবার দেখে নিই কি কি থাকছে আজকের এই পোস্টেঃ

ফেসবুক অনলাইন ব্যবসা - কিভাবে অনলাইন ব্যবসা শুরু করব 

বর্তমান বিশ্বে ই-কমার্স নামে কম বেশি সবাই জ্ঞাত। আর সেই ই- কমার্স ব্যবসা করার প্ল্যাটফর্ম যদি হয়ে থাকে ফেসবুক তাহলে সেটিকে বলা হবে এফ-কমার্স ব্যবসা। যাইহোক, এই করোনা মহামারিতে কোনো কিছুই কিন্তু থেমে থাকেনি। আপনার দৈনন্দিন জীবনের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের কিন্তু প্রয়োজন হয়েছে। কিন্তু লকডাউন থাকায় আপনাকে একধরনের চিন্তার প্রহর কাটাতে হয়েছে আপনি কিভাবে কেনা কাটা করবেন আপনার প্রয়োজনীয় জিনিস। এরকম একটা সময়ে আপনার সবচেয়ে বেশি পাশে ছিল অনলাইন প্ল্যাটফর্ম। আর এখন কম বেশি সবাই ফেসবুক ব্যবহার করে থাকেন। আর ফেসবুক এর মাধ্যমেই যদি আপনি আপনার প্রয়োজনীয় পছন্দের জিনিস কিনতে পারেন ঘরে বসে তাহলে তো আর কোন কথাই নেই।এরকম চিন্তা ভাবনা থেকে আপনার ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা করার চিন্তা মাথায় আসলো। ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা করতে হলে কি কি প্রয়োজন তা দেখে নিনঃ

ফেসবুকে ব্যবসা করার জন্য আপনার কিছু স্কিল থাকতে হবেঃ

১। আপনার কমিউকেশন স্কিল ভালো হতে হবে

২। আপনার ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা সম্পর্কে ভালো জ্ঞান থাকতে হবে। 

৩। আপনাকে প্রযুক্তিগত ভাবে দক্ষ হতে হবে

৪। এবং সবচেয়ে প্রয়োজনীয় হলো আপনাকে পরিশ্রমী হতে হবে। 

ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম - অনলাইনে ব্যবসা করার নিয়ম

ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়মগুলো যদি আপনি মেনে চলেন তাহলে আপনার সফলতা নিশ্চিত। ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়মগুলো মেনে চলার আগে আপনাকে ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা করার জন্য কিছু জিনিস জেনে নিতে হবে।

স্প্রেডশিটঃ

স্প্রেডশিট হচ্ছে গুগলের এক্সেল শিট এর মত। আপনি স্প্রেডশিটে যা এ ইনপুট করবেন না কেন তা আপনার গুগলে সেভ হতে থাকবে আজীবনের জন্য। আপনি যখন ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা শুরু করবেন তখন আপনি আপনার কাস্টমারের সকল তথ্য স্প্রেডশিটে লিখে রাখবেন। আপনার এই তথ্যগুলো সারাজীবন কাজে লাগবে যদি আপনি ব্যবসা লাইনে থাকতে চান। স্প্রেডশিট সবচেয়ে বেশি কাজে লাগবে যখন আপনি নতুন একটি প্রোডাক্ট নিয়ে আসবেন বিক্রয় করার জন্য। আপনি তখন স্প্রেডশিট থেকে পুরানো কাস্টমারদের ফোন নাম্বার বা মেসেঞ্জারে আপনার নতুন প্রোডাক্টটি নিয়ে অবগত করবেন। এতে করে আপনার মার্কেটিং ও হয়ে যাবে। 

ট্রেড লাইসেন্সঃ 

ট্রেড লাইসেন্স হচ্ছে সরকারের যেকোনো কর্তপক্ষ কতৃক আপনার ব্যবসা করার জন্য অনুমতি প্রদান করবে যার কারনে আপনি ব্যবসা করার জন্য বৈধতা পাবেন। ট্রেড লাইসেন্স করতে অনেক ঝামেলা মনে হলেও আপনি যদি একবার ট্রেড লাইসেন্স করিয়ে নেন তাহলে আপনার নিজের মাঝেই ব্যবসা করার জন্য একধরনের উত্তেজনা তৈরি হবে। আপনি নিজেকে ফেসবুকে অনলাইনে ব্যবসা করার বুস্ট করতে পারবেন ট্রেড লাইসেন্স করার মাধ্যমে। তবে এজন্য আপনাকে আরো ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম মেনে চলতে হবে। 

ডেলিভারি পার্টনারঃ 

যখনি আপনি ফেসবুকে অনলাইনে ব্যবসা করার প্ল্যান করবেন সেটা ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা হোক বা অন্য যেকোনো কিছু হোক তখন আপনার মাথায় আরেকটি চিন্তা আসবে সেটি হলো আপনাকে আপনার পণ্যটি গ্রাহকের হাতে সুষ্ঠভাবে তুলে দিতে হবে । আর এজন্য আপনাকে একটি ডেলিভারি সংগঠনের সাথে আপনাকে চুক্তি করতে হবে যার দ্বারা ডেলিভারি সংগঠন এবং আপনি দুজনই লাভবান হন। 

ডিজিটাল মার্কেটিংঃ  

আপনার ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা তত বেশি লাভবান হবে আপনি যত বেশি আপনার ফেসবুকে বাপড়ের ব্যবসার ডিজিটাল মার্কেটিং করতে পারবেন। এজন্য আপনাকে দক্ষ হতে হবে পেজবুক গ্রুপ , ফেসবুক পেজ চালানোর ক্ষেত্রে। কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং করলে আপনার অনলাইনে কাপড়ের ব্যবসাতেবেশি সফলতা আসবে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। 

আরো পড়ুনঃ ২০২১ সেরা ডিজিটাল মার্কেটিং অনলাইন কোর্স ইন বাংলাদেশ

যেমনঃ আপনি যে পোস্ট করবেন তখন ক্যাপশনে লিংক ব্যবহার না করে কমেন্ট সেকশনে লিংক ব্যবহার করবেন। আপনি যখনি আপনার পণ্য সংক্রান্ত পোস্ট বা ভিডিও আপলোড করবেন তখন ফেসবুকে অনলাইন থাকার চেষ্টা করবেন। তখনি চেষ্টা করবেন কমেন্টের রিপ্লাই দিতে এবং বেশি বেশি আপনার পোস্টটি বিভিন্ন গ্রুপে বা পেজে শেয়ার দিতে। আপনারা হয়তো ফেসবুকে অনলাইনে ব্যবসা করার একটি জিনিস নিয়ে বিরক্ত। 

সেটি হলো প্রায় অনেক পেজে দেখা যায় পেজে যদি পণ্যের দাম জিজ্ঞেস করা হয় তাহলে কতৃপক্ষ রিপ্লাই দেন “ইনবক্স প্লিজ”। কিন্তু এটা ফেসবুকে ব্যবসা করার একটি নিয়ম। এতে করে গ্রাহকের সাথে বিক্রেতার এনগেজমেন্ট বাড়ে। প্রোডাক্ট নিয়ে ইনবক্সে গ্রাহক বিস্তারিত জেনে কিনতে পারেন। 

কমিউনিটিঃ 

ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসাতে সফলতা পেতে হলে এটা আরেকটি বড় ট্রিক্স বা ফেসবুক ব্যবসার নিয়ম। ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা করার ক্ষেত্রে আপনাকে ফেসবুক পেজে থেকে ফেসবুক গ্রুপের প্রতি বেশি জোর দিতে হবে। কারণ, পেজ হলো একতরফা। ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম অনুসারে এখানে শুধু আপনি আপনার প্রোডাক্ট নিয়ে কথা বলবেন। কিন্তু অন্যদিকে , ফেসবুক গ্রুপ খুললে সেখানে আপনি ছাড়াও আরো অনেকে পোস্ট দিবে এতে করে এনগেজমেন্ট বাড়বে এবং আপনার বিক্রি ও বাড়বে।

আশা করি উপরোক্ত ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়মগুলো মেনে চললে আপনার ব্যবসায় একদিন জয় আসবে।

ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা - ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা

ফেসবুকে অনেক রকমের ব্যবসা দেখা যায় কিন্তু তার মধ্যে অন্যতম হলো ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা। আপনি যখনি ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা করার চিন্তা করবেন তখনি নিজেকে প্রশ্ন করবেন আপনার পণ্যটি এমনকি স্পেশাল রয়েছে যার জন্য ক্রেতা আপনার প্রোডাক্টটি পছন্দ করবেন। এই প্রশ্নের উত্তরটি যদি আপনি সঠিকভাবে নিজেকে দিতে পারেন তাহলে আপনার ব্যবসায় একদিন সফলতা আসবে। ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা করার জন্য আপনাকে ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা নিয়ে একটি গ্রুপ খুলতে হবে যেখানে আরো যারা ফেসবুকে কাপরের ব্যবসা করে তারা যুক্ত হতে পারে। আপনাকে একজন ডেলিভারি পার্টনার ঠিক করতে হবে যে আপনার পণ্যটি ক্রেতার বাসায় গিয়ে দিয়ে আসবে । আপনাকে একটি ভার্চুয়াল টিম খুলতে হবে। এই ভার্চুলায় টিমে থাকবে মার্কেটিং সেক্টর পরিচালনার জন্য একজন। একজন থাকবে কাস্টমার হ্যান্ডেল করার জন্য। 

এরকম একটি ভার্চুয়াল টিম খুললে আপনার অনেক সময় বাচবে এবং আপনি আপনার পণ্য এর দিকে আরো বেশি মনোযোগ দিতে পারবে। ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা করার সময় আপনি যদি অনেক রকমের কাপড়ের কালেকশন না করে স্পেসিফিক একটি পণ্যকে বিভিন্ন ভাবে উপস্থাপন করে আপনার ইকোনমি অব স্কেল বাড়াতে পারেন তাহলে আপনার ফেসবুকে কাপড়ের ব্যবসা অনেক লাভজনক হয়ে উঠবে আপনার জন্য। 

আশা করি ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা করার নিয়ম সংক্রান্ত সকল চিন্তা দূর হয়েছে। এছাড়া আরো যদি কিছু জানার থাকে তাহলে কমেন্ট সেকশনে জানাবেন।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

অর্ডিনারি আইটি কী?