Ordinary IT https://www.ordinaryit.com/2019/09/image-processing-data-mining.html

ইমেজ প্রসেসিং এবং ডাটা মাইনিং কী? বিস্তারিত


আপনাদের  অনেকেরই  ইমেজ প্রসেসিং এবং ডাটা মাইনিং সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারণা রয়েছে। আসলে ইমেজ প্রসেসিং হলো অনেকগুলো ছবির সমন্বয়ে তৈরি একটি ভিডিওর সমষ্টি । যার সাহায্যে অদৃশ্য বস্তুগুলোকে পর্যবেক্ষণ করা ও  পুরনো ইমেজকে নতুন করে তোলা সম্ভব হয় ।  আসুন জেনে নিই ইমেজ প্রসেসিং এবং ডাটা মাইনিং সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু তথ্যঃ-

ইমেজ কী ?

ইমেজ কী তা প্রায় আমরা সবাই জানি । সাধারণ অর্থে, ইমেজ মানে ছবি আর ছবি মানে ইমেজ । কিন্তু এখানে আমরা যে বিষয় নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি তা হলো ইমেজ প্রসেসিং, এক্ষেত্রে ইমেজ এর অর্থ কিছুটা আলাদা হবে ।
ইমেজ হলো দ্বিমাত্রিক এ্যারে । আর ডিজিটাল ইমেজ হচ্ছে কিছু বাইনারি ইনফরমেশনের সমষ্টি যেখানে তথ্যগুলো সারি আর কলাম আকারে সাজানো থাকে । একটি কালার ইমেজের মধ্যে তিনটি তথ্য থাকে । যেমন - লাল , নীল , সবুজ । ইমেজের বিভিন্ন পয়েন্টে কালার লেভেলের এই  ইনফরমেশন গুলো থাকে । একটি ৮ বিট ইমেজের লেভেল হতে পারে ০ থেকে ২৫৫ পর্যন্ত ।

কেন ইমেজ কে প্রসেসিং করা দরকার ?

কোনো ইমেজকে প্রসেসিং করার পূর্বে চলুন জেনে নিই যে ইমেজ প্রসেসিংটা আসলে কী ? ইমেজ প্রসেসিং হচ্ছে ডিজিটাল ভিডিওর ফ্রেম । অর্থাৎ , একটি ফ্রেম বা কতকগুলো ছবির সমন্বয়ে তৈরি/বানানো ভিডিওর সমষ্টিকেই ইমেজ প্রসেসিং বলে । ইমেজ প্রসেসিংয়ে একটি ছবি ইনপুট হিসেবে দিলে আউটপুট হিসেবে আরেকটি ছবি আসে । ইনপুট ও আউটপুটের মাঝের জায়গাতেই এ প্রসেসিং এর কাজটি হয়ে থাকে । চলুন উদাহরণের মাধ্যমে বিষয়টি ক্লিয়ার করা যাক , ধরুন আপনি কক্সবাজারে ঘুরতে গিয়েছেন । সেখানে গিয়ে আপনার সবচেয়ে ভালো লাগলো সমুদ্রের ঢেউ । তা আপনি আপনার  সবচেয়ে কাছের একটা বন্ধুকে জানালেন অর্থাৎ বর্ণনা করলেন যে ঢেউয়ের আওয়াজ কেমন ছিলো । অন্যদিকে আপনার কথা শুনে আপনার বন্ধু সে জায়গা/ঢেউ সম্পর্কে যে প্রতিচ্ছবি তৈরি করলেন সেটাই হচ্ছে ইমেজ প্রসেসিং ।
এবার আসা যাক যে , ইমেজকে কেনো প্রসেসিং করা দরকার ? দৃশমান নয় এমন বস্তুগুলোকে পর্যবেক্ষণ করতে এবং প্রায় নষ্ট হয়ে যাওয়া ইমেজ গুলোকে পুনরায় নতুন করে তুলতে প্রসেসিংয়ের দরকার হয় ।

ইমেজ প্রসেসিং আবার দুই ধরণের হয়ে থাকে । যথা -

১। এ্যানালগ  ইমেজ প্রসেসিং ২। ডিজিটাল ইমেজ প্রসেসিং ।

এ্যানালগ ইমেজ  প্রসেসিংঃ-

এ্যানালগ ইমেজ প্রসেসিং কে ভিজুয়াল টেকনিক ও বলা হয় । কম্পিউটারের বিভিন্ন ধরণের হার্ডকপি যেমনঃ প্রিন্টআউট , ফটোগ্রাফের কাজে এই টেকনিক ব্যবহার করা হয় ।

ডিজিটাল ইমেজ প্রসেসিংঃ-

ডিজিটাল ইমেজ প্রসেসিং বলতে একটি ইমেজ কে দক্ষতার সাথে কম্পিউটারের মাধ্যমে প্রসেসিং করার টেকনিককে বোঝায় । ডিজিটাল ইমেজ প্রসেসিং এর উদাহরণ হিসেবে বলা যায় , চাঁদ , সূর্য , তারা ইত্যাদি । যেগুলো আমরা কম্পিউটারে প্রসেসিং না করলে ভালোভাবে বুঝতেই পারতাম না ।

ডাটা মাইনিং কী ?

ডাটা মাইনিং হলো ডাটা বিশ্লেষণের মাধ্যমে সমস্যা সমাধান করার জন্য নিদর্শন সরূপ । অন্যদিকে সম্পর্ক স্থাপন করার জন্য বৃহৎ ডাটা সেটগুলো সাজানোর প্রক্রিয়া । ডাটা মাইনিং এর মূল লক্ষ্য বা উদ্দেশ্য হলো ডাটা ভান্ডারের মধ্য থেকে নির্দিষ্ট ডাটা খুঁজে বের করা এবং প্রয়োজনীয়/কাংক্ষিত কাজের জন্য উপযোগী করে তুলতে ডাটাকে শ্রেণীবদ্ধ বা উপস্থাপন করা । বিভিন্ন ইউজার বা ব্যবহারকারীর গুরুত্বপূর্ণ কিছু তথ্য কোথায় আছে , কিভাবে আছে তা খুঁজে বের করে গন্তব্য স্থানে পৌঁছে দেওয়ার কাজটিই মূলত করে থাকে ডাটা মাইনিং ।

ডাটা মাইনিং একটি সংযোজন প্রক্রিয়া কীভাবে ?

কম্পিউটার প্রযুক্তিতে ডাটা মাইনিং হলো অপেক্ষাকৃত একটি নতুন সংযোজন পদ্ধতি । ডাটা মাইনিং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা , পরিসংখ্যান ও ডাটাবেজ ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের সমন্বয়ে গঠিত একটি কম্পিউট বা গণনা প্রক্রিয়া । এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অসংখ্য ডাটা আবিষ্কার করা সম্ভব। তাছাড়া একাধিক ডাটার মধ্যে লুকিয়ে থাকা মূল্যবান ডাটা খুঁজে বের করতে ডাটা মাইনিং এর প্রয়োজন ।

ডাটা মাইনিং কীভাবে কাজ করে ?

মূলত ডাটা মাইনিং গণনা পদ্ধতিতে কাজ করে থাকে । এছাড়া পরিসংখ্যান  ও কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা প্রয়োগের ফলে বিপুল পরিমাণ তথ্য / উপাত্ত থেকে নতুন প্যার্টান আবিষ্কারের কাজটি করা হয় ডাটা মাইনিং এর মাধ্যমে । এ কাজটি করতে বিশেষ ভাবে সহায়তা করে থাকে ডাটাবেজ ( ডিবিএমএস ) ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি । এই পদ্ধতিতে অত্যন্ত দ্রুত গতিতে ও নির্ভুলভাবে কাজ করা হয়ে থাকে ।
আমি মনে করি , যে উক্ত আর্টিকেলটি অর্থাৎ ইমেজ প্রসেসিং এবং ডাটা মাইনিং সম্পর্কে আপনাদেরকে একটি সুন্দর ধারণা দিতে পেরেছি । যদি এ আর্টিকেলের মাঝের কোনো অংশ আপনাদের পড়তে বা বুঝতে অসুবিধা হয়  তাহলে অবশ্যই মন্তব্য করে জানাবেন ।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

সর্বশেষ আপডেটেড অফার পেতে চান?

অর্ডিনারি আইটি কী?