Ordinary IT https://www.ordinaryit.com/2019/09/laptop-slow.html

ল্যাপটপ স্লো হবার কারণ গুলো জেনে নিন


পিসি স্লো হয়ে গেছে! কিভাবে পিসি ফাস্ট করব? এমন প্রশ্ন আমরা প্রায়ই শুনে থাকি। আপনার পিসি স্লো হওয়ার শীর্ষ কিছু কারণ এই পোস্ট এ তুলে ধরা হল। এটা কোন ব্যাপার না যে আপনি আপনার পিসি কি কাজের জন্য ব্যবহার করছেন। আপনার কাছে যেটা ব্যাপার সেটা হল আপনি যেই কাজের জন্য ব্যবহার করছেন সেটা যেন সময় মতো হয়। কিন্তু আপনার অতি জরুরি কাজটি যদি আপনার পিসি কচ্ছপের মতো করে দেয় তাহলে তার থেকে বিরক্তিকর কিছু নেই। আসলেই এই সমস্যাটির ভুক্তভোগীর সংখ্যা যদি গণনা করা হয় তাহলে দেখা যাবে যে প্রত্যেকটি কম্পিউটার ব্যবহারকারীর কাছে এটি প্রধান সমস্যা। আপনি যদি এরকমই ভুক্তভোগী হয়ে থাকেন তবে আপনার জন্য সুখবর আছে। সুখবরটি হল আপনি চাইলে আপনার পিসি স্লো হওয়ার কারণ খুঁজে বের করে এই সমস্যার সমাধান করতে পারবেন।

পিসি স্লো হওয়ার কারণ সমূহঃ

ডিফ্রাগিং করাঃ

আপনি আপনার কম্পিউটার শেষ কবে ডিফ্রাগ করেছিলেন? এটা হল অন্যতম এক মাধ্যম আপনার পিসির গতি বাড়ানোর। যদিও বা নতুন অপারেটিং সিস্টেমগুলো প্রায়ই ডিফ্রাগিং করে থাকে। তবুও এই কাজ আপনি খুব সহজেই আপনার পিসির কন্ট্রোল প্যানেল থেকে করতে পারবেন। এই ডিফ্রাগিং আপনার ফাইল গুলো আরও সমৃদ্ধ করে ও মেমরি স্পেস ফ্রি করে যাতে আপনার কম্পিউটার দক্ষতার সাথে দ্রুত গতিতে চলতে পারে।

মেমোরি বৃদ্ধিঃ

আপনার পিসির র‍্যামের পরিমাণ চেক করুন। যদি সেটি পরিমাণে কম দেখতে পান তাহলে অতিরিক্ত র‍্যাম ইন্সটল করে নিন। কিছু পিসিতে কম্পিউটারের প্রয়োজনীয় র‍্যামের তুলনায় কম র‍্যাম থাকে। বেশির ভাগ ব্যবহারকারীরা এটি বুঝতে পারে যখন তারা সেই কম্পিউটার ব্যবহার করে ভারি কাজ করতে থাকে। যারা পিসি খুব কম ব্যবহার করে তারা কখনই র‍্যামের এই পরিবর্তনটা লক্ষ করে না। অতিরিক্ত র‍্যাম ব্যবহারের পর আপনি আপনার পিসির কার্যক্ষমতা দেখে অবাক হবেন। সাধারণত আপনি যদি ২ জিবি র‍্যাম ব্যবহার করে ৬৪ বিট অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করেন তাহলে আপনার পিসি খুবই স্লো কাজ করবে। কারণ ৬৪ বিট অপারেটিং সিস্টেমের রিকোয়্যারমেন্টই হল নূন্যতম ২ জিবি র‍্যাম। সেখানে যদি টোটাল র‍্যামই ২ জিবি হয়। তাহলে তো পিসি অন অফ করা ছাড়া আর তেমন কোন ভারি কাজই করতে পারবেন না। তবে আপনি যে কাজের জন্যই পিসি ব্যবহার করেন না কেন, এই যুগের আপনার নূন্যতম ৮ জিবি র‍্যাম অবশ্যই প্রয়োজন।

ব্রাউজারের টুলবারঃ

আপনি যদি আপনার পিসিতে সব সময় নেট ব্রাউজ করেন এবং সব সময়ই কিছু না কিছু ডাউনলোড করেন তবে সময়ের সাথে সাথে ব্রাউজার স্বয়ংক্রিয় ভাবে ভিন্ন রকমের টুলবার ইন্সটল বা ডাউনলোড করে। যদি পারেন তাহলে সে সকল টুলগুলো ডিলেট করে দিন। যদি আপনি তাদের ব্যবহার না করে থাকেন তাহলে সেগুলো রাখার কোন মানে হয় না। তাই যত দ্রুত সম্ভব সেগুলো অপসারণ করে দিন। অনেক সময় এমনটা হয় যে আপনার পিসি স্লো হয় নি। বরং আপনার পিসির ইন্টারনেট কানেকশন এ থাকা ব্রাউজার এড-অন সমূহ আপনার ইন্টারনেট ব্রাউজিং স্লো করে দেয়। এতে আপনার ইন্টারনেট ব্রাউজ করার গতি ক্রমশ কমতে থাকে। আর আপনি মনে করেন যে আপনার পিসি স্লো। সে কারণেই আপনি যত দ্রুত সম্ভব অতিরিক্ত টুল যেগুলো আপনার প্রয়োজন হয় না সেগুলো অপসারণ করে দিন।

এগুলো ছাড়াও পিসি স্পিড বাড়ানোর টিপসঃ

  • আপনার হার্ডডিস্ক এর স্পেস চেক করুন। অপ্রয়োজনীয় প্রোগ্রাম ডিলিট করে দিন।
  • কম্পিউটার ভাইরাস, স্পাইওয়ার আপনার পিসিতে আছে কিনা চেক করুন। যদি আপনার কম্পিউটারে ভালো কোন এন্টিভাইরাস দেওয়া না থাকে তবে এন্টিভাইরাস দিন। এন্টিভাইরাস দ্রুত গতিতে স্ক্যান করে সেগুলো সনাক্ত করে। তারপর সেটা ডিলেট করে কম্পিউটারের গতি বাড়ায়।
  • অনেক দিন ধরে যদি রান প্রোমোট থেকে রিসেন্ট ও টেম্প ফাইল ডিলেট করা না হয় তবে পিসি স্লো করে। তাই রান প্রোমোট থেকে রিসেন্ট ও টেম্প ফাইল ডিলেট করে দিন।
  • একটি ধীরগতি সম্পন্ন পিসি মানে এই না যে আপনাকে নতুন পিসি কিনতে হবে এই পিসি কাজ করবে না। স্লো পিসি হল একটি লক্ষণ যে আপনার পিসি আপগ্রেট করার সময় এসেছে।

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

0 Comments

দয়া করে নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন ??

সর্বশেষ আপডেটেড অফার পেতে চান?

অর্ডিনারি আইটি কী?