Ordinary IT https://www.ordinaryit.com/2019/09/android-phone-hack.html

অ্যান্ড্রয়েড ফোন হ্যাক হবার ১৫টি লক্ষণ


অ্যান্ড্রয়েড ফোন হ্যাক বা যে কোন স্মার্ট ফোন হ্যাকের ব্যাপারটি এখনও খুব বেশি ভয়াবহ রুপ নেয় নি। তবে একবার ভাবুন তো সকালে ঘুম থেকে উঠে দেখলেন আপনার ফোনটি আজব আচরণ করছে। আপনি ফোনের লক খুলতে পারছেন না, কিংবা আপনার কিছু ফোল্ডার বা অ্যাপস লক হয়ে গিয়েছে বা কাজ করছে না বা খুঁজে পাচ্ছেন না। কোন কারণ ছাড়াই ফোন হ্যাং হয়ে যাচ্ছে, অল্পতেই খুব গরম হয়ে যাচ্ছে। আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অ্যাকাউন্ট গুলো সহ ব্যাংক অ্যাকাউন্টটিও কাজ করছে না। হঠাত একটা ফোন আসলো বন্ধুর কাছ থেকে আর সে জানালো যে আপনার সামাজিক অ্যাকাউন্ট থেকে অদ্ভুত সব ম্যাসেজ সবার কাছে যাচ্ছে যা খুব লজ্জাজনক। সাথে আরেকটি ম্যাসেজ পেলেন আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট শুন্য! কেমন অবস্থা হবে বলুন তো? তাহলে কি  আপনার ডিভাইসটি হ্যাক হয়েছে? পাঠক তাহলে চলুন জেনে নিই কিভাবে বুঝবেন আপনি হ্যাকিং এর শিকার হয়েছেন।

অটোম্যাটিক রিস্টার্ট, অন/অফ, অ্যাপ ওপেন

যদি কখনো দেখেন আপনার ফোনটি নিজে থেকেই অফ/অন, রিস্টার্ট, অথবা অ্যাপ ওপেন করছে তাহলে ভাববেন না যে আপনার ফোনকে ভুতে ধরেছে। এটা একটা ক্লিয়ার চিহ্ন যে আপনি হ্যাকিং এর শিকার।

কারণ ছাড়াই ফোন গরম

আপনি কোন কাজ করছেন না ফোন দিয়ে। এমন কি আপনি কল অথবা টেক্সট কিছুই করছেন না। এমন কোন কাজ ছাড়াই ফোন নিজে থেকে গরম হয়ে যাচ্ছে, এর মানে হলো আপনি হ্যাকার দ্বারা ভাইরাস আক্রান্ত। আপনার ব্যাকগ্রাউন্ড থেকে খুব ভারী অ্যাপ গুলো রান করে তথ্য সরাচ্ছে তাই ফোন গরম হয়ে উঠছে।

অজ্ঞাত অ্যাপের উপস্থিতি

মাঝে মাঝে নতুন কিছু অ্যাপ ডাউনলোড করে ইন্সটল করার পর কিংবা বিভিন্ন ব্রাউজারে গিয়ে কিছু ডাউনলোড দেয়ার পর অথবা যদি দেখেন আপনার সকল অ্যাপ আপডেট দেয়ার পর নতুন কোন অ্যাপ উপস্থিত হয়েছে যেটা আপনি ইন্সটল দেননি তাহলে নিশ্চিত থাকুন এটা কোন একটা হ্যাকারের কাজ যা উপরের যে কোন উপায়ে আসতে পারে। আরো নিশ্চিত হতে আপনি ওয়েবসাইটে সার্চ করে দেখতে পারেন সেই অজ্ঞাত এপস সম্পর্কে। দেখুন অন্যদের মন্তব্য এবং এর ব্যবহারকারীদের সংখ্যা। বাকি টুকু আপনিই বুঝতে পারবেন।

অ্যাপ কাজ করছে না

নতুন কোন ফাইল বা অ্যাপ ডাউনলোড দিয়ে ইন্সটল করার পর যদি দেখেন ফোনের পুরাতন কিছু অ্যাপ আগের মত কাজ করছে না তাহলে বুঝবেন আপনি malware দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন। কিছু কিছু ক্ষেত্রে পুরাতন কিছু অ্যাপ চালু করতে গেলে হ্যাং হয়ে যেতে পারে।

দ্রুত পাওয়ার অপচয়

আপনার মোবাইলের ব্যাটারি পাওয়ার যদি হঠাৎ করেই খুব দ্রুত শেষ হতে থাকে তাহলে এটাও একটা কারণ হতে পারে হ্যাকিং এর। কোন উপায়ে যদি আপনার মোবাইলে কোন স্পাইওয়্যার টাইপের অ্যাপ ঢুকে যায় আর তা যদি খুব ভারী মানের হয় তাহলে বেশি বেশি তথ্য সেন্ড করার জন্য বেশি পাওয়ার অপচয় করবে। এসব অ্যাপ সাধারণত ব্যাকগ্রাউন্ডে রান করে তাই আপেক্ষিক দৃষ্টিতে কিছুই দেখতে পাবেন না। পাওয়ার অপশনে গিয়ে দেখতে পারেন আপনার পরিচিত কোন অ্যাপ কেমন পাওয়ার ব্যবহার করছে।

ফোন হঠাৎ স্লো

আপনার ফোন স্লো কাজ করছে? এটা দুটো কারণে হতে পারে। ফোনটি বেশি পুরানো হয়ে গেলে বা র‍্যাম কম থাকলে বা খুব বেশি অ্যাপ ইন্সটল করলে আর নইলে আপনার ফোনে malware আক্রান্ত হলে। এমন অনেক malware আক্রান্ত অ্যাপ রয়েছে যা আপনার ফোনের স্বাভাবিক ব্যবহার গতিকে  বাঁধা দেয়। আসলে malware একটি ভারী আর বেশি মেমোরি নষ্টকারি প্রোগ্রাম বলা যেতে পারে। আক্রান্ত অ্যাপ গুলো আপনার ফোনের ডাটা অন্য স্থানে ট্রান্সফার করতে থাকে বিধায় ফোন স্লো হয়ে যায় তাৎক্ষণিক। স্মার্ট ফোন স্মার্ট কিন্তু মনে রাখবেন হ্যাকার তার চেয়েও স্মার্ট হতেই পারে।

অপরিচিত নাম্বার ডায়াল লিস্টে সাথে টাকা কাটছে?

হ্যাকারগণ তাদের অপরাধ মূলক কাজ সাধারণত অন্য ডিভাইস থেকে করতে পছন্দ করে। তারা ব্যায়বহুল ইন্টারন্যাশনাল কল কিংবা অপরাধ  মূলক কিছু কাজের জন্য আপনার মোবাইলের ব্যালেন্স ব্যবহার করতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে আপনি এই জন্য ভুল আসামি হয়েও সনাক্ত হতে পারেন।

অপরিচিত ম্যাসেজ

অপরিচিত নাম্বার ডায়াল লিস্টে থাকা এবং টাকা কাটা যেমন হ্যাকিং এর লক্ষণ ঠিক তেমনি অপরিচিত নাম্বার থেকে আজব আজব ম্যাসেজ ক্যাটাগরিহীন নাম্বার থেকে পাওয়াটাও একটা হ্যাকিং এর শিকার হওয়ার লক্ষণ। তারা হয়তো আপনার কাছে মূল্যবান কিছু চাইবে কিংবা আপনি যদি না দেন তাহলে আপনাকে ব্ল্যাক মেইল করতে উলটাপালটা ম্যাসেজ আপনার ফ্রেন্ড দের দিয়ে বিভ্রান্ত করবে। যদি কখনো জানতে পারেন যে আপনার নাম্বার থেকে উলটাপালটা ম্যাসেজ যাচ্ছে ফ্রেন্ডদের কাছে তাহলেও বুঝে নিবেন আপনি হ্যাক হয়েছেন।

ফোন লক/অফ হবে না

হ্যাকার আপনার ফোনের মূল কন্ট্রোল নিতে পারলে আপনি হ্যাকারের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিচ্ছু করতে পারবেন না। এমনকি আপনি ফোন অফ/ লক করতেও পারবেন না। বরং আপনার ফোন উলটা পাল্টা কাজ করবে, ব্রাইটনেস বাড়বে-কমবে, অন্য কোন এপস চালু হয়ে যাবে ইত্যাদি।

কল করলে ইকো হওয়া

আপনি যদি স্ট্রং কলিং জোনে থাকেন তারপরেও যদি ফোন কলে কারো সাথে কথা বলার সময় একই কথা বার বার শুনা যায় অথবা নয়েজি সাউন্ড পাওয়া যায় তাহলে বুঝবেন আপনার কল ট্র্যাক করছে কেউ। অনেক সময় মোবাইল কোম্পানি গুলোও গ্রাহকের কলিং সিস্টেম পরীক্ষার জন্য এমন করে থাকে তবে তা খুব সীমিত সময়ের জন্য। কিন্তু কিছু হ্যাকার এবং গোয়েন্দা সংস্থা ফোনে আড়ি পাততে এমন করে।

পরিচিত কোন ওয়েবসাইট অন্যরকম আচরণ করলে

আপনি ধরুন ফেসবুক চালাচ্ছেন। কিন্তু আপনি খেয়াল করলেন আজ ফেসবুক অন্যরকম কাজ করছে। ব্রাউজ করতে করতে হঠাত আটকে আটকে যাচ্ছে বা বার বার ক্রাশ হচ্ছে। তাহলে বুঝবেন আপনার ফোন এবং ব্রাউজারের মধ্যে থেকে কিছু একটা আপনার সব কিছু কপি করে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছে। এটা malware হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে।

ইন্টারনেট ডাটা বেশি খরচ হচ্ছে

আপনার ডাটা প্যাক ক্রয়ের পর পরই দেখছেন ডাটা খুব দ্রুত শেষ হয়ে যাচ্ছে। আপনি দয়া করে ডাটা ইউজেজ অপশনে গিয়ে দেখুন কি পরিমাণ অস্বাভাবিক ডাটা আপনার গিয়েছে। ডাটা ইউজেজ বাই অ্যাপ্লিকেশান অংশে গিয়ে এইবার দেখুন কোন অ্যাপ কি পরিমাণ ডাটা কাটছে। যদি দেখেন আপনার ইন্সটল করা কোন নতুন অ্যাপ অস্বাভাবিক ডাটা কাটছে তাহলে নিশ্চিত হোন এটা malware, আপনার নিরাপত্তা চাইলে এখনই ডিলেট করে দিন।

মোবাইলে অনাকাঙ্ক্ষিত বিজ্ঞাপনের আবির্ভাব

আপনি নেট ব্রাউজিং করছেন হঠাৎ খেয়াল করলেন আপনার সম্পূর্ণ স্ক্রিন জুড়ে একটা বিজ্ঞাপন দেখাচ্ছে কিংবা আপনাকে অফার করা হয়েছে আপনি লটারি জিতেছেন তাই ক্লিক করুন এখানে। এমন কোন বিজ্ঞাপন পাওয়া মানে আপনি স্পাইওয়্যার দ্বারা আক্রান্ত এবং আপনার এক ক্লিক দেয়া মানেই আপনি হ্যাকারের ফাঁদে পা দিলেন। এসব হ্যাকার সাধারণত malware  ছড়িয়ে আপনার সর্বনাশ করবে।

ঘন ঘন স্প্যাম মেইল আসা কিংবা মেইল সেন্ড হওয়া

যদি দেখেন আপনার মেইলে স্প্যাম মেইল বেড়ে গিয়েছে কিংবা আপনি যেগুলো সেন্ড করছেন সেগুলো প্রায় স্প্যাম এ স্থান পাচ্ছে তাহলে বুঝবেন আপনি হ্যাকার দ্বারা আক্রান্ত। কারণ গুগল অপরিচিত কোন সার্ভার থেকে মেইল আসা কিংবা যাওয়া সাপোর্ট করে না। আর হ্যাকারগণ আনআইডেন্টিফায়েড সার্ভার ব্যবহার করে।

হঠাৎ কোন কিছু ডিলিট হয়ে যাওয়া

যদি কখনো কোন অ্যাপ, ম্যাসেজ, ছবি, ভিডিও ডিলেট হয়ে যায় আর তার কারণ আপনি না বুঝেন তাহলে আপনি হ্যাকার দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন ধরা যেতেই পারে।
পরিশেষে এটাই বলবো, যদি কখনো দেখেন আপনার মোবাইলে এমন সমস্যা গুলো দেখা যাচ্ছে তাহলে যত দ্রুত পারেন আক্রান্ত অ্যাপ গুলো খুঁজে ডিলেট করে দিন। অথবা অ্যান্টিম্যালওয়্যার ব্যবহার করুন। যদি তাতেও কাজ না হয় মোবাইলের সব কিছু মুছে ফেলে রিস্টোর করুন। আর হ্যাঁ, যেখানে সেখানে ফ্রি ওয়াইফাই, বা ওয়েবসাইটের ফিশিং এ পা দিবেন না। অচেনা প্লেসে ইউএসবি চার্জ দিলে অনলি চার্জিং মুড করে দিবেন। ম্যাসেজে অপরিপূর্ণ লিংক আসলে ক্লিক করবেন না। আর বেশি সমস্যা হলে এক্সপার্টকে বিষয়টা জানান। আর এই পোস্টটি ভাল লাগলে শেয়ার করুন বন্ধুদের সাথে।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

সর্বশেষ আপডেটেড অফার পেতে চান?

অর্ডিনারি আইটি কী?